নাজমুল আহসান ও নাজিয়া তাসনিম-মিলন মেলা ২০১৯ এর ছবি।

লেডিস ফাষ্ট।প্রথম পর্বটা লেডিস দিয়েই শুরু করছিলাম।আজকের পর্বটি যদিও পুরুষ দিয়ে শুরু করার চিন্তা ভাবনা ছিল কিন্তু লেডিসদের একটি বিশেষ সন্মান জানানোর জন্য লেডিস দিয়েই শুরু করতে হল।পুরুষদের জীবনের সর্বোক্ষেত্রেই লেডিস অগ্রাধীকর পাওয়া উচিত।কারন লেডিস হলেন জগতের কন্যা জায়া জননী।আর নারী যদি হয় নারীর মতন তবে পুরুষের জীবন হয় সূভাষিত ফুলের ঘ্রানে পূর্ণীমা জোৎস্নায় ছাদ বাগানের মতন।পুরুষ একা যে কাজের সফলতা আনবেন চৌদ্দ বছরে,নারীর সংস্পর্শে সেই একই কাজের সফলতা আসবে এক বছরে।আর সফল কাজটির গুণগত মানও হয় একশতে একশ।এক চোখকে ফাকি দেয়া সম্ভব কিন্তু দু’জোড়া চোখকে(নারী-পুরুষ)ফাকি দিয়ে কারো উদ্দ্যেশ্যপূর্ণ কাজ হাসিল করা ততটা সম্ভব নয়।আমরা সোলেনা পরিবারে তেমনি দু’জোড়া অতন্ত্র প্রহরী চোখ পেয়েছি।যে চোখগুলোকে ফাঁকি দিয়ে সোনেলাকে কেউ ক্ষতি সাধন করতে  হলে দ্বিধাবোদ করতেই হবে।তারা হলেন আমাদের সবার প্রিয় মুখ সোনেলার নিউক্লিয়াস নাজমুল আহসান এবং তার সহধর্মীনি নাজিয়া তাসনিম।সোনেলার প্রথম ভার্সন থেকে শুরু করে বর্তমান ভার্সনের মান উন্নয়ণে দুজনে নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন।পাশাপাশি ব্লগেও লিখে যাচ্ছেন তাদের সুবিদা মত সময়ে।২০২০ মিলন মেলা সহ সোনেলার প্রায় অনুষ্ঠানে সময় দিয়েছেন তারা।তাদের জীবন হউক  সূখী সুন্দর এই প্রত্যাশায় দোয়া করবেন সকল ব্লগার ও শুভাকাঙ্ক্ষি।

সাবিনা ইয়াসমিন ঃ সোনেলায় আমরা তাকে সোনেলা ইয়াসমিন নামেও সন্মান করে ডাকি। ব্লগকে তিনি  অত্যন্ত বুদ্ধিমত্ত্বার সাথে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন তিনি। যে কোনো লেখায় গঠন মুলক এবং বিস্তারিত মন্তব্য দিয়ে লেখককে প্রেরনা দানে তিনি ব্লগের সেরা। তার মন্তব্যই অনেক সময় একটি পোস্ট এর মত হয়ে যায়। অন্যের লেখার জবাব পোস্ট দেয়ায় তার জুরি নেই সোনেলায়। কবিতা, গল্প, সমসাময়িক লেখায় তিনি সমান দক্ষ। সোনেলার দুর্দিনে তিনি শক্ত হাতে এবং বিচক্ষনতার সাথে সোনেলার হাল ধরেছিলেন। তিনি সোনেলা ব্লগারদের প্রেরনা রুপে আবির্ভুত হয়েছেন।  বিশেষ কারনে তিনি মিলন মেলায় উপস্থিত হতে পারেননি বলে মন খারাপ করে ছিলেন যা আমরা তার প্রাপ্তী স্বীকার পোষ্টে জানতে পারি। সোনেলা ব্লগ কর্তৃপক্ষ এডমিন হিসাবে তাকে সন্মানীত করেন ক্রেস্ট উপহার প্রদানের মাধ্যমে।তার অনুপস্থিতে উপহারটি গ্রহন করে ব্লগার কবি নাসির সারোয়ার।

