আগামী ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা দিবসে লাখো কণ্ঠে জাতীয় সংগীত গেয়ে বিশ্ব রেকর্ড গড়ার স্বপ্নে বিভোর ছিল জাতি। কিন্তু সে স্বপ্ন এখন কালিমা লিপ্ত হবার পথে । যুদ্ধাপরাধীদের অর্থের একটি মুল উৎস ইসলামী ব্যংক নাকি এই লাখো কণ্ঠে জাতীয় সংগীত গাওয়া আয়োজনের অর্থায়ন করবে । যদি তাই হয় , তবে চাইনা এমন কালিমা লিপ্ত আয়োজন । ঘৃণা ভরে প্রত্যাখ্যান করলাম এই আয়োজনকে ।

১৪ মার্চ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে  ইসলামী ব্যাংকের ভাইস চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার মুস্তাফা মনোয়ার তিন কোটি টাকার চেক হস্তান্তর করেন। এসময় অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত এবং জ্বালানি উপদেষ্টা ড. তৌফিক ই ইলাহী চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন। পরের দিন ১৫ মার্চ চেক হস্তান্তরের বিষয়ে ইসলামী ব্যাংক গণমাধ্যমে বিজ্ঞপ্তি পাঠায়। এতে বলা হয়, লাখো কণ্ঠে  জাতীয় সঙ্গীত আয়োজনের জন্য তিন কোটি টাকা অনুদানের চেক তুলে দিয়েছে ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড।

ইসলামী ব্যংকের নিজস্ব ওয়েব সাইটের ইভেন্টে দেখা যাবে চেক হস্তান্তর এর ছবি এবং ঘোষনা  PM receives cheque from IBBL for organizing Sonar Bangla in Million Voices  

ইসলামী ব্যংকের এই ঘোষনায় দেশ ব্যাপী আলোড়ণ তোলে । ১৯৭১ এর পরাজিত শক্তিরা এখন জামায়াত ইসলামীতে আশ্রয় নিয়েছে । যে কয়টি আর্থিক প্রতিষ্ঠান জামায়াত ইসলামীকে সহযোগিতা করে ইসলামী ব্যংক তার মাঝে অন্যতম। স্বাধীনতার মাসে স্বাধীনতা বিরোধী সংগঠনের প্রধান অর্থের যোগানদাতা ইসলামী ব্যংক থেকে অর্থ নিয়ে এই আয়োজন চাইনা আমরা ।

সমালোচনা হলে ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবসে ‘লাখো কণ্ঠে সোনার বাংলা’ অনুষ্ঠানের জন্য ইসলামী ব্যাংকের কাছ থেকে অর্থ নেয়া হয়নি বলে জানিয়েছেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর।
যদি অর্থ নেয়া না হয়ে থাকে,তবে ইসলামী ব্যংক যে তাদের ওয়েব সাইটে উপরোক্ত ছবি সহ ইভেন্ট ঘোষনা করেছে , তার কি ব্যাখ্যা হতে পারে ? তারা কি টাকা প্রদানকে ভিন্ন নাম দিয়ে মিথ্যে প্রচারনায় নেমেছে ? যদি মিথ্যে প্রচার করে তবে তাদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়া হবে ?

তবে এই আয়োজনের জন্যই যে টাকা প্রদান করা হয়েছে , তার প্রমাণ মেলে তথ্য মন্ত্রী হাসানুল হক ইনুর বক্তব্যে । তিনি বলেন ” ইসলামী ব্যাংকের টাকা ফেরৎ দেওয়া উচিৎ। এ টাকা দিয়ে জাতীয় সঙ্গীতের অনুষ্ঠান হবে না। ”
এর অর্থ টাকা নেয়া হয়েছে এবং তা ঐ আয়োজনের জন্যই ।

সর্বশেষঃ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী এই অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ থেকে বিরত থাকার সিদ্ধান্ত নিয়ে এর অংশগ্রহণকারীদের তালিকা থেকে নিজেদের নাম প্রত্যাহার করার ঘোষণা দিয়েছে । 
অভিনন্দন উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী -{@

মুক্তিযুদ্ধ কারো ব্যাক্তিগত সম্পত্তি নয় । আমার পিতা ১৯৭১ এর রণাঙ্গনে যুদ্ধ করে শহীদ হয়েছেন। এমনি লাখো আমির পিতা ভাই বোন শহীদ হয়েছেন ১৯৭১ এর স্বাধীনতা যুদ্ধে । এই লাখো শহীদের সাথে বেঈমানি করার অধিকার কারো নেই ।

মা , তোর বদনখানি মলিন হলে  আমি নয়ন
ও মা, আমি নয়ন জলে ভাসি
সোনার বাংলা , আমি তোমায় ভালোবাসি ।।

২৫৬জন ২৫৬জন
0 Shares

১৭টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য