যেভাবে সোনেলাকে জানি

মাহবুবুল আলম ২৭ নভেম্বর ২০১৯, বুধবার, ১২:২৬:৫৭অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ৩১ মন্তব্য

মাহবুবুল আলম

দীর্ঘ দিন থেকে আমি বিভিন্ন পত্রপত্রিকা ও ব্লগে লেখালেখি করছি।চার বছর আগে বিভিন্ন ব্লগ সাইটগুলো সার্চ করতে গিয়ে ‘সোনেলা’র সাথে পরিচয়।বেশ কিছুদিন পর্যবেক্ষণের পর সোনেলা ব্লগ সাইটটি আমার বেশ ভাল লেগে যায়। সেই সুবাধে ১৯/০৬/২০১৫ তারিখে নিবন্ধন করে সোনেলায় লেখা শরু করি। তখন সোনেলার কারো সাথে আমার তেমন পরিচয় ছিল না।এভাবে বেশ কিছুদিন লেখালেখির পর কাজের ঝামেলায় (মৌলিক কাজ) প্রায় সকল ব্লগেই লেখা বন্ধ করে দিই।২১/১০/২০১৬ তারিখের পর থেকে সোনেলায় আর লেখা হয়ে ওঠেনি।

কাজের ঝামেলা কিছুটা কমে আসলে, এ বছর ২০/০৩/২০১৯ থেকে আবার সোনেলায় একটা পোস্ট দিয়ে দীর্ঘ বিরতির অবসান ঘটাই। এরই মধ্যে আবার লেখালেখির সুবাধে সোনেলা ব্লগের বেশ কয়েকজন কর্তাব্যক্তির সাথে আমার একটা ভার্চূয়াল সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এঁদের মধ্যে-জিসান ইকরাম মো: শামসুল, তৌহিদুল ইসলাম তৌহিদ ভাই, ম্যাডাম সাবিনা ইয়াসমিন, ছাইরাস হেলাল, নিতাই বাবু, ইঞ্জাসহ কয়েকজনের সাথে বন্ধৃত্বর্পর্ণ সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এঁদের মধ্যে সর্বাগ্রে যার নাম উল্লেখ করতে হয় তিনি হলেন খুবই হাসি-খুশি মজার মানুষ এবং চিরতরুণ জিসান ভাইয়ের নাম বলতে হয়। সত্যি কথা বলতে গেলে তার কারণেই বর্তমানে আমি সোনেলাতে থিতু হয়েছি।এবং সময় পেলে লেখা প্রকাশ করছি। আর একজন হলেন, প্রিয়দর্শিনী ম্যাডাম সাবিনা ইয়াসমিন।তিনি অনেক সময় জোর করে লেখা লেখিয়ে নেন।

এরই মাঝে, একটি অভূতপূর্ব ঘটনা ঘটে। সেটি হলো-‘সোনেল‘য় হেমন্ত উৎসব প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। হেমন্ত উৎসবকে ঘিরে আয়োজিত হেমন্ত বন্দনা প্রতিযোগিতায় আমার একটি লেখা দিয়ে দেয়। এখানে বলে রাখা ভাল যে, লেখাটা আমি প্রতিযোগিতার জন্য লিখিনি।আর সত্যি বলতে কী, এখন আমার প্রতিযোগিতার বয়সও নেই। তবু সোনালা কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তকে সন্মান জানিয়ে আমি কিছু বলিনি। ফলাফল ঘোষণার পর দেখলাম প্রতিযোগিতায় আমার লেখাটিই প্রথম স্থান লাভ করেছে। এতে আমার কোনো উচ্ছ্বাস বা আবেগ কাজ করেনি। আমার মনে হয়েছে, প্রথম স্থানটি কোনো নবীণ লেখক দখল করতে পারলে আরও ভাল হতো। তারপরও সোনেলার এ আয়োজনকে আমি সাধুবাদ ও স্বাগত জানাই।

সোনেলার সাথে কাজ করতে যেয়ে আমার মনে হয়েছে, এ ব্লগের প্রতিটি কর্তাব্যক্তি নিজেদের উজার করে দিয়ে ব্লগটি এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। এখানে অনেক প্রতিশ্রুতিশীল লেখক ও পাঠকের সমাবেশ ঘটেছে। যারা সবাই স্ব স্ব ক্ষেত্রে অবদান রেখে অলাভজনক এ ব্লগটিকে দিন দিন সমৃদ্ধির দিকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। একজন শীর্ষস্থানীয় ব্যবসায়ী হয়েও জিসান ভাই প্রধান মডারেটর হিসেবে অনন্য অবদান রেখে চলেছেন।তার সাথে একঝাঁক তরুণতুর্কী সহকর্মী ব্লগটির জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। যা অনেকটা ‘নিজের খেয়ে বনের মোষ তাড়ানো’র সামিল। আমাদের দেশের ব্যবসায়ীদের শিল্প-সাহিত্যের প্রতি এত ঝোক সাধারণত পরিলক্ষিত হয় না।

এখানে যাদের নাম উল্লেখ করলাম-তাদের সাথে কোনোদিনই আমার সামনাসামনি ব্যক্তিগতভাবে দেখা স্বাক্ষাত হয়নি, তবু মনে হয় তারা যেন আমার কত দিনের চেনা, তাদের সাথে কত দিনের প্রাণের মহার্ঘ্য সম্পর্ক।তাই সময় পেলেই আমি কাজের ফাঁকে সোনালায় ঢুকে লগইন করি। পারলে লেখা দিই না হলে অন্যের লেখা পড়ে নিজকে আরও সমৃদ্ধ করার সুযোগটি কখনো হাতছাড়া করি না। তবে সময়ের অভাবে সকল সময় সকল লেখায় মন্তব্য করতে পারছি যা অনেকটাই আমার দীনতার পর্যায়ে পড়ে। এ জন্য সবার কাঝে আমি ক্ষমা প্রার্থনা করছি। বিশেষ করে ক্ষমাপ্রার্থনা করছি সোনেলার সকল মডারেটর, লেখক, ও সহযোদ্ধাদের কাছে।

লেখা আর দীর্ঘ করতে চাই না। পরিশেষে একটি কথা বলেই শেষ করতে চাই। যতদিন জীবনের শ্বাস-প্রশ্বাস চালু থাকবে ততদিন যেন সোনেলার সাথে থাকতে পারি পরম করুণাময়ের কাছে এটুকুই প্রার্থনা করছি।

সবার জন্য নিরন্তর শুভেচ্ছা!!

৪৪২জন ১৩৪জন
9 Shares

৩১টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য