সোনেলা দিগন্তে জলসিড়ির ধারে

যা দেওয়া সহজ, নেওয়া কঠিন

হালিম নজরুল ১৬ জুন ২০২০, মঙ্গলবার, ১২:৫৬:৩৩পূর্বাহ্ন একান্ত অনুভূতি ১৮ মন্তব্য

“মানুষ কখনো ভুল করেনা।”

না, এটি কোন বিখ্যাত মনীষীর কথা নয়। আমি নিজেই মাঝেমধ্যে কথাটা বলি। জানি অনেকেই একমত হবেন না। ঐক্যমতের বাধ্যবাধকতাও নেই। শুধুমাত্র দৃষ্টিভঙ্গির পার্থক্যই অনেক ব্যবধান গড়ে দিতে পারে। আমার মতে একজন পাগলও যখন যে কাজটি করেন, সেটি সঠিক মনে করেই করেন। কিন্তু ফলাফলের বৈপরীত্য প্রমাণ করে সিদ্ধান্তটি ভুল ছিল। তেমনি পৃথিবীতে যত দ্বন্দ্ব-সংঘাত সংঘটিত হয়, তার বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যায় ভুল বুঝাবুঝি থেকেই হয়। এক্ষেত্রে কারো আচরণ বা কথা পক্ষে গেলেই বন্ধু, বৈপরীত্যে শত্রু। বিষয়টি চিরন্তন। অতি প্রাণের প্রিয় মানুষটিও শত্রুতে পরিণত হতে খুব বেশী সময়ের প্রয়োজন হয় না, যদি সামান্য এক মুহূর্তের কথা বা ব্যবহার হৃদয়ে আঘাত করে। সুতরাং সেই বিবেচনায় এই বিষয়গুলোতে যে যত বেশী ভুল বুঝাবুঝি থেকে দূরে থাকতে পারে, সে তত বেশী সংঘাত এড়িয়ে চলতে পারে। স্যাক্রিফাইজ ইজ দ্যা মোস্ট ভাইটাল ফ্যাক্টর, সবাগ্রে অগ্রগণ্য। মনে রাখা উচিৎ আমার সর্বোত্তম বন্ধুটি কেন এবং কি অন্যায় করছে, তার ভুলটি শোধনযোগ্য কি না। তা না করে পরম প্রিয় মানুষটিকে শত্রু তালিকায় ফেলে দেওয়াও চরম অন্যায়। ইদানিং আমাদের সমাজে শত্রুপক্ষে ঠেলে দেবার প্রবণতা কম নয়। উদাহরণ হিসাবে বলা যায়- সরকারের ভাল কাজের প্রসংশা করলে দালাল আর খারাপ কাজের সমালোচনা করলে রাষ্ট্রদ্রোহ। বিরোধীদলের ক্ষেত্রেও একই নীতি। অর্থাৎ হিসাব দাঁড়াল যে বোবার কোন শত্রু নেই! কিন্তু একজন সুস্থ বিবেকসম্পন্ন মানুষের পক্ষে কি নীরব থাকা সমীচীন? নাকি সম্ভব? হয়না। আমিও পারিনা। কথা বলে ফেলি। তাই একদল ফেলে দেয় অন্য দলে। কারো শত্রু, কারো বন্ধু। ভাল লাগেনা। খুব বোবা হতে ইচ্ছে করে। অনেকটা বন্ধু হারানোর কষ্ট সহ্য করবার ভয়ে বন্ধুত্ব তৈরী করাটাই বন্ধ করার অপপ্রয়াস। কিন্তু কি করবো বলুন, সেই জন্ম থেকে যখনই যেখানেই গিয়েছি, মানুষের অকৃত্রিম ভালবাসা পেয়েছি। প্রতিটি মানুষ আমাকে অসম্ভব ভালবেসেছে। এই ভালবাসায় কোন খাদ ছিল না, কার্পণ্য ছিল না। সুতরাং এই ভালবাসাকে উপেক্ষা করি কি করে ! ঋণ শোধেরও তো একটা দায় থাকে। তাই বিধাতার তৈরী মায়ার বাঁধনে আটকে যাই। সুতরাং বন্ধু বা শত্রু তৈরী হয়। আপনিও আমার মত মহাবিপদে আছেন? তাহলে উপায়? পরিত্রানের পথ? ভয় নেই, এ সবকিছুই জীবনের অংশ। অপরের প্রতি ভালবাসা জাগিয়ে তুলুন। অন্যের মতামতকে শ্রদ্ধা করুন। সময়ের মূল্য দিন। ক্ষমা করতে শিখুন। মানুষকে শুধুমাত্র মানুষ হিসাবেই মূল্যায়ন করতে শিখুন। দেখবেন অন্তরায় পেরিয়ে পৌঁছে গেছেন দূর- বহুদূর।

—————–0 0—————-

২৬১জন ১৬৩জন
0 Shares

১৮টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য