মন্তব্য যখন পোস্ট

মিথুন ১ আগস্ট ২০১৫, শনিবার, ০৯:৩০:০৯পূর্বাহ্ন বিবিধ ৪১ মন্তব্য

খুব ব্যস্ত আমি, তাই বলে আমার কি দোষ? নির্ঘুম কাটিয়ে আমি ২৪ ঘন্টায় দিন বানাতে যে পারিনা। ঘুমের কাছেও আমার কিছু অঙ্গীকার রয়েছে, নাকি স্বপ্নের কাছে?
ভূমিকার সাথে এই লেখার কোন মিল খুঁজতে যাবেন না। লেখার ভূমিকা লেখকের মতোই ত্যাড়াবাঁকা।
আমি আলসে তাহা বলিয়া নিজেকে পরিশ্রমী প্রমান করিবার চেস্টা করিবো না কেন?
আজকের পোস্টের বিষয় মন্তব্য।
রেডিমেড মন্তব্য দেবার কুমন্ত্রনা দেয়া সজীব বাহিনীর এন্টি পোস্ট বলতে পারেন।
আমরা সবাই এখানে লিখছি, লেখাই এখানে কথা, জানা, ভালোবাসা বা কাছাকাছি হবার মন্ত্র। পোস্ট গুলো সবাই পড়ছি, তবে আড়ালে থেকে যাচ্ছে কিছু লেখা, সেটা হচ্ছে মন্তব্য। মন্তব্যে কিছু ভেবে লিখবার অবকাশ নেই। লেখা পড়ে মন থেকে যে ভাষা উচ্চারিত হয়ে আসে, সেটাই মন্তব্য। কোন কৃত্তিমতা নেই সে লেখায়। মন্তব্য বা সমালোচনা একজন লেখক তৈরির ক্ষমতা রাখে, আবার কারো লেখার ইচ্ছেও ভেঙ্গে ফেলতে পারে বলে আমি মনে করি। তো পড়েই ফেলি চলুন কিছু মন্তব্য……………

১। অনেক ধরনের অসুখের নামই তো শুনেছেন, তবে মেহজাবীন নামের অসুখের আবিষ্কারক আমাদের গুরু জিসান ভাই, আর এই অসুখের ভাইরাস বহনকারী, আবার কে? বিভিন্ন ভাইরাস নিয়ে বরাবর আসেন যিনি, আমাদের ছাইরাছ হেলাল ভাইয়া..

মেহজাবিন নামের সুখের অসুখে আক্রান্ত
চিকিৎসা লাগবে মনে হয়.. প্রমাথিনী মেঘ

২। মানুষ এভাবে আরেকজনের খারাপ চাইতে পারে!! খেয়ালী আপু এত্তগুলা খারাপ…

এই গল্পের শেষ যেখানেই হোক
সবাই আমরা সুখি হতে চাই———–  (y)
গীটারের সাথে গানটা ভালো লেগেছে–তাই চাওয়া উন্মাদ যেভাবে জন্ম থেকে জ্বলছে সেভাবেই জ্বলতে থাকুক  🙂 … হৃদ পোক…

৩। বয়স, সময়ের উপর মন্তব্য করার পারদর্শিতা নির্ভর করে। আমি মিছা বলিনা, জিসান ভাইয়ের এই মন্তব্য সহ হাতেনাতে প্রমাণ …

কেউ মেনে নেয়, কেউ ইচ্ছে করে মেনে নেয়,কেউ মেনে নিতে বাধ্য হয়।
আসলে বয়স,সময়,অবস্থান এসবের উপর রিলেশন এর গভীরত্ব,স্থায়ীত্ব নির্ভর করে।
ভালো ভাবেই বাস্তব কাহিনী গুলো তুলে এনেছ। অদ্ভূত যতো প্রেম-৩

৪। নাম বোকা মানুষ বলে মন্তব্য বোকা হবে এমন কোন কথা নয়…

দারুন লেখা! অনেকের জীবনের প্রতিদিনকার বেদনার গল্প! সবকিছুর মূলে মনে হয় বিয়ের আগের মানুষটাকে বদলে ফেলার চেষ্টা! মানুষকে বদলাতে চাইলে সংঘাত অনিবার্য! তারচেয়ে বুঝতে চাওয়া অনেক ভাল বিকল্প! উপলব্ধি: নিজেকে কখনই কারো কাছে সহজলভ্য করতে নেই… সংসার আর পুতুলখেলা

৫। তার মন্তব্য তার লেখার মতোই আলাদা, ছাইরাছ হেলাল ভাইয়ার স্বসুন্দর মন্তব্য …

একান্ত ই আপন শুভ্র নীড়ের ডাক আমরাও শুনতে পাই এই দূরে থেকেও।
এখানে বিছানারা কাঁদলেই স্বাভাবিক।
যেতে হবে সেখানেই কোন এক দিন । সত্যি কথন… ছেঁড়া পাতা এবং অস্পষ্ট অক্ষর

