লর্ড অফ ইনসোমনিয়া

গোধূলি ২১ জানুয়ারী ২০১৫, বুধবার, ০৩:১৬:১৪অপরাহ্ন গল্প ৪৩ মন্তব্য


মহুয়ার বিয়ে হয়েছে তিনমাস। লোকটি যে বিয়ের পরদিন সকালেই গায়েব হয়েছে, আর আসে নি। মহুয়ার ব্যস্ত জীবন কেটেই যায়, থেমে নেই কিছুই। শুধু যখন ঘরে ফেরে তখন ভীষণ শুন্যতাবোধ করে। প্রতিদিনই ভাবে আজ হয়ত আসবে, কিন্তু আসে না মহুয়ার বদ জামাই।

মহুয়া ঘরে ফিরে দেখে টিভিরুমের সোফায় পাশের বাসার পিচ্চিদুটো বসে আছে। পিচ্চিদুটো প্রায়ই আসে মহুয়ার কাছে গল্প শোনার জন্য। অনেক সুন্দর করে গলপ পড়তে পারে মহুয়া। মহুয়ার শাশুড়িও পিচ্চিদুটোকে অনেক আদর করেন। পিচ্চি দুটোর মধ্যে ভাইটা ছোট ও বোনটা বড়। জেমস ও জেনি। ইংলিশ মিডিয়ামে পড়ে ওরা। জেমসের বয়স ১০ ও জেনির বয়স ১২।

জেমস বলল, “মাম আজ আমাদের তোমার কাছে সেন্ড করেছে।”

জেনি বলল, “আজ রাতে আমরা তোমার সাথে ঘুমুবো।”

পিচ্চিগুলো অন্য পিচ্চিদের মত হুড়োহুড়ি করে না, একটা ভারিক্কী ভাব নিয়ে বসে থাকে। ওদের চেহারা দেখলে মনে হয় সবজান্তা। রাতে মহুয়ার দুপাশে দুজন শুয়ে পড়ল।

মহুয়া বলল, “আজ আমি তোমাদের The Little Mermaidএর গল্প শোনাবো।”

জেমস বলল, “উহু, আন্টি, আমাদের True Love’s Kissএর গল্প শোনাও।”

মহুয়া ভাবল, ইংলিশ মিডিয়ামের পিচ্চিগুলো কি সেয়ানা। ওদের বয়সে মহুয়া kissও বুঝতো না। মহুয়া বলল, “True Love’s Kissএর গল্প?”

“হুম”, বলল জেনি।

“Sleeping Beauty শোনাই তাহলে?”

জেমস বলল, “Oh no, আন্টি, একই গল্প কতবার? এর আগে কম করে হলেও বিশবার শুনেছি।”

“তাহলে Beauty & the Beast শোনাই?”

জেনি বলল, “ওটাও তো শুনেছি অনেকবার।”

মহুয়া বলল, “Snow White?”

পিচ্চিদুটো একসাথে বলল, “No”

“The Frog Prince?”

আবার একসাথে বলল, “No.”

এখন কি গল্প শোনাবে মহুয়া ওদের? মহুয়ার চোখজুড়ে ঘুম। আর পিচ্চিদুটোর ঘুমোনোর নাম নেই। হঠাত করে মহুয়া ভাবল, হুম, গল্প পয়দা করবে ও।

মহুয়া বলল, “Lord of Insomnia?”

 

জেমস ও জেনি একসাথে মহুয়ার দিকে তাকাল, তারপর নিজেদের দিকে তাকাল। একসাথে বলল। “বলো। বলো।”

জেমস বলল, “Insomnia মানে কি?”

