ভালোবাসি তোমায় (২য় খন্ড)

ইঞ্জা ১৫ জুলাই ২০১৬, শুক্রবার, ১২:১২:২৬পূর্বাহ্ন গল্প ২২ মন্তব্য

 

অভি বাসায় ফিরে এলো বিকেলে, এসেই সোফায় গাটা এলিয়ে দেয়, ছোট বোনটা সামনে এসে বলল “ভাইয়া তুমি এতো তাড়াতাড়ি, কিছু খাবি”?
না কিছু খাবোনা পারলে এক গ্লাস পানি দিতে বল আর এর মধ্যে কাজের লোকটা পানি নিয়ে এলো, ঢক ঢক করে পানিটা খেয়ে ফেলল ও বোনকে বলল “মা ফোন দিয়েছিল? জবাবে বোন বলল মা এই কিছুক্ষণ আগে চলে এসেছে, খালাম্মার ড্রাইভার গাড়ী দিয়ে নামিয়ে দিয়ে গেল।
কই মা কই এখন?
মা ওয়াসরুমে মনে হয়, নাহলে তো এতক্ষণে হাজির হয়ে যেতো প্রিয় পুত্রের সেবাই, ফোড়ন কাটল এই বলে।
অভি একটু হেসে বলল, কেন মা কি তোকে ভালোবাসেনা?
বাসে কিন্তু তোমার চাইতে কম। এর মধ্যে অভির মা সিড়ি দিয়ে নিচে নামচে দেখে অভি বলল “কি মা তুমি আসবে, আমাকে রিং দিলেই পারতে।
মা নিচে নেমে অভির পাশে বসে বলল “কিরে আজ তুই তাড়াতাড়ি চলে আসলি যে”?
এমনিই চলে আসলাম, মা আমি ফ্রেস হয়ে আসছি তুমি বিকেলের নাস্তা দাও টেবিলে।

অভি দ্রুত রুমে গিয়ে ফ্রেস হয়ে গায়ে একটা পাঞ্জাবি চড়ালো তারপর নিচে নেমে এলো, টেবিলে মা আর ওর বোন প্রিয়ন্তী বসে আছে। অভি বসেই একটা বিস্কিট উঠিয়ে নিয়ে চিবুতে লাগলো সাথে কফি ভর্তি মগে চুমুক দিতে লাগলো।
মা আমি একটু রেস্ট করবো, তোমার কোন কাজ নেই তো, যদি থাকে বলো তাহলে করে দিই।
নারে তুই যা, একটু রেস্ট নে।
অভি কফি শেষ করে উঠে যাচ্ছিলো প্রিয়ন্তী বললো, ভাইয়া আমার একটা কাজ করে দেনা।
কি কাজ
আমার পাটা ব্যাথা করছে একটু টিপে দিবি বলেই দেই দৌড়।
অভি আর ওর মা এক যোগে হেসে দিলো, মা বললো
ও আজকাল এমন দুষ্টু হয়েছেনা
থাক মা ও এখনো বাচ্চা দুষ্টুমি করুক, এখন না করলে কখন করবে?
রুমে এসে অভি একটা বই নিয়ে শুয়ে শুয়ে পড়তে লাগলো, পড়তে পড়তেই ঘুমিয়ে গেল, সন্ধ্যার আগে উঠে গেল, চোখে মুখে পানি দিয়ে নিচে নেমে বাগানে চলে এলো সেখানে মা আর বোন প্রিয়ন্তী বসে আছে
সারাটা সন্ধ্যা বাগানে কাটিয়ে দিলো বোনকে খুচিয়ে।

