ভাষা নদী-জীবনের মতো বহমান !ভাষার নিজষ্ব মান- মর্যাদা-অভিযোজন ক্ষমতা আছে!ভাষা কোনো জাতির বা দেশের দাস নয়!মননশীল প্রানীই ভাষার দাস!ভাষাকে যে যেমন মর্যাদা দেবে তেমনি সে মর্যাদা পাবে! ভাষা বা ধ্বনির উৎপত্তি নিয়ে অনেক তত্ত্ব আছে, তেমনি বিতর্ক আছে!তবে উনবিংশ-শতাব্দীর বিখ্যাত ভাষাবিদ Noam Chomsky- এর মতে,”ভাষা কোনো যান্ত্রিক প্রক্রিয়া নয়,ভাষা মানুষের সৃজন চেতনার সঙ্গে যুক্ত”।এছাড়া শরীর বিঞ্জানের সাথে যোগ সূত্র রেখে,চম্স্কির অনুগামী এরিক লেনবার্গ আরো গুরুত্বপুর্ণ মত প্রকাশ করেন-”প্রানী জগতের বিবর্তনের মধ্যে এমন একটা মৌলিক জীব-কোষগত রূপান্তর( জেনেটিক মিউটেশন) ঘটে যায়,যার ফলে মানুষ একদিন হোমো স্যাপিয়েন্স অর্থাৎ মননশীল প্রানী হয়ে ওঠে।” এখানে এটাই পরিস্কার যে,আমারা যে ভাষায় কথা বলি তা আমাদের মাধ্যমে তৈরি হয় এবং সময়ের সাথে নিজেকে অক্ষুন্ন রেখে অভিযোজিত হয়!এই ভাবেই ভাষার ক্রমবিকাষ ঘটে এবং নিজেকে সমৃদ্ধ করে।সৃষ্টিশীল কবি-লেখক যে ভাষায় তাদের সাহিত্য রচনা করেন,সেই ভাষাই সাহিত্যের ভাষা!

১৭৬জন ১৭৬জন
0 Shares

৪টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য