শবনম মোস্তারী ঃ এবারের মিলন মেলায় আসি আসি করেও শেষ পর্যন্ত পারিবারিক বিশেষ ঝামেলার কারনে আসতে পারেননি ব্লগার সাহিত্যিক শবনম। ব্লগের অত্যান্ত প্রতিভাবান ব্লগার শবনম মোস্তারীন ইতিমধ্যে সোনেলা ব্লগে পৌষ সংক্রান্তি উৎসব লেখা প্রতিযোগীতায় গল্পে তৃতীয়স্থান অধিকার করেছেন।তারপ্রাপ্ত সন্মাননার স্বারক উপহারটি কুরিয়া যোগে পৌছেঁ দেয়া হবে বলে ব্লগ কর্তৃপক্ষ ঘোষনা দিয়েছেন।

নিতাই বাবু ঃ দুজনেই খুব চিন্তায় ছিলাম শেষ পর্যন্ত মিলন মেলায় অংশগ্রহন এক সাথে করতে পারব কীনা।এ সম্পর্কে এর আগের পোষ্টে বলেছি এখানে আর নাইবা বললাম।নিতাই বাবু তার লেখায় সমসাময়িক বিষয় সহ জীবনের প্রকৃত চিত্রটি সঠিক ভাবে তুলে ধরায় পারদর্শী তাইতো এবারে পৌষ সংক্রান্তি উৎসব লেখায় তিনি পৌষের আদি রূপটি খুব চমৎকার ভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন।তার লেখাটি পড়ে কেবলি মনে হয়েছিল৴আহা সেই দিনগুলো কই৴।প্রতিযোগীতায় গদ্যে প্রবন্ধে তিনি প্রথম স্থান অধিকার করেন।তাকে ব্লগ কর্তৃপক্ষ ক্রেস্ট উপহার দিয়ে সন্মাননা জানান।

অনন্য অর্ণব ঃ বেশ হাস্যোজ্জ্বল লিকলিকে হালকা পাতলা ছেলেটির মাথায় এতো যে কবিতার ভাব বলাই বাহুল্য।তার কবিতাগুলো নিদিষ্ট কোন বিষয়ে নেই।তিনি তার কবিতার ভাবনায় প্রেম-বিরহ,সামাজিক প্রেক্ষাপট সবিই তুলে ধরেণ চমৎকার সব শব্দ ও বাক্যের খেলায়।এবারে ২০২০ সোনেলা মিলন মেলায় অংশগ্রহণ করা নিয়ে ঘোষনার প্রথম দিকে হ্যা সূচক থাকলেও হঠাৎ অসুস্থতায় তার মিলন মেলায় আসাটা অনেকটা অনিশ্চিৎ হয়ে পড়েছিল।অবশেষে সকল অসুস্থতাকে জয় করে তিনি মিলন মেলায় এলেন জয় করে নিলেন স্বপ্নের কবিরাজ মহারাজ ছাইরাছ হেলাল ভাইজানের হৃদয়।ছাইরাছ হেলাল সোনেলা ব্লগের কবিদের মাঝে অন্যতম একজন কবি যার কবিতার শব্দ বাক্যের গাথূণীতে অন্যান্য কবিদের চেয়ে একটু ডিফারেন্টই বটে।আমি ছয় সাত বছর তার কবিতার ভক্ত হয়ে তার সান্নিধ্য পেয়েও ভক্তের ভ’ও হতে পারিনি ।উপস্থিত সে সময় অনন্য অর্ণব এর মাঝে ছাইরাছ হেলালের চমৎকার কিছু কথাবার্তা হয়- কবিতার কঠিন কঠিন শব্দ প্রয়োগের উৎস এবং প্রয়োগের কৌশলগত দিক নিয়ে।সোনেলা ব্লগে আয়োজিত পৌষ সংক্রান্তি উৎসব লেখা প্রতিযোগীতায় বিচারদের সূনিপুন রায়ে তিনি দ্বিতীয়স্থান অধিকার করেন।তাকে ব্লগ কর্তৃপক্ষ ক্রেস্ট উপহার দিয়ে সন্মাননা জানান।

