ব্রেনি ফিরিঞ্জি

আরজু মুক্তা ৭ এপ্রিল ২০২১, বুধবার, ০৯:৩০:১৭অপরাহ্ন রম্য ২৩ মন্তব্য

কবি সাবিতের চোখ খুলছে না দেখে ব্রেনি ফিরিঞ্জি জোরে চেয়ার টেনে বসলো। একটু খকখক করে কাশলো।

” না বেটা কুম্ভকর্ণ। ঘুম ভাঙ্গে না। ”

এবার চোখের কাছে মুখ নামিয়ে ফুঁ দিলো। চমকে সাবিত সাহেব বললো, ” কে? কে? ”

: ভয় পেলি রে শালা ?

: কে রে তুই ?

: শুধু কে কে করছিস ? ডব্লিউ, এক্স, ওয়াই জেড বলে শেষ কর।

: কি করে?

: কী কি করে?

: আমার রুমে ঢুকলি কেমন করে?

: আমি ঢুকিনি।

: ঢুকিনি মানে?

: বাহির থেকে আসিনি। আমি ব্রেনি।

: হি হি !  তুই তো ছেলে।

: বাদ দে হেঁয়ালি। শালা আমি ব্রেনি ফিরিঞ্জি।

: আবার হাসালি।

: আমি এতোদিন তোর ভিতরে ছিলাম।

: বললেই হলো?

: ভাব নিস না। আমার কারণেই তোর নাম।

: মানে?

: মানে হলো, তুই যতো কিছু করে খ্যাতি অর্জন করেছিস। এই যে এতো সার্টিফিকেট, ক্রেস্ট, টাকা…… সব তো আমাকে ভাঙ্গিয়ে।

: তুই আমাকে ছেড়ে দে। এই নে আলমারির চাবি। যা মন চায় তাই নে।

: গাধা রে। আমি কি ডাকু বনহুর?  আমি ব্রেনি ফিরিঞ্জি।

: কই কে আছো?  এই কুদ্দুস?

: ড্রামা থামা মামা। বোঝার চেষ্টা কর।

: আমি কিন্তু পালাবো।

: হা হা। আয় ‘ছি বুড়ি’ খেলি। কে জেতে?

এবার সাবিত সাহেব স্থির হয়ে বললো, ” তা তুই বাহিরে কেনো?”

: এতোক্ষণে মাথা খুললো। ব্যাটা গনেশ। আমি আর তোর সঙ্গে থাকবো না। চলে যাবো।

: চলে যাবো মানে?  সকাল বেলা তোর রসিকতা।

: রসিকতা মনে হচ্ছে?  তুই তো ছড়াকার।  আয় মিলঝিল খেলি। আমি একটা শব্দ বলবো, তুই পরেরটা মিলিয়ে বলবি।

: এটা কোন ব্যাপার।

মুচকি হেসে ব্রেনি বলে, হাসু। এই শব্দের সাথে মিল দে।

সাবিত সাহেবের মাথা আউলায় গেলো। বললো, কচি।

ফিরিঞ্জি বললো, দেখলি তুই ও কচি গরু হয়ে গেছিস। এখন বুঝলি তো আমি তোর বস। আমি ছাড়া তুই ঢোরা সাপ।

: কিন্তু তুই বের হইলি কেমনে?  আমি তো ২০২৪ শে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর হবো।

: হাদারাম। মৌজ করে বেরাও। বিকালে কফি। সকালে সাজেক। আমি মুখে আঙ্গুল চুষি।

: কি মুশকিল ! এ্যাবসারড ! আমি আসলে এগুলো জানতাম না।

: শোন, এইসব ঢং বাদ দে। আমি চললাম খিদা পেয়েছে।

: আরে শোন,  আমার বইটা শেষ হয়নি। এইবার বইমেলায় বেরোবে।

: গজা, পরের জন্মে বের করিস। ঘুমা বেশি করে।

আকবর, সাবিতের বন্ধু ফোন দিলো।” কি রে, তোর ছবি টবি দেখছি না ফেসবুকে। নতুন কিছু আপডেটও নাই। ”

ধুৎ শালা বলে লাইনটা কেটে দিলো, সাবিত সাহেব।

বাসা থেকে ফোন।

হ্যালো মা !

খবর কী বাবা?

কবিতা লিখতে পারছি না !

তো কী হয়েছে?  সংবাদ সম্মেলন করে বলে দে, রিটায়ার্ড করেছি আর কবিতা লিখবো না।

আবারও ফোন কেটে দিয়ে, ভাবলেন ঐ বেটা ব্রেনিকে খুঁজে বের করতে হবে।

খুঁজতে খু্জতে দেখেন, টেক্সটাইল মোড়ের এক টং এর দোকানে বসে চা খাচ্ছে। দৌড়ে গিয়ে বললো, অনেক হয়েছে। বাসায় চল। দেয়া আর নেয়াতে আয়।

: ও হুশের নাড়ি তো টনটনে। এতোদিন আমি শুধু দিয়েছি দিয়েছি দিয়েছি। তুই নিয়েছিস।

: ওকে। এখন থেকে গিভ এণ্ড টেক। বল কী খাবি?

: বিরিয়ানি আর কোক খাবো। সাথে একটা গোল্ড লিফ ও দিস।

এবার ফিরিঞ্জিকে ধরে এনে চেয়ারের সাথে বাঁধলো।

: এবার  কেমনে পালাবি ?

: এভাবে বাঁধলি কেনো ?

: তাহলে কন্ট্রিবিউট কর।

: না করবো না।

: আমিও লিখবো না। আমি ও মরবো। তুই মর।

: ইস, যেখানে যেখানে দড়ি, সেখানে সেখানে চুলকাচ্ছে।

কলমের হেড দিয়ে চুলকায় দিলেন সাবিত সাহেব।

: শোন, আমার একটা কথা মানলে ; আমি আবার তোর কথা শুনবো।

: বল।

: তোর প্রেমিকাকে আমার মনে ধরেছে। আমি ওর সাথে থাকতে চাই।

: কি বলিস এসব !!

: হ্যাঁ, তুই প্রেম করলি এতো বছর। এবার আমার পালা।

শেষ পর্যন্ত ফিরিঞ্জিকে বাসায় রেখে সাবিত সাহেবই পালালেন।

 

 

 

 

 

৫৫৭জন ১৬২জন
71 Shares

২৩টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