সোনেলা দিগন্তে জলসিড়ির ধারে

মিষ্টি প্রেমের গল্প- বাধঁন

সাবিনা ইয়াসমিন ২৫ ডিসেম্বর ২০১৯, বুধবার, ১২:০১:২১পূর্বাহ্ন শুভেচ্ছা ৩৬ মন্তব্য

বাস স্ট্যান্ডে দাঁড়িয়ে আছে মেয়েটি। ডাইনে বায়ে, এদিকে ওদিকে খুঁজছে একজনকে। আবার অত্যাধিক মানষিক অস্থিরতায় বিন্দু বিন্দু ঘাম জমে উঠেছে কপালে। যত না গরম, তারও বেশি টেনশনে। বেলা প্রায় এগারোটা বাজে। এখনই খুব গরম আর রোঁদ। অন্য সময় হলে আজ সে কিছুতেই বাইরে বের হতো না।

অনেকক্ষন হয়ে গেছে, যার জন্যে অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে থাকা, তার কোনো খোঁজ-খবর নেই। কি করবে? চলে যাবে? নাকি আরেকটু অপেক্ষা করবে, মনস্থির করতে পারছে না। পরিচয়, কথাবার্তা এতদিন অনলাইনে হয়েছে। বন্ধুত্বটা বেশ পাকাপোক্তই বলা যায়। শুধু সরাসরি দেখা হওয়ার ব্যাপারটা বাকি ছিলো।

আজই প্রথম দেখা হবে তার সাথে, দেখা না করেই ফিরে যাবে? যদি আর কোনোদিন দেখা না হয়? যদি কোনো কারনে যোগাযোগ করা না যায়, তাহলে? এতকিছু ভাবতে ভাবতে সে ভুলেই গিয়েছিলো তার কাছে একটা মোবাইল ফোন আছে! আর তাতে কাঙ্ক্ষিত মানুষটার ফোন নাম্বারও সেভ করা আছে!

তুই মরবি, নিজেকে নিজেই রেগে একটা বকা দিলো মেয়েটি। ব্যাগ থেকে মোবাইলটা বের করে নাম্বারটা আনলো স্ক্রিনে। কিন্তু কল করতে পারছে না। হাত কাঁপছে। আচ্ছা, সে কি এসেছে? আসছে? যদি বলে স্যরি আজ আসতে পারছি না। দেখাটা কাল করি, তাহলে কি উত্তর দিবে ও?

উফফফ আবার! ধুর, তুই কিছুই পারবিনা। মনে একরত্তি জোর নেই, আবার এসেছিস অচেনা একজনের সাথে দেখা করতে। তুই একটা গবেট। এবার তার মনটা তার উপর যেনো বেশিই ক্ষেপে গেলো।

– হ্যালো। আমি এসেছি অনেকক্ষন হলো। আপনি কোথায়? আসতে কি দেরি হবে?

= আমিতো প্রায় একঘন্টা হলো এসে দাঁড়িয়ে আছি তোমার জন্যে। তুমি কতদূর এসেছো?

– আমি বিশ মিনিট হলো এসেছি। ওভার ব্রিজের নীচে আছি।

= মানে! আমিওতো ওভার ব্রিজের নীচে!!

– বুঝলাম না। ওভার ব্রিজের চারটা সাইড। কে কোনটার নীচে আছি?

= তুমি যেখানে আছো, সেখানেই থাকো। আমি তোমাকে খুঁজে নিচ্ছি।

– আচ্ছা, আমার পরনে আছে…

= বলতে হবে না। আমার চোখ বেধে রাখলেও আমি তোমায় চিনবো। তোমার নিঃশ্বাসের শব্দটাও আমার পরিচিত।

আশ্চর্য ! আমাকে সে কখনো দেখেনি। আমিও না। তাহলে বলে না দিলে সে আমাকে চিনবে কেমন করে! আসলেই কি সে আমায় চিনবে!!

কিছুক্ষণ পরে..

