যেভাবে আসবে শুদ্ধতা

আজিজুল ইসলাম ১২ এপ্রিল ২০১৪, শনিবার, ০৮:৩১:২২অপরাহ্ন বিবিধ ৭ মন্তব্য

 

আমাদের দেশে কিছু ব্যতিক্রম ছাড়া, রাজনীতিবিদরা ক্ষমতা খুবই পছন্দ করেন, সাথে আবার অবৈধ অর্থও। যদি এরকম হোত, ক্ষমতায় যাওয়া যাবে, তবে অবৈধ অর্থ পাওয়া যাবেনা, তখন দেখা যেত, কেউ আর ক্ষমতায় যেতে চাচ্ছেননা। দেশের অধিকাংশ মানুষের সাথে আজ আমারও এটাই চাওয়া, কেমন করে আসবে সেই পরিস্থিতি, সেই অবস্থা, যাতে ক্ষমতায় যাওয়া যাবে, তবে পাওয়া যাবেনা অবৈধ অর্থ।

অবৈধ অর্থের ছড়াছড়ির দুটি অসুবিধা। একটি হোল, এটাতে অর্থ সীমাবদ্ধ হয়ে পড়ে কিছু মানুষের হাতের মুঠোয়, বঞ্চিত হয় দেশের অধিকাংশ মানুষ। আর দুই হচ্ছে, দেশ পরিচিত হয় একটা চরিত্রহীন দেশ হিসেবে।

কিভাবে বঞ্চিত হয় দেশের অধিকাংশ মানুষ, সংক্ষেপে তার কিছুটা আলোকপাত করা যেতে পারে। ইঞ্জিনিয়ার-কণ্ট্রাকটর খারাপ কাজ করে, বঞ্চিত হয় এলাকাবাসী, কষ্টের লাঘব হয়না তাদের। নিয়োগবাজী করে পকেট ভর্তি করে এক শ্রেণীর অমানুষ, বঞ্চিত হয় মেধাবী তরুন। ভর্তিবাজী করে যারা, তাদের পকেট ভারী হয়, বঞ্চিত হয় সাধারন মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীরা। টেন্ডারবাজী করে একশ্রেনীর ঠিকাদার / ঠিকাদার নামধারী মাস্লম্যান লাভবান হয়, বঞ্চিত হয় অসংখ্য প্রকৃত ঠিকাদার। সেই অর্থে অবৈধ না হলেও গার্মেন্টস মালিকগনের হাতে প্রচুর অর্থ সঞ্চিত হয়, মরে গরীব গার্মেন্টসকর্মী। তৃণমূল পর্যায়ে সরকারের পক্ষ থেকে অতি দরিদ্রদের জন্য যে খাদ্য-শস্য-অর্থ বরাদ্দ প্রদান করা হয়, অধিকাংশই তার মেরে দেয়া হয়, বঞ্চিত হয় অতি দরিদ্ররা।  আরো অনেক ক্ষেত্র আছে, কিন্তু স্থানাভাবে আর উল্লেখ করা হোলনা। বরং বলা যায়, কোন ক্ষেত্রে দুর্নীতি নাই, দু:শাসন নাই ?

স্বয়ংক্রিয়ভাবে কি এগুলি বন্দ হয়ে যাবে, প্রিয় পাঠক ? রাজনীতিবিদ-সরকারী কর্মকর্তাগন পরিবর্তিত হওয়া পর্যন্ত কি সেজন্য আমরা অপেক্ষা করব ? তারও আগে প্রশ্ন, পরিবর্তিত কি হবেন তারা আদৌ ?