“ঘুম না হওয়াকে Insomnia বলে।”

জেনি বলল, “ও”
দুজন একসাথে আবার বলল, “বলো। বলো।”

পিচ্চিদুটোকে আবার গল্প শোনাতে হয় ইংলিশে। মহুয়া বলা শুরু করল-

“In heaven, there was a goddess who used to sleep all day long & at night she used to come down to earth to make people sleep. She was the goddess of sleep. Oneday in her dream she found a guy who was full of anger & agony. Because of that guy her dreams became nightmares. So she decided to find him. When she saw that guy with red eyes, she came to know that he’s the lord of insomnia of Hell. She felt pity for his red eyes & sleeplessness. She thought, he must be the unhappiest man deprived of lovely dreams. From her pity love blossomed. And she fall in love. She met him, the arrogant lord ignored her as she was from heaven. But she clung to him like a magnet. The lonely lord of insomnia couldn’t ignore her. So he let her stay her beside him. But they were from 2 worlds. She only stayed to him at night during their visit on earth. As she fall in sleep while accompanying him, his sleepless eyes watched her. He felt something that he never felt before. He then kissed her. For the first time in his whole life he felt sleepy, fall in sleep. At that moment, she woke up. From the touch of his lips, her divine power is damaged as well as his hellish ability. She waited for him to wake up. When he woke up, she asked why he kissed her. Her power was fading from that kiss. Lord said, ‘I think, that’s great. This pounding heart is better than any power.” He kissed her again until all their power were lost. Both of them were kicked out from heaven & hell as they became human. They were sent to earth, they lived happily ever after. They decided that if any day they regain their power, they would do the same.”

 

পিচ্চিদুটো হাততালি দিল।

মহুয়া বলল, “এর জন্য পৃথিবীর সবাই এখন ঠিকমতো ঘুমায়। তবে যারা ঠিকমতো ঘুমায় না, তাদের জন্য Lord of Insomnia ও Goddess of Sleepএর পাওয়ার ফিরে যেতে পারে। ওরা আবার আলাদা হয়ে যাবে। তোমরা কি তা চাও?”

“No. Never” একসাথে বলল দুজন।

“আচ্ছা, এখন থেকে ঠিকমতো ঘুমোবে। কেমন?”

“ওকে”

“তাহলে এখন ঘুমোও”

মহুয়া ভাবল, ওয়াও। পিচ্চিদের গল্প বলতে বলতে সত্যিই অনেক সুন্দর একটা গল্প হয়ে গেছে। পিচ্চিদুটো ঘুমিয়ে পড়তেই মহুয়া কাগজ কলম নিয়ে লিখে ফেলল প্লট। পরে সুন্দর করে সাজাতে হবে মহুয়ার রূপকথার গল্পটিকে, বেশ আনন্দ হচ্ছে। প্লটটি লিখেই ঘুমিয়ে পড়ল মহুয়া।

ভোরের দিকে মহুয়ার মনে হল, ঠোঁটে নরম কিছুর ছোঁয়া লেগেছে। মহুয়ার ঘুম ভেঙ্গে গেল, দেখল, লোকটা মাথা ঝুঁকে তাকিয়ে আছে। মহুয়া বিস্ফোরিত চোখে তাকিয়ে রইল। মিনিটখানেকবাদে মহুয়া বলল, “দুটো বাচ্চা দু’পাশে আমার।”

লোকটা বলল, “ওরা ঘুমুচ্ছে। তাছাড়া ওরা এসব হর-হামেশাই দেখে।”

মহুয়া বলল, “এর আগেও আপনাকে এভাবে দেখেছে?”

“তোমার এই প্রশ্নের উত্তর আমি দেব না।”

“কেন?”

“By the way, গল্প লিখেছ না প্লট?”

“কোথায়?”

“ঐ যে Lord of Insomnia”

“প্লট।”

“তা ইংলিশে লিখেছো কেন? True Love’s Kiss বাংলায় অদ্ভুত শোনাবে, তাই? ‘সত্যিকার ভালবাসার চুম্বন’ অথবা ‘প্রকৃত ভালবাসার চুমু’।”

“মজা নিচ্ছেন?”

“উহু, Goddess of Sleepএর পাওয়ার ফিরে আসার আগেই শেষ করে দিলাম।”

 

 

মহুয়াকে নিয়ে লেখা গল্প-

লেখিকার “ভবঘুরে ভালবাসা”

( পরীক্ষা চলছে। দিনখানেকের  গ্যাপ পেয়ে ফিরে এলাম সোনেলায়। সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন। আমি হয়ত সবার উত্তর সময়মত দিতে পারব না। সেজন্য আন্তরিকভাবে দুঃখ প্রকাশ করছি। কিন্তু যখনই বসব, উত্তর দিয়ে দেব। )

৪৯৫জন ৪৯৫জন
0 Shares

৪৩টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