পরদিন সকালে ব্রেকফাস্ট করেই বের হয়ে গেলো অফিসের উদ্দেশ্যে, অফিসে যখন ঢুকলো অফিসের সবাই দাঁড়িয়ে গেল, ও লম্বা পায়ে হেটে নিজ চেম্বারে এসে বসলো, বসেই গতকালকের ফাইল খুলে খুলে দেখতে লাগলো। দরজার নকের শব্দে সে মুখ তুলে বললো “কাম ইন প্লিজ”। জিএম সাহেব ভিতরে এসে ঢুকলে তাকে বসতে বলেই আবার ডুবে গেল ফাইলের মধ্যে, একটু পর ফাইল দেখা অবস্থায় জিজ্ঞেস করলো
বলুন জামাল সাহেব
স্যার আপনার জন্য পিএ আর কিছু অফিস একজিকিউটিভ দরকার।
কেনো, যা আছে তা দিয়ে কি হচ্ছেনা?
স্যার আজকাল অফিসের কাজ অনেক বেড়ে গিয়েছে, এমতাবস্থায় সব কাজ সামলানো বেশ কষ্টকর হয়ে গিয়েছে, তাই আমার মনে হলো আপনাকে বলি।
আর পিএ?
আপনারও এত কাজ বেড়েছে যে প্রতিদিন অনেক রাত করেই বাড়ী ফিরেন, একজন পিএ থাকলে আপনার কিছু কাজ কমবে আর সে আপনাকে বিভিন্ন কাজে সহায়তাও করতে পারবে আর সামনে নতুন কিছু শীপ কিনবো আমরা, তখন তো দম ফেলার সুযোগই পাবেন না।
ওকে আপনার কি কোনো চয়েজ আছে?
না স্যার, আপনি বললে নিউজ পেপার আর ওয়েব সাইটে বিজ্ঞাপন দিতে পারি।
ওকে দিয়ে দিন, আরেকটা কথা পিএর কোয়ালিফিকেশনের মধ্যে আইটিটা মাস্ট রাখবেন।

জিএম বের হয়ে গেলো, এর মধ্যে একটা ফোন এলে রিসিভ করে হ্যালো বলল, অপর পাশ থেকে একটি মেয়ে সালান দিয়ে বলল “স্যার ইউনাইটেড হসপিটাল থেকে বলছি, গতকালকের আপনার পেশেন্ট আজ রিলিজ নিচ্ছেন।
ওকে কোনো প্রবলেম, বিল কি আর লাগবে?
না স্যার, উনারা আপনাকে ধন্যবাদ দিয়ে বলছেন গতকাল যে টাকাগুলো আমাদের বিল বাবদ দিয়েছিলেন তা উনারা আপনাকে ফেরত দিতে বলছেন কারণ বিল উনারাই পরিশোধ করতে চান, স্যার পেশেন্টের বাবা আপনার সাথে কথা বলতে চান, কথা বলুন।
হ্যালো, বাবা আপনি আমার মেয়ের জীবন বাঁচিয়েছেন এতেই আমরা ঋণি, বিল দিয়ে আমাকে এইভাবে ছোট করবেন না, প্লিজ।
দেখুন আপনি বাবা বলছেন আবার ঋণিও বলছেন, আমি টাকা দিলে আপনার ছেলে হিসাবেই দিয়েছি মনে করতে কি আপত্তি আছে, আপনি মেয়েকে নিয়ে বাসায় যান, আমার শুভকামনা রইল।
তাহলে বাবা আমার একটা অনুরোধ রাখেন, আমি আপনার ফোন নাম্বার নিয়ে যাচ্ছি এইখান থেকে, একদিন কল দিয়ে আপনার সাথে দেখা করব।
জি সিউর এনিটাইম, সালাম।
ওয়া আলাইকুম আসসালাম, দোয়া করছি তোমার জন্য।