কিন্তু রাজনীতিতে তো অবশ্য, অবশ্যই স্বচ্ছতা থাকতে হবে, থাকতে হবে জবাবদিহিতাও। দেশে তো অবশ্যই সুশাসন প্রতিষ্ঠা করতেই হবে। এর প্রধান কারণ, আমাদের অর্থনীতিকে শক্ত ভিত্তির উপর দাঁড়াতে হবে। সুশাসন প্রতিষ্ঠা না হলে দেশী-বিদেশী বিনিয়োগ বাড়বেনা, কর্মসংস্থান হবেনা। বিদেশী বিনিয়োগকারীরা বিনিয়োগের পরিবেশ নিশ্চিত হলেই কেবলমাত্র এগিয়ে আসবেন, নতুবা কেন তাঁরা ঝুঁকিপূর্ন বিনিয়োগে এদেশে আসবেন ? আরো আছে দেশীয় অর্থ খুবই অল্প লোকের হাতে সঞ্চিত হয়ে যাওয়ার বিষয়টা, যা পুর্বে বলা হয়েছে।

রাজনৈতিক একটা তৃতীয় ধারার অপেক্ষায় এবং চেষ্টায় আছেন অনেকে। কিন্তু পারছেননা তাঁরা। কারণ স্বাধীনতার পর বিয়াল্লিশ বছর ধরে ক্ষমতায় যাওয়ার রাজনীতিকে দেখে ও এর প্রত্যক্ষ শিকার হয়ে হয়ে মানুষ এতো ত্যক্ত-বিরক্ত হয়ে উঠেছে যে, সে-উদ্যোগ দেশের সচেতন অংশ আসলেই অপছন্দ করে।  মনে করে যে, এটা ক্ষমতার হালুয়া-রুটি লাভের কারো নতুন উদ্যোগ।

এজন্যই আমার মনে হয়, স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা এবং সুশাসন প্রতিষ্ঠার জন্য সকল সময় সরকারকে চাপে রাখা প্রয়োজন। দেশের ক্ষমতায় যারাই থাকুন, যদি তাঁরা সুশাসন প্রতিষ্ঠা করে দেশ পরিচালনা করে তো ভাল। যদি তারা তা না করে, তবে সরকারকে সবসময় চাপে রাখার মতো অত্যন্ত শক্তিশালী একটি অরাজনৈতিক সংগঠন প্রতিষ্ঠা হওয়া দেশে অত্যন্ত জরুরী হয়ে পড়েছে। দেশের স্বনামধন্য নিরপেক্ষ ব্যক্তিগন সমন্বয়ে গঠিত হতে হবে এই দল। দেশের ক্ষমতায় যাওয়ার কোন উদ্যোগ এই দল কখনই গ্রহণ করবেনা এবং দুর্নীতি অথবা অন্যকোন কারনের সন্দেহভাজন কোন ব্যক্তি এই সংগঠনের সদস্য হতে পারবেনা।

আমাদের একটি বিশাল ছাত্র-যুবসমাজ আছে, যারা ছাত্রলীগ, যুবলীগ, ছাত্রদল, যুবদল কিছুই করেনা। অধিকাংশই এরা দরিদ্র, মধ্য ও নিম্নমধ্যবিত্ত ঘরের সন্তান। নিজ পরিবারের দু:খ-দুর্দ্দশা-হতাশা-কান্না অতি কাছ থেকে দেখেছে এরা, পারিপার্শিকতায় আবার এরা দেখেছে কিভাবে অল্পসময়ের মধ্যে একশ্রেণীর মানুষ ফুলে-ফেঁপে উঠেছে এবং উঠছে প্রতিনিয়ত:। সরকারী যেকোন চাকরীতে নিয়োগের ক্ষেত্রটা তারা দেখে, যেখানে তারা দেখে ঘুষ এবং দলীয় ব্যক্তি ছাড়া কেউ চাকরী পায়না ।