রেস্টুরেন্টে পাশাপাশি বসেছে দুজনে। সামনে অনেক খাবার-দাবার। মেয়েটি খেতে পছন্দ করে, আগেই জেনেছিলো শ্রাবণ। তাই অনেক কিছু অর্ডার করেছে। খেতে খেতে গল্প করবে এমনটাই তার ইচ্ছে। কিন্তু মেয়েটির খাওয়ার প্রতি মনোযোগ নেই। সে ব্যাস্ত সুঁই-সুতো নিয়ে। এই নিয়ে ছয়বার ট্রাই করেছে, কিন্তু সুঁইয়ে সুতো ভরতে পারছে না। হাত কাঁপছে, অথচ সেলাই মেশিনে না তাকিয়েই সে অনবরত এসব কাজ করে ফেলে!

– আপনি একটু অন্যদিকে তাকাবেন? আমি পারছি না।
= আচ্ছা।

ব্যাস, হয়ে গেছে। বোতাম ছিড়েছে একটা। লুজ হয়ে আছে আরো দুটোর। সবই বুক বরাবর! আল্লাহ ভরসা, মনে মনে পাঠ করে শুরু করলো শার্টে বোতাম লাগানো। সুন্দর করে লাগাতে পেরে সস্থির নিঃশ্বাস ফেললো। এবার নিঃশ্চিন্তে খাওয়া শুরু করা যায়।

রেস্টুরেন্ট টা বেশ বড়ো। লাঞ্চ আওয়ার, তাই কাস্টমার মন্দ না। দেয়ালে বড় একটা টিভি আটকানো। তাতে দুপুরের খবর পরিবেশন করা হচ্ছে। কোথায় যেনো আগুন লেগেছে, সেই খবরটাই বারবার দেখাচ্ছে।

– ধারা, কিছু বলবে না?

= কি বলবো কিছু বুঝতে পারছি না। সব স্বপ্নের মতো লাগছে।

– তাই? এসো তোমার স্বপ্ন বাড়িয়ে দেই,….

= আপনি! এত মানুষের সামনে! লজ্জা শরম নেই?

– একটু আগেও ছিলো। তুমি যখন আমার শার্টের বোতাম লাগাচ্ছিলে, তখনই সব পালিয়ে গেছে। আমি মনের গহীনে তোমার চুলের সুরভী আগেই পেয়েছি। আজ বাস্তবে তা আরো তীব্রভাবে পেলাম। এই হাত দুটো আমি ধরেছি। ফেরত নিও না।

বাইরের রোঁদ ততোক্ষনে আরও প্রকট। তাপের দহনে রাজপথের পিচ-পাথর অঙ্গার হয়ে আছে। তারা হাটছে পাশাপাশি। দুজনের মুখে মৃদু হাসি। এ হাসি প্রাপ্তির। পূর্ণতার। হাত আর ফেরত নেয়া হয়নি।

আশেপাশে চলাচল করা মানুষ গুলো তাদের দিকে কেউ তাকাচ্ছে, কেউ চলে যাচ্ছে পাশ ঘেষে। খুব অল্প, কাছে আসা কিছু মানুষের নজরে পরেছিলো, ছেলেটির গায়ে খুব দামী একটা শার্ট। যার একটা বোতাম উল্টো করে লাগানো হয়েছে।…

***********************************

– আপনি লিখছেন না কেন?

= কি লিখবো ভেবে পাইনা।

– গল্প লিখুন।

= গল্প! আমিতো বানিয়ে বানিয়ে গল্প লিখতে পারিনা। আমার কল্পনা শক্তি খুবই দুর্বল।

– আপনি চেষ্টা করুন। আমার বিশ্বাস আপনি পারবেন।

এক বছর আগে কথা গুলো বলেছিলেন আমাদের ব্লগের প্রতিষ্ঠাতা, সিনিয়র ব্লগার শ্রদ্ধেয় জিসান শা ইকরাম সাহেব। তারপর থেকে আজ পর্যন্ত চেষ্টা করেছি, করছি। কতটুকু পেরেছি জানিনা, তবে চেষ্টা অব্যাহত থাকবে। আজ তার জন্মদিনে আমার গল্পটি তাকে উৎসর্গ করলাম।

শুভ জন্মদিন প্রিয়মুখ জিসান শা ইকরাম
জীবনের প্রতিদিন, প্রতিক্ষণ, প্রতিটি ক্ষেত্রে সফলতা আসুক। ভালো থাকুন, সুস্থ সুন্দর থাকুন। আনন্দে থাকুন। দোয়া ও শুভ কামনা নিরন্তর 🌹🌹🌹🌹🌹

৭৯৩জন ৫৬৬জন
86 Shares

৩৬টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য