সোনেলা দিগন্তে জলসিড়ির ধারে

ভ্রমনে গেলে প্রচুর ছবি তুলি আমি। নিজের ছবি খুব কম তোলা হয়। জ্ঞাত বা অজ্ঞাত ভাবে আমার কিছু ছবি তুলে রাখে ভ্রমন সংঙ্গীগন। পরে এসব ছবি আমাকে দিয়ে দেন। এরমধ্যে কিছু ছবি আমার কাছে এপিক ছবি হিসেবে বিবেচিত হয়। মাঝে মাঝেই স্মৃতির এলবাম খুলে দেখি এসমস্ত ছবি। এইসব ছবিতে নিজকে আজীবন বন্দী রাখতে ভালো লাগে। এমন কিছু ছবি নিয়ে আমার এই ধারাবাহিক পোস্ট এর আয়োজন।

ছবির সংক্ষিপ্ত ইতিহাসঃ
২০১৪ সনে ব্যাবসায়ীক কারনে সিলেট যাই। সাথে ছিলেন ছোট বেলার বন্ধু ছাইরাছ হেলাল। সিলেটের লালাখাল দেখার জন্য দুজনে খুব সকালেই বের হই। ইঞ্জিন চালিত নৌকায় চড়ে নীল পানির লালাখাল অতিক্রম করছি আর নদী, দুই পারের প্রাকৃতিক দৃষ্যে মুগ্ধ হতে হতে সামনে আগাচ্ছি। শেষ প্রান্তে এসে থামি একটি সুন্দর চা বাগানে। এত সবুজের সমারোহ আমি আর দেখিনি ইতিপুর্বে। সারাদিনই কাটিয়েছি সবুজের সাথে।

ছাইরাছ হেলাল এই ছবিটি কখন তুলেছেন জানিনা আমি। হোটেলে এসে ছবিটি আমাকে দেখালে ছবিটির দিকে মুগ্ধ নয়নে তাকিয়েই থাকি। বন্ধুর তোলা অসাধারন সুন্দর এই ছবিটির প্রেমেই পরে যাই ।
===================================

সবুজ টানে সব সময়ই আমাকে । ইচ্ছে করে জীবন কাটিয়ে দেই এই সবুজের মাঝে ।
ইচ্ছে করে গাছ হয়ে যাই – ছায়া দেই মানুষকে
ফল হই – বেঁচে থাকুক পাখিরা সেই ফল খেয়ে
গাছের ডালে এসে বসুক – টিয়া , ময়না , ঘুঘু , শালিক , কাকাতুয়া
অথবা কেটে জ্বালানী বানাক বনে থাকা মানুষেরা , বেঁচে থাকুক ।
ইচ্ছে করে বন্য ফুল হই –
আরো কত ইচ্ছে সবুজকে নিয়ে,

৫৩৪জন ৩০১জন
0 Shares

৩৩টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য