সকলেই এরা চায় সুশাসন, চায় সুষ্ঠু, ন্যায়ানূগভাবে চলুক দেশ। ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়াতেও দেখা যায় বিস্তর তরুন সংবাদকর্মী রয়েছেন, সংবাদের সাথে ছুটতে ছুটতে যারা দেখতে পান যে, না! এভাবে আর চলতে পারেনা রাষ্ট্র-সমাজ। স্বাধীনতার বিয়াল্লিশ বছর পরও এরকম অশুদ্ধ রাজনীতি দেশে চলতে পারেনা। স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক শিক্ষক আছেন, এরকম একইভাবে ভাবেন তাঁরাও । কিন্তু সংগঠিত কোন প্ল্যাটফর্ম না থাকায় তারা এগিয়ে আসতে পারছেননা। সরকারী-বেসরকারী সব সার্ভিসেই কিছু কর্মকর্তা-কর্মচারী আছেন, যাঁরা চাননা দেশ যেভাবে চলছে সেভাবেই চলুক। এককভাবে কিছু করা যায়না বলে তারাও কিছু করতে পারছেননা আসলে। তাই চাকরী যাওয়ার ভয়ে মুখ বুঁজে সবকিছু মেনে নিয়ে চাকরী বাঁচিয়ে রাখছেন তারা। দেশে প্রেশারগ্র“প বা অন্যকোন নামে এধরনের কোন সংগঠনের উদ্ভব হলে উক্ত সংগঠন যদি তাদের মধ্যে আস্থার জায়গা তৈরী করতে পারে, তবে গোপনে হলেও তাঁরা অবশ্যই সংশ্লিষ্ট হবেন তাতে, না হয়ে তাঁরা আসলে পারবেননা। একইভাবে সকল শ্রেনী-পেশার মানুষের, এমনকি রাজনীতিবিদগনের মধ্যেও অনেকের এবং যেকোন দলীয় প্রভাবের আওতায় রয়েছেন এমন ব্যক্তিদেরও সমর্থন পাওয়া যাবে বলেও আমি বিশ্বাস করি।

অস্বচ্ছতা, দু:শাসনের যে কোন ঘটনা ঘটার ক্ষেত্রে এই সংগঠন শুধু গর্জেই উঠবেনা, প্রতিকার করেই তবে ছাড়বে। যতক্ষন এই ঘটনার প্রতিকার না হবে, ততক্ষন পর্যন্ত থামবেনা এই দল। প্রতিবাদ এবং শেষ পর্যন্ত প্রতিকার করেই তবে  ছাড়বে। অন্যায়কাজ, দু:শাসনের পরিমানের উপর নির্ভর  করে ঠিক হবে আন্দোলনের ধরন। কোন পথ অবলম্বন করে এই আন্দোলন, সংগ্রাম পরিচালিত হবে, তা সংগঠন বসে ঠিক করবে। তবে এগুলির সফলতা নির্ভর করবে প্রথমত: জনগনের কাছে দলটির নেতা-কর্মীদের ব্যক্তিগত গ্রহণযোগ্যতার উপর এবং দ্বিতীয়ত: আন্দোলন-সংগ্রামের তীব্রতার উপর।

সংগঠনটির কেন্দ্রে বিভিন্ন বিভাগভিত্তিক কমিটি থাকবে, যেমন ইঞ্জিনিয়ারিং কমিটি, আইন-শৃংখলা সংক্রান্ত কমিটি, নিয়োগ সংক্রান্ত কমিটি ইত্যাদি। কমিটিগুলির কাজ হবে সেক্টরভিত্তিক যে দুর্নীতির, যে দুঃশাসনিক কাজগুলি দেশে ঘটবে, সেগুলির পুংখানুপুংখ তদন্ত করা এবং কি করতে হবে, সে সুপারিশ প্রদান করা। টেন্ডারবাজির একটা উদাহরন দেখতে পারি আমরা। যে স্থানে টেন্ডারবাজি সংগঠিত হবে, সেখানকার জেলা কমিটি তদন্ত করে তদন্ত-প্রতিবেদন কেন্দ্রে পাঠাবে। কেন্দ্র মনে করলে কেন্দ্রের ইঞ্জিনিয়ারিং কমিটি দিয়ে পূনঃরায় তদন্ত করাবে এবং তদন্ত-প্রতিবেদন প্রস্তুত করবে। সংগঠন তখন সেগুলি মানতে সরকারকে বাধ্য করবে বিশাল এই তরুন সমাজের প্রত্যক্ষ সহযোগিতায়। যেকোন উপায়েই হোক না কেন সরকারকে বাধ্য করতেই হবে। তবে উপায় আর যাই হোক, কোনমতেই সহিংস হবেনা কখনও। শক্তির সন্মিলন যদি ব্যপক হয়, তবে অহিংস পথেই সরকারকে বাধ্য করা যাবে, এমনকি বাধ্য করা কোন বিষয়ই হবেনা।

