লিখব না

অরুণিমা মন্ডল দাস ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৫, মঙ্গলবার, ০৫:২৮:১০অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি, কবিতা ১৬ মন্তব্য

12021731_1705666053000892_2036378698_n
বারে বারে আঘাতে চূর্ণ বিচূর্ণ হ্রদয়
মুখ থুবড়ে ডাস্টবিনের জঞ্জালে পরিণত
হয়!
ওষুধের শিশিটা ঝাঁকাতে পারছি না/
বা উত্তম ওষুধ তৈরী করতে পারছি না/
যতক্ষণ না ভর্তি ওষুধের খানিকটা কাজে
লাগছে!
চাবুক মন্তব্যের অহেতুক পিটুনিতে পেনের কালি শুকিয়ে কাঠ!
হিড়িম্ব হিড়িম্বা রাক্ষস রাক্ষসীদের গ্রাস করছে মনের নির্মলতার স্রোত!???
#

স্বপ্নের চোরাবালিতে সমুদ্র মন্থনের অমৃত ভাসে না!?
দেবরাজ ইন্দ্র গুরুপত্নী অহল্যা দেখে মূর্ছাও যায় না!?
কৃষ্ণের প্রেম লীলা না ব্যাভিচার তা প্রকৃতভাবে বুঝতে গীতার কর্মযোগ শিউরে উঠছে!!
মনের অক্ষাংশ দ্রাঘিমাংশ কামনার সেন্ট্রিগ্রেডের তাপমাত্রায় দোদুল্যমান !
ফুলের গন্ধ শুঁকতে শুঁকতে সৌন্দর্যের ড্রাগের নেশায় উন্মত্ত হয়ে ভ্রমরগুলি আধা আলো ছায়ায় রবির কিরণে মাখামাখি হয়ে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েছে!!
#

বড়শিতেমাছ বিঁধলে মাছের কি বা দোষ!!!
অসহায়ত্ত্বের যন্ত্রণায় পিঠে হতাশার ক্যানসার তৈরী হলে
সেখানে বোরোলিন বা কোন আন্টিবায়োটিক কাজ দেবে না
মৃত্যুর প্রহর গুণতে গুণতে বেঁচে
থাকাটাই তাঁর কাছে চরম নরক মনে হয়!!!??
#

আমি ভাবি লিখব না/
কিন্তু হারিয়ে যাব রবীন্দ্রনাথের গানের পরশে!
হারিয়ে যাব শেক্সপিয়ারের আরব্যোপন্যাসের রোমান্সের শিহরণে!
কোন বলিউডি মুভির উজ্জ্বল লাভ সিনের দৃশ্যে!
মাধুরী – অনিল কাপুর ,প্রসেনজিৎ- দেবশ্রী ,উত্তম -সুচিত্রা, জুটির মধ্যে আগুন ঝরা রোমান্স ফিরিয়ে আনতে!!!!
আকাশের সূর্যের লাল রশ্মিটা মনে হচ্ছিল মাথার উপর হাত বুলিয়ে সাহস যুগিয়ে যাচ্ছে কুরুক্ষেত্র ময়দানে নেমে শিখণ্ডীদের সংঘে লড়ে যেতে!!!
#

কালির দোয়াত টা উপচে পড়ছিল/
রংগুলো একবার লাল নীল হলুদ রং
ধারণ করছিল/
যার মধ্যে কোন জ্ঞানের রং ছিল না/
সেটা ছিল দোয়াতের একদম নীচে/
জ্ঞানের রং দিয়ে লিখতে আরম্ভ করতেই
সমাজের নিগ্রো পিশাচের দল থাবা বসাল!!!??
কাগজ ছিঁড়ে গেলো/
কিন্তু লেখাগুলো মনের কম্পিউটার তে হারবেরিয়াম করলাম/
লেখাগুলো আবার
ঢাকাই জামদানি শাড়ির মত মসলিন তাঁতের ছাঁচে চকচকে করে সাজিয়ে
জুরির শাড়ির মত ঝকঝকে পুঁতি দানার কারুকার্য করে ,পিকো, ইস্ত্রী করে, জবরদস্ত
পালিশ করে ,বাজারে ছেড়ে দিলে
দিব্যি লাভের খাতা চড়চড় করে বাড়ছে!!!!
চৈত্র সেলের পোকা খাওয়া পচা শাড়ি ও যদি পালিশ করে ভালোভাবে তেল মাখিয়ে হিরোইনদের নামে ছেড়ে দিলেই
দোকানদারের বাজার পুরো রমরমা!!!!
#

তুমি কি জানো/
নতুন জিনিসটা ঠিক কিরকম?
বানর থেকে অভিযোজিত হয়ে মানুষ!
বাউল ,মান্না দে, রবীন্দ্রসংগীত, কিশোরকুমার ,আশা ভোঁশলে র পরই আধুনিকীকরণ হয়েই হয়েছে ডিস্কো অরিজিৎ সিং, বাংলা ব্যান্ড ,নচিকেতা, সুমন বাংলা ব্যান্ডের গান হানি সিং, কণিকা কাপুর ,শ্রেয়া ঘোষাল ,অঙ্কিত তিওয়ারি!!!!!
নজরুল, সুকান্ত, রবীন্দ্রনাথ,
থেকে জীবনানন্দ ,জসীমুদ্দীন ,শক্তি চট্টোপাধ্যায় ,শঙ্খ ঘোষ, সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় ,জয় গোস্ব্বামী,
দেশী মদের মধ্যে ফলের রস দামী ফ্লেবার মিশিয়ে দামী বিলিতি মদ তৈরী করানো হচ্ছে!!!!!
#

ডায়েরির পাতায় কাটাকাটি করে লেখাগুলো/
বলিষ্ঠ পান্ডুলিপির গঠন করে!
পড়তে পড়তে মন কেঁদে বিবেকের চোখ
দিয়ে জল উপচে আসবে
সেটাই উজ্জ্বল লেখনীর তাজমহল!!!
#

তাঁতে বোনা বস্ত্র থেকে ফ্যাশান ডিজাইনের দামী পোষাক!!
তালপাতা র পাখা থেকে এয়ারকন্ডিশন্ড!!
সবই ওই পুরনো মেশিন কে নতুনের সৌখিন ছাঁচে ফেলে গঠনের মডেল আর পার্টস পরিবর্তন করে নতুন নাম দিয়ে নতুন করে তোলা হচ্ছে!!!
পুরীর জগন্নাথদেবের মূর্তি বৃন্দাবনের কৃষ্ণমূর্তি কিন্তু একইরকম আছে!
পূজোর পদ্ধতি আজও একইরকম হয়ে আসছে!
শুধু সাজগোজের পরিপাটি বেড়েছে আর পান্ডাদের চাঁদা তোলার চিৎকার!!???

==========
কোলকাতা
১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৫

৩৮২জন ৩৮২জন
0 Shares

১৬টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