এস জেড বাবু ঃ সোনেলার সন্মানীত ব্লগার এস জেড বাবু। লেখায় যদি কাউকে চেনা যায়-সে হলেন আমাদের বাবু ভাই।কুমিল্লার সন্তান।পেশায় ব্যাবসায়ী হলেও লেখা লেখিটা ছাড়েননি।নিরলস ভাবে সোনেলায় লিখে যাচ্ছেন একের পর এক গল্প কবিতা।পারিবারিক সমস্যায় মিলন মেলায় অংশগ্রহন করতে পারেনি কিন্তু সোনেলা ব্লগের পৌষ সংক্রান্তি উৎসব লেখা প্রতিযোগীতায় কবিতা বিভাগে তৃতীয়স্থান অধিকার করেন।সোনেলা ব্লগ তাকে ক্রেস্ট সন্মাননা জানান এবং অনুপস্থিত থাকায় তার উপহারটি পাঠিয়ে দেবার ব্যাবস্থা করার ঘোষনা দেন ।

নাজমুল আহসান ঃ বীনা পারিশ্রমিকে সোনেলার মতন জনপ্রিয় একটি সাইটকে দেখাশুনা করে রাখাটা সোনেলা ব্লগারদের জন্য বড় পাওয়া।তাকে যথাযত সন্মানীত করা কঠিন ব্যাপারেই বটে তবুও এবাবের মিলন মেলায় ব্লগের কারিগরি ত্রুটির রক্ষণাবেক্ষণে ও সাইটটির মান উন্নয়ণে  ব্লগকে সূরক্ষা রাখতে  সোনেলা ব্লগ তাকে ক্রেস্ট উপহার দিয়ে  সন্মাননা জানান।

এম ইঞ্জা ঃ সোনেলার সোনালী মানুষ।মেধা-বুদ্ধমত্তা ও সহযোগীতার ধৈর্য্য সবিই সোনেলার এ ব্লগারের মাঝে বিদ্যমান।তার স্নেহ আর ভালবাসায় সিক্ত সোনেলার ব্লগাররা।তার অনুপ্রেরণায় সোনেলা এখন আগের যে কোন সময়ের চেয়ে জনপ্রিয়তায় অনেকটা এগিয়ে আছে।চলাচলে শারীরিক অক্ষমতাকে তুচ্ছ করে সোনেলাকে ভালবেসে বরাবরের মত এবারও  ২০২০ এর মিলন মেলায় যথা সময়েই উপস্থিত হয়েছিলেন।আমরা এক সাথে সোনেলা মিলন মেলা ২০২০ এর ব্যানারটি দেয়ালে গাঁথি।সোনেলা ব্লগ কর্তৃপক্ষ সোনেলার শক্ত হাতের এডমিন হিসাবে ক্রেস্ট উপহার দিয়ে তাকে বিশেষ সন্মাননা জানান।উপস্থিত ব্লগারদের তার স্বভাবসুলভ বক্তিতায় সোনেলাকে আপণ করে নিয়ে সোনেলার পাশে থাকার আহবান জানান।