বর্তমানে জাতীয় সংসদ নির্বাচন-সংক্রান্ত বিষয়ে সরকারকে বাধ্য করা যাচ্ছেনা বলে অনেকে ভাবতে পারেন প্রেশারগ্রুপ দিয়ে হবেনা, মানে সরকারকে বাধ্য করা যাবেনা। এসম্পর্কে বলতে চাই, আওয়ামী লীগ-বিএনপি-জামাত আসলে জনবিচ্ছিন্ন রাজনৈতিক দল এইঅর্থে যে, জনগনের আকাঙ্ক্ষা কি, কি চায় গনমানুষ, তা তারা বুঝেও বুঝেনা ইচ্ছা করেই। কারন জনগনের চাহিদা বুঝলে যে তাদের অবৈধ চাহিদা পুরন হবেনা। জনগনের জন্য ভাবেনা যে দল, কেবল আখের গোছাতে ব্যস্ত থাকে, তার পেছনে কেন থাকবে মানুষ?এইজন্যই এদেশে কোন পার্টির আন্দোলন দানা বেধে ওঠেনা।

প্রশ্ন উঠবে, তবে ভোট পায় কেন দলগুলি? আসলে ভোটের একটা উত্তাপ আছে এবং ভোট দেয়ার বিভিন্ন কারনও আছে। সেগুলির মধ্যে ভোট প্রয়োগের অধিকারবোধ, গনতান্ত্রিক ধারা অব্যহত রাখার মানসিকতা, উতসবমূখর পরিবেশের উপস্থিতি, এগুলি অন্যতম। তবে মানুষ কিন্তু তার আকাঙ্ক্ষা, তার চাহিদা, সুশাসনের বাস্তবায়ন ঘটবে মনে করে ভোট দেয়না।

সবশেষে বলি প্রিয় পাঠক, আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি কেবলমাত্র এভাবেই দেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠিত হতে পারে এবং আমি আরো মনে করি সুশাসন প্রতিষ্ঠার আর কোন পথ নাই, নাই এবং অবশ্যই নাই ।

এই আন্দোলন শুরু এবং এগিয়ে নিতে পারে , এরকম দশ/বারজন প্রথিতযশা ব্যক্তির নাম উল্লেখ করা যেতে পারে । (নামগুলির ক্রম গুরুত্বপুর্নতার ক্রমানুসারে নয়)

১। Jonab Motiur Rahman, সম্পাদক, প্রথম আলো।

২। Professor Abdullah Abu Saeeyid, বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্র।

৩। Dr. Hossain Zillur Rahman, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা।

৪। Dr. Iftekharuzzaman, নির্বাহী পরিচালক, টিআইবি।

৫। Dr, Zafor Iqbal, অধ্যাপক, শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়, সিলেট।

৬। Mr. Rubayet Ferdous, অধ্যাপক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

৭। Mr. Nurul Kabir, সম্পাদক, নিউ এজ।

৮। Dr. Zafrullah, ট্রাস্টি, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র।

৯। Mr. Anisuzzaman, এমিরেটাস প্রফেসার।

১০। Dr. Muhammod Yunus, নোবেল ল’রিয়েট।

১১। Advocate Sultana Kamal.

১২। Mr. Monjurul Ahsan Bulbul, সাংবাদিক নেতা।

 

আমাদের সকলেরই সুশাসন প্রতিষ্ঠার জন্য এভাবে চিন্তা-ভাবনা করা প্রয়োজন বলে একান্তভাবেই আমি মনে করি ।

 

২৩৮জন ২৩৮জন
0 Shares

৭টি মন্তব্য

  • আজিম

    সবশেষে বলি প্রিয় পাঠক, আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি কেবলমাত্র এভাবেই দেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠিত হতে পারে এবং আমি আরো মনে করি সুশাসন প্রতিষ্ঠার আর কোন পথ নাই, নাই এবং অবশ্যই নাই ।

    এতো কনফিডেন্টলি কথাটা বললেন কিভাবে ?