৬। নীলাঞ্জনা আপু শুধু আপনার এই লেখাটিই পোস্ট আকারে আনবো বলে আমার এত কস্ট, ধন্যবাদ দিন জলদি …

লেখাটা যখন পড়ি, বুকের ভেতর একধরণের যন্ত্রণা।
প্রতিটি মেয়েই এমন সময়ের মধ্যে দিয়ে যায়। নন্দিনী দিদি খুব বাস্তব একটি লেখা, আমি পারছি না মন্তব্য করতে। তাই পুরোনো লেখাটা দিচ্ছি সিপি করে। ফেসবুকে লিখেছিলাম ২০১০ সালে।
নারীর পরিবর্তন : পুতুল খেলা ………….নীলাঞ্জনা নীলা

বরিশালের মা শৈলবালা (দিদিমা / নানী )
কবে কোন কালে বালিকা বেলায়
আধ হাত ঘোমটা দিয়ে , পাল্কী চড়ে
শৈলবালার বরণ হলো
হাতে একটা পুতুল নিয়ে
সংসার ।
আহ্ , সঙ সেজে শূণ্য (সার )
বলেছিলো কোমায় যাবার আগে।
ঠাকুরমা প্রমোদিনী (দাদী )
প্রমোদিনী উঠোন জুড়ে খেলছিলো
বয়স তখন কতো ? পাঁচ নয়তো ছয়
একদিন ঢাকের শব্দ বাড়ীর উঠোনে
হঠাৎ শেকড় উপড়ে যাওয়া
সাথে কাপড়ের বাক্সে পুতুল সামগ্রী —–
“মানাইতে হয় রে শিল্পী এইটাই নিয়ম।”
আমার মামনি মীরা (মা )
একাত্তর , ব্ল্যাকআউট
লুটপাট
কলাগাছ সাজিয়ে মৌনতা
ফিসফাস আনন্দ
শান্ত – নীরব মীরার পা চললো
অন্যদেশে
মানিয়ে নিতে নিতে পুতুল খেলে নিজেরই সাথে
আমার শ্বাশুড়ী মাতা কমলা ( মা )
খুব কেঁদেছিলো সেদিন
অবুঝ কান্না
বাবার আদর খুঁজছিলো চোখ
কমলা রানী
আহ্ , কে বলে মেয়েরা রানী !
পুতুলটাকে এখনও খোঁজে ছেলের কাছে
মেয়ের কাছে
সুস্মিত হাসি দিয়ে বলে :
“ওরে পাগলী রে ভালো আছি”
আদৌ কি ?
আমার আমি নীলাঞ্জনা
সময় নাকি পাল্টে গেছে
কোথায় ?
এখনও সেই পুতুল খেলি পুতুল সেজে
বয়সটাই যা বেড়ে গেছে
একটু – আধটু লিখতে পারি
এ-ই তো ?
তা নইলে ,
নারীর আবার বদল কি ?
** মানুষ হয়ে কবে জন্মাবে নারী ?
ল্যুভেন – লা – ন্যুউভ , বেলজিয়াম
৩১ – ০১ – ১০ ইং… সংসার আর পুতুলখেলা

৭। ভূ-ভূ-ভূতেও কমেন্ট করতে পারে..এই দেখেন, ব্লগ সঞ্চালকের মন্তব্য। তারে আমি চোখে দেখিনা, যা দেখিনা, তা ভূত…

ঐটা কোন কমেন্ট না,ঐটা একটা বাগ।তাই জবাবের অপশন নেই।বাঘ বনে চলে গিয়েছে,নেই আর… সংসার আর পুতুলখেলা

৮। নামে উন্মাদ (সীমান্ত উন্মাদ) তালে ঠিক…

অসাম সজীব ভাই। শুন্য শুন্যালয়ের নানী লীলাবতী আপু দাদী সই ছিল। হা হা সেটা বুঝলাম কিন্তু আপনে এই যুগে জানলেন কেমনে??!! আপনার দাদা কি শুন্যের নানী আর লীলাবতী আপুর দাদির ফলোয়ার আছিল? হা হা, বেপক বিনোদন পাইলাম।

অনেক অনেক শুভকামনা নিরন্তর জানিবেন… নেমকহারাম

৯। এখন ভূত, শাকচুন্নীর মৌসুম চলছে সোনেলায়। কে ভূত, কে শাঁকচুন্নি নানা-নাত্নী বুঝে নিক…