তৌহিদ ইসলাম ঃ সোনেলা ব্লগে বলা যায় একটা রত্ন তিনি।ব্লগকে ভালবেসে রাতের ঘুম হারাম করে ব্লগকে জনপ্রিয়তার শীর্ষে নিয়ে এসেছেন।তিনি শুধু একজন সফল ব্লগারই নন তিনি একজন সূলেখকও বটে। তার লেখাগুলো পড়লে পড়তেই মন চায়।সমসাময়িক লেখা সহ গল্পে গদ্যে কবিতায় সাহিত্যের সব শাখায় বিচরণ তার।এবারের মিলন মেলায় অনেক আশা ছিলো ভাইটির সাথে দেখা হবে।বিধি বাম হলে যা হয় আর কী৴তার ইচ্ছে থাকা সত্বেও পারিবারিক বিশেষ কাজের জন্য রংপুর হতে ঢাকায় আসা আর হয়ে  উঠেনি।তবুও আমারা আশা ছাড়িনি একদিন হয়তো হবে দেখা।ব্লগকে জমিয়ে রাখতে শক্ত হাতের এডমিন হিসাবে ব্লগ কর্তৃপক্ষ তৌহিদ ইসলাম সন্মাননার স্বারক ক্রেস্ট উপহার ঘোষনা করেন।অনুপস্থিত থাকায় উপহারটি পাঠিয়ে দেয়া হবে বলে ব্লগ কর্তৃপক্ষ জানান।

মনির হোসেন মমি ঃ লিখতে জানেনা না তবুও লেখার চেষ্টা করেন ব্লগার মনির হোসেন মমি।সোনেলার দুঃখে সুখে সব সময় পাশে থাকবে এই নিশ্চয়তা ২০২০ এর মিলন মেলায় পরিচয় পর্বেই দিয়েছেন।ব্লগের সকল এডমিনদের সাথে সংযোগ রেখে ব্লগকে আরো কীভাবে জনপ্রিয়তা করা যায় তারই ফলস্বরূপ ব্লগ কর্তৃপক্ষ তাকে সন্মাননার ক্রেস্ট উপহার দিয়ে সন্মানীত করেন।

 

ভাবনায়’ সন্মুখে পাখি বিষেজ্ঞ ফটোগ্রাফার প্রিয় শামীম চৌধুরী

শামীম চৌধুরী ঃ একটি ফেবুক গ্রুপে তার সাথে আমার প্রথম দেখা।একটু অবাকই হয়েছিলাম ভাবছিলাম বিশাল এক ক্যামেরা নিয়ে যিনি দিন রাত পাখিদের পিছনে দৌড়ে বেড়ান।যার ছবি লেখা সহ দেশের বিখ্যাত রাইজিং বিডিতে প্রকাশ পায় আমার মত ছোট মানুষ কী তার কাছে ভীরতে পারবে? বাস্তবতা বলে অন্য কথা- কালো মোটা গোঁফওয়ালা ব্যাক্তিটির হৃদয় সংস্পর্শে জানলাম,তিনি একজন অত্যান্ত সহজ সরল বন্ধু সুলভ একজন মানুষ।সোনেলায় এসে খুব অল্প কয়দিনেই বেশ আপণ হয়ে উঠলেন।এবারের ২০২০ সোনেলা মিলন মেলায় তিনি এলেন,ধন্য করলেন আমাদের।পরিচয় পর্বে তার কথা শুনে খুবই ভাল লাগল-সোনেলার অর্থনৈতীক উন্নয়ণ সহ যে কোন প্রয়োজনে পাশে আছেন, পাশে থাকবেন বলে জানান।আমরা সোনেলা ব্লগাররা ফটোগ্রাফার হিসাবে রিসেন্টলি তার বন জঙ্গল ট্যুর সম্পর্কে জানতে পারব।

সুপায়ন বড়ুয়া ঃ যথা সময়েই উপস্থিত হয়েছিলেন সোনেলা ব্লগের বিচিত্র রকমের লেখার ব্লগার সুপায়ন বড়ুয়া।ব্লগারদের মাঝে অনেকটা নতুন হলেও সাহিত্য জগতে বিচরণ তার বহুকালের।ইতিমধ্যে সোনেলায় তার লেখনীর কৌশলে সকল ব্লগার-পাঠকদের মন জয় করে নিয়েছেন বিশেষ করে সমসাময়িক বিষয় নিয়ে তার ছন্দময় কবিতা সময়কে থমকে দেয়।অসাম্প্রদায়ীক, প্রতিবাদী,মানবতাবাদী ও সাহিত্যানুরাগী এই মানুষটিকে দেখার খুব সখ ছিলো।স্রষ্টা তা পূরণ করেছেন সেজন্য স্রষ্টার প্রতি শুকরিয়া।