  • প্রহেলিকা

    ধন্যবাদ আপনাকে শুদ্ধতা আসার পথগুলো তুলে ধরার জন্য। মনোযোগ দিয়েই পড়লাম খুব লাগলো সহমত পোষণ করলাম। আমরা এখনও তরুণ আর আমি মনে করি দেশে সু-শাসন প্রতিষ্ঠা করার ক্ষেত্রেও আমাদেরও একটা দায়িত্ব রয়েছে। অনেক লিখেছেন আপনি আমার খুব ভাল লেগেছে। ভাল লাগার পর আমি আপনার প্রোফাইল থেকে আসছি সাথে জানতে পারলাম আপনার বয়স পঞ্চাশ বছর। সালাম জানবেন শ্রদ্ধেয় আপনাকে পেয়ে অনেক ভালো হয়েছে। সস্রদ্ধে একটা প্রশ্ন করতে চাই আপনাকে আমি যে আপনি দশ/বারো জনের নাম উল্লেখ করে গেলেন লিখার শেষে এসে সেই ব্যাক্তিগলোকে আমরা কখনো কখনো টেলিভিশনের পর্দায় দেখেছি। আপনার কাছে আমার প্রশ্ন হলো::

    ১. আপনার একটি লাইন ***আমি আরো মনে করি সুশাসন প্রতিষ্ঠার আর কোন পথ নাই, নাই এবং অবশ্যই নাই ।***
    কেন আপনি তা মনে করেন ???
    ২.আপনি যদি মনেই করে থাকেন আর সু-শাসন প্রতিষ্ঠার কোনো পথ নাই তাহলে আপনি উল্লেখ করে গেলেন কিভাবে??
    ৩. আপনি কিভাবে নিশ্চিত হলেন যে উনারা এই আন্দোলন শুরু এবং আন্দোলনকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে ????
    ৪. তারা যদি পারেনি তাহলে আজ পর্যন্ত কোনো আন্দোলনের ডাক পেলাম না কেন?

    উপরের এই চারটি প্রশ্ন আমার মনে জাগলো যদি উত্তর পাই তাহলে আমি কিছু জানতে পারবো।

    ভাল থাকুন সবসময় ধন্যবাদ শ্রদ্ধেয় আপনাকে।

  • আজিজুল ইসলাম

    আজিম এবং প্রহেলিকা, দু’জনকেই প্রশ্ন করার জন্য ধন্যবাদ । জনাব প্রহেলিকা, অতো সশ্রদ্ধভাবে প্রশ্ন করার দরকার নেই । আমি এতোদিন চুপ থেকে অপরাধ করেছি । এ-অর্থে নিরপরাধী নই আমি । যাক, আজিমের এবং প্রহেলিকার ১নং প্রশ্নের প্রেক্ষিতে বলি, আমি মনে করি তারুন্যের আওয়াজ ছাড়া দেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠা হবেনা । তবে শুধু তরুন দিয়ে হবেনা । আমাদের আরো অনেক ক্ষেত্র আছে যেগুলিও দু:শাসনের বাইরের বিষয় নয় । যেমন, পুলিশে এক শ্রেনীর কর্মকর্তা-কর্মচারী আছেন, যারা বতর্মানের থানাগুলি ক্যাডার কর্তৃক ঘেরাও-হয়ে-থাকার চরম বিরোধী । তারা চান থানা যাতে পুলিশ-আইন মোতাবেক চলে । প্রশাসনেও কিছু কর্মকর্তা-কর্মচারী রয়েছেন, যারা প্রশাসনকে বতর্মানে যেভাবে দলীয়করন করে রাখা হয়েছে, তার বিরোধী । প্রমোশন, পোষ্টিং এসমস্ত বিষয়গুলি নিয়ে তাদের মধ্যে অসন্তোষ ক্রমেই বেড়ে চলেছে । কোন সার্ভিসে তরুনরা নাই ?