নানা হাসির উপরে চন্দ্রবিন্দু কেন? তুমি দেখি নাঁকি সুরে কথা বলা শুরু করেছো ভূতের গল্প লিখতে লিখতে।
স্বপ্ন তো বাস্তব। আমার বুড়া(রবীন্দ্রনাথ) আর হাসি দুটোই আছে। থাকবেও। 😀 সেনসোডাইন টুথপেষ্ট এবং ওরাল-বি টুথব্রাশ ব্যবহার করি যে! :D)… সুন্দরী একটি রাত্রি এবং …সত্যি কথন

১০। ভত্তাবতীর বুদ্ধিমতি লীলাবতীর মাথায় প্রশ্ন ভাইরাস কারা বানায়…

আচ্ছা ভাইরাস কারা বানায়?এদের কি খেয়ে দেয়ে কোন কাজ নেই?মানুষের ক্ষতি করার জন্য সময় মেধা নষ্ট করে। এদেরকে হাতের কাছে পেলে নখ দিয়ে খামছে ছেঁড়া বেড়া করে দিতাম।
ছোট ভাইকে দেখাবো আপনার পোষ্ট। ও সব কিছু করে দেয় ল্যাপটপের।আমি তো অনেক বুঝি,তাই আমি এসব ছোট খাট কাজ করিনা :pপ্রযুক্তি কথনঃ Sheila USB Shield রিভিউ

১১। নীলাঞ্জনা আপুর থেকে সাবধান,. মেহজাবীন কে পটিয়ে ফেলেছে …

ঘটনা কি!!! ;?
মেহজাবিনকে দেখলাম আমার জানলায়, তারপর টোকা দিয়ে বলতে লাগলো,
“সাবধানে মন্তব্য করো কিন্তু! নইলে…  :@ ”
বললাম নইলে কি করবেন আপনি?
“কত্তো বড়ো সাহস মুখের উপর কথা!”
শুনুন মেহজাবিন এতো সুন্দর মুখখানি, কি আহ্লাদী! জানেন ছাইরাছ হেলাল ভাই কতো মিষ্টি মিষ্টি গল্প করেন আপনার?
“ওহ তাই নাকি? আসলে আমি স্যরি। বেশী রাগ দেখিয়ে ফেলেছি। কিছু মনে করবেন না।”
অবশ্যই না। আপনাকে দেখলে আমার যে রাগগুলো আছে না, সেসবকে চার্জ দিতে আর হয়না।
“মানে কি? বুঝিনি।”
সুন্দরী আপনি এতো কি হবে বুঝে, বলুন!
“এবার কিন্তু বেশী বলছেন। আচ্ছা মনে যা আসবে সেটাই লিখবেন। আমি কিচ্ছু মনে করবো না।”
সত্যি তো? প্রমিজ!
“সত্যি সত্যি সত্যি, তিন সত্যি এবং প্রমিজ।”
এখন সত্যি কি বলবো হেলাল ভাই? যেখানে আপনিই ভয়ে আছেন, আমি তো কোন ছাড়! :p
তবে লেখার জন্যে -{@ … প্রেমের বন্ধুত্ব, বন্ধুত্বের প্রেম–(৩)

১২। আগেই বলেছি তার থেকে সাবধান। সি ইজ ডেঞ্জারাজ..

এই শব্দটা নিয়ে ভাবিনা। যেদিন আসার আসবে।
জীবনের শেষ পরিক্রমা…(প্রিয় এক দাদুর যাকে আমি কলকাতার দাদু ডাকতাম, তার চলে যাবার খবর শোনার পর)
মৃত্যু : তোমার দেহ অদৃশ্য
বিচ্ছেদ : আর তোমায় ফিরে না পাওয়া
প্রিয় মুখ , প্রিয়তর কথা
ক্যামেরা থেকে ফ্রেমবন্দী
সে কখনো বলেনা :
“কতোদিন পরে দেখা হলো ।”
আদর – স্পর্শ , কোমল অনুভূতি স্মৃতির পিঠে
যাত্রা : তারপর শ্মশান কিংবা কবরে
গন্তব্য : না – ফেরার দেশে
হায় , নির্ভেজাল ভালোবাসা কেবল হারিয়ে যায় !
ল্যুভেন – লা – ন্যুউভ , বেলজিয়াম
২৪ জানুয়ারী, ২০১০ ইং… শুধু মৃত্যুই সত্য

১৩।  আমরা ছুটি, আমাদের ছোটায়। ছাইরাছ ভাইয়ার মতো আমরাও চাই নিশ্চিন্তপুরের ঠিকানায় চিঠি লিখতে…

টুকটুকে ছুটিপুরের স্বপ্ন স্বপ্ন হয়েই ঝুল বারান্দায় লুকোচুরি খেলে। ধরা দেয় না।
আমরা ছুটি, আমাদের ছোটায়। নিশিন্তপুরের ঠিকানায় চিঠি লেখা আর হয়ে উঠে না।
আর একটি কাউন্ট ডাউনের অপেক্ষা অপেক্ষা হয়েই থেকে যায়।

যাক লিখলেন! দেরি পুষিয়ে দেয়ার জন্য ধন্যবাদ দিচ্ছি।
দারুণ।… ছুটিপুর-১

১৪। উদার হস্ত অরণ্য ভাইয়ার সব মন্তব্যই বেশ হয়, আলাদা করে এটা দিলাম..