 

সন্মুখে প্রিয় প্রবীন ব্লগার মাহবুবুল আলম এবং নতুন সদস্য- রুবেল চান বেপারী

মাহবুবুল আলম ঃ সোনেলার প্রবীন এবং পুরাতন ব্লগার জনাব মাহবুবুল আলম।কবি-কথাসাহিত্যিক, কলামিস্ট ও শিক্ষাবিদ মাহবুবুল আলম, ১৯৫৯ খ্রীষ্টাব্দের ১ জানুয়ারী, কুমিল্লা জেলার তিতাস উপজেলাধীন হাইধন কান্দি গ্রামের সম্ভ্রান্ত মোল্লা পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন।লেখালেখির জীবনেও রয়েছে তার বর্নিল অধ্যায়।সত্তর দশকের গোড়ার দিকে তিনি সিলেট সমাচার, যুগভেরী, বাংলার বার্তাসহ বিভিন্ন পত্রিকা সাময়িকীতে ছড়া, কবিতা গল্প ফিচার লিখে তার সাহিত্য প্রতিভার বিকাশ ঘটান। সাথে সাথে সাহিত্যাঙ্গণের সম্পাদক হিসাবে মৌলভী বাজারের সমসাময়িক সাহিত্যানুরাগীদের মুখপাত্র সাহিত্যের কাগজ ‘প্রসূন’ সম্পাদনা করেন।তার প্রকাশিত গ্রন্থসংখ্যা: ৩৮টি-উপন্যাস-৮, কাব্যগ্রন্থ-৯, ছড়ার বই-৩, কলাম সমগ্র-৫, নাটক-৭, গবেষনা-২, শিশুতোষ-২, প্রবন্ধ-নিবন্ধ-২টা।পুরষ্কার: সাহিত্যক্ষেত্রে অবদানের জন্য তিনি কবিতাঙ্গন এ্যাওয়ার্ড (২০০৭), ড.মমিনুল হক একাডেমি ইউ.কে এ্যাওয়ার্ড (২০০৮) সংশপ্তক বঙ্গবীর ওসমানী পদক, অলইন্ডিয়া চিলরেন্ড লিটারারী ফউন্ডেশন ‘উৎপল হোমরায়’ স্মৃতি পুরস্কার-২০১২ ও ভারতের পূর্ব মেদিনীপুরের কবি ও কবিতা পত্রিকা সন্মাননা-২০১২, দুইবাংলা কবিতা উৎসব সন্মাননা-২০১৩, সাপ্তাহিক কালপুরুষ পত্রিকা সন্মাননা-২০১৩সহ বিভিন্ন পদক ও সম্মাননায় ভূষিত হয়েছেন।সোনেলায় তাকে সহ ব্লগার হিসাবে পেয়ে আমরা গর্বিত।সোনেলা ব্লগ কর্তৃক ২০২০ মিলন মেলায় তাকে পেয়ে আমরা নিজেদের ধন্য মনে করছি।পরিচয় পর্বে সোনেলার জন্য তার মুল্যবান সাজেসনগুলো আমরা মনে রাখব।

 

ওয়াল ঘেষে ক্রীয়েটিভ ব্লগার তীর্থক আহসান রুবেল ব্লগার কবি ছাইরাছ হেলালের সাথে বিশেষ আলোচনায়।