    আমার মনে হয়, তরুনরা যুদ্ধাপরাধীদের বিচার নিয়ে শাহবাগ চত্ত্বরে যেভাবে যুদ্ধ করেছে, সুশাসনের জন্যও যদি সেভাবে যুদ্ধে নামে, তবে সেই যুদ্ধে উল্লেখিত শ্রেনীর লোকজনসহ সারা দেশের সকল শ্রেনী-পেশার মানুষের সন্মিলন ঘটবে সারাদেশব্যপী । তখনই কিছু হবে দেশে, না হলেও বিরাট একটা প্রভাব আসবে অথবা থাকবে সেই আন্দোলনের ।

    এজন্যই আমি দৃঢ়ভাবে মনে করি যে এছাড়া আর কোন পথ নাই, নাই এবং নাই ।

    আপনার ৩ নং প্রশ্নের প্রেক্ষিতে বলা যায়, আমি কিন্তু নিশ্চিত হয়ে কথাটা বলেছি, তা নয় । আমি বলেছি, ইনারা শুরু করতে পারেন । কারন, আমাদের দেশের সার্বিক চিত্রে দেখা যায় যে, ইনারা স্বচ্ছ চরিত্রের মানুষ এবং দেশ-সমাজের বিষয়ে ইনাদের নিজ নিজ ক্ষেত্রে অবদান আছে । তরুনদের ইনারা সুশাসনের স্বপ্ন অথবা পথ কোনটাই দেখাননি, তবে ভালোর সাথে থাকতে উদ্বুদ্ধ করেছেন সকল সময় । ইনাদের চিন্তায় এখনকার রাজনৈতিক চক্রাকারটাই হয়তো ঘুরছে, হয়তো এর বাইরে কিছু করে দেশ-সমাজ-রাজনীতি শুদ্ধ করার কথা তাঁদের চিন্তাতেই নেই । হয়তো তারা একাত্তরের মতো আরেকটা যুদ্ধ চাননা । হয়তো তাঁরা মনে করছেন, মানুষ যখন ঞ্জানে-বিঞ্জানে সমৃদ্ধ হবে, তখনই এসমস্ত পরিবর্তন আপনাআপনি এসে যাবে ।
    তাঁরা যা-ই ভাবুক না কেন, আমি উল্লেখিত প্রবন্ধটির মতো করেই ভাবি । আর তাঁরা যদি ডাক না-ই দেন, তবে কি এসব হবেনা ? অবশ্যই না, কোনকিছুই করো জন্য আটকে থাকেনা বলে আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি । আপনারা ডাক চাইতে যখন ইচ্ছুক, তখন তা হবেই । জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর মতো করেই এই শাহবাগেই কেউ কোন একদিন আপনাদের প্রত্যাশিত এই ডাক দিয়ে যাবেন, হয়তো আপনাদেরই মধ্যে কেউ । বুলেটে ঝাঁঝরা-হয়ে-যাওয়া বুক নিয়েও যে ডাক স্তব্ধ হবেনা ।

  • প্রহেলিকা

    শ্রদ্ধেয় আজিজুল ইসলাম, সালাম জানবেন আমি আপনার লিখাটির সাথে কোনো দ্বিমত পোষণ করছিনা। আমার কথা আসলে আপনি যাদের নামগুলো উল্লেখ করে গেলেন তাদের সম্পর্কে আপনার কি এমন ধারণা রয়েছে যে আপনি বিশ্বাস করলেন ইনারা শুরু করতে পারেন??? আসলে পুরো লিখাটিতে আপনার সাথে আমি একমত শুধু ইনাদের নাম উল্লেখ করা ছাড়া কারণ আমি নির্দিষ্ট করে আজও কারও নাম উল্লেখ করতে পারিনা। হয়তো দেখা যায় ভাল মানুষের মুখোশের আড়ালে তারা অনেকেই লুকিয়ে থাকেন। আপনি এখানে ১২জনের নাম উল্লেখ করেছেন প্রথম ব্যক্তি মতিউর রহমান (সম্পাদক, প্রথম আলো ) উনার সম্পর্কে একটা সংবাদ কিন্তু আমি পড়েছিলাম আপনাকে তার লিঙ্ক http://www.kalerkantho.com/print_edition/index.php?view=details&type=gold&data=Tourist&pub_no=498&cat_id=1&menu_id=13&news_type_id=1&index=3&archiev=yes&arch_date=22-04-2011