এক মাস পরঃ

অভি অফিসে এসেই ব্যস্ত হয়ে পড়লো নিয়মিত ভাবে, ইন্টারকম বেজে উঠল “জি জিএম সাহেব”
স্যার ১১ টা থেকে নতুন রিক্রুটের ইন্টারভিউ।
ওকে আমি চলে আসবো।
১১ টা বাজতেই উঠে চলে এলো কনফারেন্স রুমে, ওখানে আগে থেকেই জিএম আর কোম্পানি সেক্রেটারি উপস্থিত আছে, ইন্টারভিউ শুরু হলো প্রথমে নতুন অফিস একজিকিউটিভের, ওদের ইন্টারভিউ শেষ হতে হতে লাঞ্চের সময় হয়ে গেল। অভি জিএম সাহেবকে বললো যারা এই মূহুর্তে ইন্টারভিউর জন্য উপস্থিত আছে তাদেরকে বলুন অফিস ক্যান্টিন থেকে সবাই যেন লাঞ্চ করে আসে, ৩টা থেকে ইন্টারভিউ হবে।
অভি নিজ চেম্বারে এসে মাকে কল দিয়ে কিছুক্ষন কথা বলেই উঠে চলে গেল ক্যান্টিনে, ও আর সবার মতই ক্যান্টিনেই খায়, স্টাফদের খোজ খবর নেয়, মজা করে কিন্তু অফিস রুমে ঢুকলেই অন্য চেহেরা, অনিয়ম একদম সহ্য করেনা। আজ তেমন কারো সাথে কথা না বলে তাড়াহুড়া করে খেয়ে চলে গেল। আবার শুরু হলো ইন্টারভিউ, এখন হবে পিএর জন্য ইন্টারভিউ, একে একে প্রার্থীরা আসছে আর ইন্টারভিউ দিচ্ছে, ঘন্টা খানেক পর এক মেয়ে ঢুকে সালাম দিলো, ওকে বসতে বললো জিএম।

আপনার নাম, জিজ্ঞেস করলো জিএম
জেসমিন সুলতানা, ডাক নাম অবণী, অভির চোখে চোখ রেখে জবাব দিলো।
জিএম মেয়েটার ফাইল দিলো অভিকে, অভি মনোযোগ সহকারে পড়তে লাগলো ফাইলটি, তারপর চোখ না তুলেই বলল, আপনি EEE করেছেন ৪ বছর আগে এরপর এমবিএ করেছেন এর পর পরই, কোথাও কি আগে চাকরি করেছেন, এইখানে তো চাকরির কোনো কিছু লিখেননি?
না স্যার আমি আগে কোথাও চাকরি করিনি কিন্তু ঘরে আমার বাবার যত কাজ যেমন ডিক্টেশন, টাইপিং, ফাইলিং, অফিসের কিছু পেন্ডিং কাজ আমি করে দিতাম।
আপনার আব্বা কোথায় আছেন, আই মিন কোন ধরণের চাকরিতে আছেন?
জি, উনি ইউনি শিপিংয়ে জিএম হিসাবে চাকরি করতেন গত বছর উনি রিটায়ার করেছেন।
ভেরি গুড, তা আপনি কেন চাকরি করতে চান?
জি, আমি এতদিন তো বাবা মারই খেয়েছি আরচেখন চাই আমি উনাদের দায়িত্ব নিতে।
জিএম সাহেব বললো, আপনাকে প্রায় স্যারের সাথে বিভিন্ন মিটিং এটেন্ড করতে হবে, ইভেন স্যার যখন বিদেশে যায় তখন আপনাকেও যেতে হতে পারে, এতে মেয়ে হিসাবে আপনার কোনো সমস্যা হবে নাতো?
মেয়েটি অভির চোখে চোখ রেখে বললো “না আমার কোনো সমস্যা নেই, এই ব্যাপারে আমার ফ্যামিলি আমাকে বিশ্বাস করে আর আমিও বাবার সাথে বেশ কয়েকটি দেশ ঘুরেছি।

জিএম বলল ঠিক আছে আপনি আজ আসতে পারেন, দরকার হলে আমরা আপনার সাথে পরে যোগাযোগ করব।
অবণী সবাইকে সালাম দিয়ে বেড়িয়ে গেল।
কোম্পানি সেক্রেটারি বললো, স্যার সব কেন্ডিডেটদের থেকে এই মেয়েটি ভালো, ওয়েল এডুকেটেড, ওয়েল ভার্স আর ইন্টালিজেন্ট মনে হলো।
জিএম বলল, জি, মেয়েটি স্মার্ট আর শালীনও বটে।
অভি বলল, ওকে আপনারা সবাই চেক এন্ড ব্যালেন্স করে দেখুন, তারপর যাদের যাদের রাখবেন তাদের সবাইকে রিক্রুট করে নিন, আগামীকাল আমি দেশের বাইরে যাচ্ছি, আসতে এইবার দেরী হবে তা আপনারা জানেন, আপনারা এইদিকে সব খেয়াল রাখবেন, বিদায়।।

_______ চলবে।

১০১জন ১০১জন
0 Shares

২২টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য