তীর্থক আহসান রুবেল ঃব্লগার তীর্থক আহসান রুবেল এর সাথে প্রথম দেখা হয় ২০১৪ সালে তখন আমি ছিলাম নতুন এবং ব্লগের কোন মিলন মেলায় অংশগ্রহন করা প্রথম।সেই সময়ই সহ এ ব্লগারের সাথে কথা হয়,হয় আড্ডা।তার কথার বচন ভঙ্গি এবং ধরণ দেখে তখনি বুঝতে পেরেছিলাম তিনি একজন ক্রীয়েটিভ মানুষ।তিনি টেলিভিশন প্রডিউসার, ফ্রিল্যান্স নির্মাতা (বিজ্ঞাপন, নাটক, ডকুমেন্টারী, চলচ্চিত্র) এবং স্ক্রিপ্ট রাইটার।কর্ম ব্যাস্ততার ফাকে সময় দেন লেখালেখি এবং সামাজিকতায়।২০১৪ সালের মিলন মেলার পর এবারও ২০২০ সালের মিলন মেলায় তাকে দেখে আমার কেবলি মনে হল তিনি একটুও বদলায়নি-সেই মুখ, সেই বচন ভঙ্গি শুধু বদলেছে গাল ভর্তি দাড়িমোছ।পরিচয় পর্বে তিনি প্রস্তাবিক সোনেলা ব্লগের অর্থনৈতিক উন্নয়ণের দিকগুলো চমৎকার ভাবে বর্ননা করেছেন।

 

সন্মানীন এডমিন ইঞ্জা ভাইজানে পূর্বে বাম হতে প্রথমে প্রিয় ব্লগার সাহিত্যিক হালিম নজরুল

হালিম নজরুল ঃ সোনেলার ব্লগার হালিম নজরুল।হালিম নজরুলকে শুধু ব্লগার বললে খুব কম হয়ে যায় তিনি সাহিত্যের অনুরাগী।সাহিত্যের সর্বোত্রই তার বিচরণ।কবিতায়,গল্পে,উপন্যাস প্রবন্ধে সর্বোক্ষেত্রেই তার সমান দক্ষতা।এবার ২০২০ বই মেলায় প্রকাশিত হয় ভুতের স্কুল নামে একটি বই যেখানে মানবিক উন্নয়ন, সামাজিক মূল্যবোধ প্রতিষ্ঠা, পারিবারিক দায়বদ্ধতা, সমাজসংস্কার ও নৈতিকতার শিক্ষা নিয়ে নির্মিত দশটি গল্প রয়েছে।তার আরেকটি বড় গুণ বা নেশা বলা যায় গড গিফটেড তা হল আবৃর্তি করা।আমার একবার সৌভাগ্য হয়েছিল তার আবৃর্তি শুনার।চমৎকার ভরাট গলা।কবিতা আবৃর্তি বার বার শুনতে মন চায়। সোনেলায় এবারের মিলন মেলায় তার উপস্থিতি সোনেলাকে ধন্য করেছে।

 

প্রথমজন প্রিয় আসিফ ইকবাল এর পর দুলাভাই ও বীথি আপু

আসিফ ইকবাল ঃ প্রিয় ব্লগার সাহিত্যিক সোনেলার খুবই পরিচিত মুখ।তিনিও এসেছিলে ব্লগ মিলন মেলায়।তার সান্নিধ্যে সোনেলা ধন্য।এবার ২০২০ বই মেলায় ২১ ডিসেম্বর নামে তার একটি কবিতার বই প্রকাশিত হয়।তার সাফল্যে আমাদের শুভ কামনা রইল।

ভাবনায় সোনেলা ব্লগ মিলন মেলা ২০২০ এর প্রথম পর্ব

চলবে..

কেউ কোথাও যাবেন না।ভাবনায় সোনেলা ব্লগ মিলন মেলা ২০২০ খুব দ্রুতই আসছে।সেই সঙ্গে থাকবে মিলন মেলায় উপস্থিত ব্লগারদের আলোচনার অংশ বিশেষ নিয়ে আড্ডা এবং আপনাদের মতামত প্রকাশের সুযোগ।
লেখায় ভুল ত্রুটি ও জানার গ্যাপ থাকলে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন।

ছবিগুলো তুলেছেন ঃ ব্লগার কবি নাসির সারোয়ার

২৫৪জন ৫৪জন
54 Shares

২৩টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