“শুধু মৃত্যুই সত্য।” ইহাকে আমি মানিয়া লইয়া ব্রত লইয়াছি “রানিং টুয়ার্ডস আ সাকসেসফুল ডেথ”।
জন্মিলে মরিতে হবে – ইহার ব্যত্যয় কেহ দেখিবে না; কিন্তু কিছু মৃত্যুকে আমরা “অস্বাভাবিক মৃত্যু”ও বলিয়া থাকি। মৃত্যুর সহিত আলিঙ্গনের পূর্ব পর্যন্তও আমরা কিছু করিয়া চলিব; তাহাও সত্য বলিয়া ভাবিতে হইবে। অন্যথায় মৃত্যুর লাগিয়া আমাদিগকে আলস্যে প্রতীক্ষার প্রহর গুনিতে হইবে। তাহা আরও ভয়ানক হইবে।
খেয়ালী মেয়ে, মৃত্যুকে সত্য জেনেও মুখে হাসি রাখতেই হবে। জীবনেরও কিছু মানে আছে যদি তা আমরা করতে পারি। হয়তো তা এমন হতে পারে যেন অন্য কাউকে আর এভাবে না দেখতে হয় জীবন এবং মৃত্যুকে।
ভালো থাকবেন… শুধু মৃত্যুই সত্য

১৫। অনিকেত নন্দিনী আপু, এ যে বড়ই সত্য বলেছেন।

ন্যাপথালিনের মতো শুভ্র ভালোবাসার বল দিলে সব গন্ধ দূর হয়?
স্বপ্নগুলো আজীবন ডায়েরিবন্দী হয়ে থাকাই হয়তো ভালো। একজনের স্বপ্নের মর্ম অন্যেরা কী বুঝবে?
আমাদের সব স্বপ্নেই ঘুণপোকাদের বসবাস।
লেখা অনেক ভালো হয়েছে। কান্না পাচ্ছে… ভ্রষ্টা নারী

১৬। শ্রদ্ধেয় আজিম ভাইয়া, আক্ষরিক অর্থেই চমৎকার একটি মন্তব্য করেছেন…

জনাবা লীলাবতী দি, আপনার লেখায় আমি মন্তব্য না করলেও আপনার প্রায় প্রতিটি লেখাই পড়ি। ভাল লাগে আর আপনার বিষয়ের চাকচিক্য ও উপস্থাপনা ভাল লাগে। আপনার মধ্যে জিনিয়াসনেসের অনেক কিছু আছে।
সমাজের যাঁরা কল্যান করে গেছেন অতীতে, ছোট থেকে বড় পর্যায়ে, অনেক ছিলেন তাঁরা। সকলেরই তাঁর নিজস্ব প্রতিভা দেশ ও সমাজের কাজে লাগাবেন, সেটাই কাম্য। আপনি অসহায় নারীদের, যেমন গার্মেন্টস্ শ্রমিকদের সার্বিক জীবনযাত্রার চিত্র ধারন করে সেগুলি প্রচার করে মালিক আর সরকারকে তাদের (শ্রমিক) বেতনভাতা বাড়ানোর বিষয়ে যদি কিছু করা যায়, তবে সেটা আমাদের মানবসম্পদ বৃদ্ধিতে অনেক প্রভাব বিস্তার করবে।
এখনি করতে হবে বা না করতে পারার জন্য মানসিকভাবে চাপে থাকবেন, তা নয়। কমপক্ষে চিন্তাটা লালন করে গেলেন। এরকম লোকও আমাদের কম… সন্ত্রাসী অনিকেত নন্দিনী হতে সাবধান সাবধান 

প্রশ্ন করতে পারেন, এর চাইতে কত সুন্দর মন্তব্য আছে, এইগুলা কিসের ভিত্তিতে। না প্রশ্ন করতে পারেননা। বিচারকের রায়ই এইখানে চূড়ান্ত। আমার পোস্ট আমি দেব, যেমন খুশি তেমন দেব। তবে ঘুষ গ্রহণের সিস্টেম আছে (এইটা আমি ফিসফিস করে বললাম কিন্তু)। পরবর্তিতে এই সুযোগ গ্রহণকারীদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে। সুন্দর অনুপ্রেরণা সুন্দর কিছুর জন্ম দেয়। কেউ লেখে, কেউ লিখিয়ে নেয়। শুভকামনা সবার জন্য।

৭৮৫জন ৭৮৪জন
0 Shares

৪১টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