সোনেলা দিগন্তে জলসিড়ির ধারে

প্রমথেশ বড়ুয়া যে কত বড় মাপের চলচ্চিত্রকার, অভিনেতা, গায়ক তা আমরা কজনই বা জানি? আমি নিজেই তো জানতাম না যে তিনি ভারতের চলচিত্রে প্রথম কৃত্রিম আলোর ব্যবহার করেছেন ইউরোপে সিনেমা সম্পর্কে শিক্ষা নিয়ে। বাংলা চলচিত্রে তিনি দেবদাস চরিত্রে অভিনয় করেন। পরবর্তীতে ব্যক্তিগত জীবনেও তিনি সত্যিকার দেবদাস হয়ে মৃত্যু বরণ করেন। একটি সময়ে নায়ক উত্তমকুমারের কাছে প্রস্তাব যায় দেবদাস সিনেমায় অভিনয়ের জন্য। উত্তম কুমার সাফ জানিয়ে দিয়েছিলেন যে, প্রমথেশ বড়ুয়াই সত্যিকারের দেবদাস, অভিনয়ের প্রস্তাব ফিরিয়ে দিলেন উত্তমকুমার। পোষ্টের প্রথমে লিংকে ক্লিক করে প্রমথেশ বড়ুয়া সম্পর্কে কিছুটা ধারনা নিতে পারেন।

এত কিছু থাকতে ভারতের সিনেমা আর প্রমথেশ বড়ুয়া কেন? ব্লগার ছাইরাছ হেলাল এবং নাজমুল আহসান এর দুটো মন্তব্য পড়ার পর মাথায় প্রশ্ন আসলো
“বিশ্বের সবচেয়ে বড় ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির দেশ ভারত, যেখানে প্রতিবছর বিশ্বের সবচেয়ে বেশী সিনেমা তৈরি হয়, সেখানের সিনেমায় গর্ব করার মত কিছু নেই? ” খুঁজতে খুঁজতে প্রমথেশ বড়ুয়া চলে এলো। পড়াশুনা চলছে এখনো।

প্রসন্ন মনে প্রফুল্ল চিত্তে প্রশান্ত মহাসাগরে তিমি মাছের ভিডিও দেখছিলাম গত রাতে।  হঠাৎ বিদ্যুৎ চলে গেলো বেরসিকের মত। চার্জার না থাকলে হয়ত প্রদীপ জ্বালাবার চিন্তা এসে যেত।অন্ধকারে কি আর করা? হাতের রিস্টের ব্যাথার কারণে মোবাইলে নেটে আসতে ইচ্ছে করছিলো না।

অন্ধকারে থাকলে আমার চিন্তা চলে স্যাটেলাইটের চেয়েও দ্রুত। চিন্তাযট লেগে গেছে আমার ব্রেইনে। ঢাকার রাজপথে যানযট এর চেয়েও মারাত্মক এই চিন্তাযট।

প্রথম প্রেমে পড়া, প্রথম দেখা করা, প্রথম একসাথে পার্কে যাওয়া, প্রথম একসাথে সমুদ্র দেখা, প্রথম একসাথে টেকনাফ যাওয়া, প্রথম পাহাড় দেখা- এর গুরুত্ব অসীম। সব কিছুই উজ্জ্বল স্মৃতি। তবে এই যে প্রথম এর বানান নিয়েই তো প্রশ্ন এসে দাড়াল আমার সামনে।

পোষ্ট দিলাম ” ব্লগার্স- প্রফাইল ” নিয়ে সবাইকে লেখার জন্য। ব্লগার তৌহিদ বললেন প্রফাইল/ প্রোফাইল। ব্লগার বন্যা লিপি পোষ্ট দিলেন ‘ ব্লগার্স- প্রোফাইল’ পোষ্টে এত ভাটা কেন? চিন্তা আর চিন্তা- প্রফাইল হবে  নাকি প্রোফাইল হবে? কয়েকজনে পোষ্টও দিলেন ‘ ব্লগার্স- প্রোফাইল ‘ লিখে। অনুরোধ করায় শিরোনাম এডিট করে প্রফাইল লিখলেন।

আসলে কেইসটা কি? প্রফাইল কি ভুল? গুগলে সার্চ দিলাম; সব ফলাফলে দেখলাম “প্রোফাইল”। মাথা পুড়াই আউলাঝাউলা। তাইলে প্রমথেশ বড়ুয়া,  প্রসন্ন, প্রফুল্ল, প্রশান্ত মহাসাগর, প্রদীপ, প্রথম এমনকি প্রশ্ন পর্যন্তও বানান ঠিক নেই। প্রোমথেশ বড়ুয়া, প্রোসন্ন, প্রোফুল্ল, প্রোশান্ত মহাসাগর, প্রোদীপ, প্রোথম এমনকি প্রোশ্ন-  এমন বানান কেন হলো না?

বিদেশী শব্দ বলে কি প্রফাইল হবে প্রোফাইল? তাহলে প্রভোস্ট, প্রটোকল, প্রটোটাইপ, প্রক্টর, এই শব শব্দ দোষ কি করলো যে তাদের র ফলার পরে একটি ও কার দেয়া হলো না? এই শব্দ গুলোর কি মামার জোড় ছিলো না? কেন তাদের বঞ্চিত করা হলো?

মনে পরলো SSC তে দ্বিতীয় পত্রে আমি ৮৭ পেয়েছিলাম।লাভ কি হলো তাতে? ব্যাকরণ, ট্যাকরণ  তো কোণো কাজেই লাগছে না এখন!

কেউ কি আছেন ব্যাকরণবিদ এখানে? কারণ সহ বলবেন কি প্রফাইল আর প্রোফাইল এর বানান কোনটা শুদ্ধ?

২৭৮জন ৪৩জন
0 Shares

৩৯টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য