    দিলাম সময় করে দেখে নিবেন। তো এই ব্যক্তিটি অগণতান্ত্রিক শক্তির পক্ষে যদি কথা বলেন তাহলে তাকে দিয়ে কি সম্ভব শুদ্ধতা আনয়নের আন্দোলন শুরু করা??

    আমাদের দেশের প্রকাশ্য ব্যক্তিদের মাঝে আমি কেন জানি কোনো ভরসা খুঁজে পাই না অবশ্য আমার ধারণা ভুলও হতে পারে। তবে আপনাকে সাধুবাদ জানাই এই বিষয়ে আপনার ভাবনার গভীরতায় আমি উচ্ছাসিত। ভাল থাকুন শ্রদ্ধেয়।

  • আজিজুল ইসলাম

    জনাব প্রহেলিকা এবং জনাব মশাই
    ‘সুশাসনের সন্ধানে’ লিখায় জনাব মশাইয়ের মন্তব্য থেকে এখানে আমার আসা । আমি জানতামনা প্রহেলিকা যে, আপনি এখানে মন্তব্য করে আছেন । আমি যে ১২ জনের নাম এখানে উল্লেখ করেছি, সেখানে বলেছি, ’নামগুলির ক্রম গুরুত্বপূর্নতার ক্রমানুসারে নয়’ অর্থাত এদের মধ্যে মতিউর রহমানই প্রধান ব্যক্তি অবশ্যই নয় । আপনি যে লিংক-টি দিয়েছেন, সেটা পড়েছি । আগেও দেখেছিলাম, কালের কন্ঠের সাথে প্রথম আলোর বিভিন্ন বিষয়ে মতানৈক্য এবং বিবাদ । প্রেস কাউন্সিলে অভিযোগও উঠেছিল বিভিন্ন সময়ে । আমি জনাব মতিউর রহমানকে সমালোচনার উদ্ধ্বের কোন মানুষ অবশ্যই মনে করিনা । বরং একগুঁয়েমী-সংক্রান্ত তার অনেক স্বেচ্ছাচারিতা আছে । এই পত্রিকার অনেকের সাথে আমার দীর্ঘদিনের বন্ধুত্বের কারনে মতিউর রহমানকে ব্যক্তিগতভাবে না হলেও চিনি ।
    অনেক সমালোচনা থাকা সত্বেও মতিউর রহমান বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগে, বিভিন্ন সমাজকল্যানমূলক কাজে নিজেকে নিয়োজিত রেখেছেন, অদম্য মেধাবীদের সাহায্য-সহযোগিতা অব্যহত রেখেছেন । তার গুনগান করছিনা আমি, তার নাম উল্লেখ করে হয়তো আমি ভুলও করতে পারি । আবার জনাব আনু মুহাম্মাদ এবং জনাব ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ, এঁদের নাম না দেওয়াতে ভুলও করেছি ।
    আপনার শেষ লাইনের আগের লাইনের মন্তব্যের সাথে আমিও একমত যে, প্রকাশ্য কোন ব্যক্তির উপর ভরসা আমিও পাইনা ।
    তবে আমি চেষ্টা করে যেতে চাই । কোন কিছু না করে বসে থাকতে চাইনা আমি এবং পারিওনা । কারন একটা প্রশ্নই চিন্তায় ঘুরে সবসময় যে, দেশ কি তবে এভাবেই চলবে ?
    আপনাদের মন্তব্যগুলি পড়ে মনে আশা জাগে, হ্যাঁ, এদেশে হবে কিছু । আপনাদের মতো মানুষ যে দেশে আছে, সেদেশের কিছু না হয়ে পারেনা । ধন্যবাদ ।

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য