বোধ

রিমি রুম্মান ৭ ফেব্রুয়ারী ২০১৫, শনিবার, ১২:৪০:৪৬অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ৩২ মন্তব্য

কুইন্স ব্লুবার্ডের রেড লাইটে অপেক্ষায়। ডান দিকে শতশত সমাধি ফলকের দিকে তাকাতেই গাড়ীটির দিকে চোখ যায়। এই কন্‌কনে ঠাণ্ডায় গাড়ীটির গ্লাস নামানো। একটি কুকুর মাথা বের করে তাকিয়ে আছে। ড্রাইভিং সিট থেকে কেউ উচ্ছ্বসিত কণ্ঠে ডাকলো, কুশল জানতে চাইলো। চেনা স্বর। আমিও উচ্ছ্বসিত। চেঁচিয়ে বলি জেসিকা ! একটু হাই হ্যালো’র মাঝেই গ্রিন লাইট জ্বলে উঠলো। কতদিন পর এক ঝলক দেখা ! ষাটোর্ধ জেসিকা কোরিয়ান। অনেক আগে আমার কলিগ ছিল। আমাদের অনেক গল্পগুজবের সুন্দর সময় কেটেছে একদা…

ধৈর্য সহ্য ক্ষমতা, মানিয়ে চলার মানসিকতা নেই তাঁর। অল্পতেই কারো না কারো সাথে বিবাদে জড়িয়ে পড়তো। লাঞ্চব্রেকে গল্প করার সময় আমি তাঁর খিটমিটে মেজাজের উল্টো পিঠে সুন্দর একটি মানুষকে, মনকে দেখতে পেতাম। দুই সন্তানের জননী জেসিকা জীবনের কোন এক সময়ে তৃতীয়বারের মত মা হতে যাচ্ছিলো। কিন্তু স্বামী-স্ত্রী কারোরই তা কাম্য ছিল না। বিধায় সে শিশুটি আর পৃথিবীর মুখ দেখেনি। প্রায়ই জেসিকা এটি নিয়ে তীব্র এক অপরাধ বোধে ভুগতে থাকে। তাঁর ধারনা, সে একটি শিশুকে হত্যা করেছে। শিশুটি বেঁচে থাকলে এতদিনে এত বছর হতো… অমুক ক্লাসে পড়তো। রোজ মধ্যরাতে আচ্‌মকা ঘুম ভেঙে গেলেই নাকি সে কোন একটি মেয়ে শিশুর কান্নার শব্দ শুন্‌তে পায় ! আবার কোন দুঃসময় এলেই ভাবে, এটা তাঁর পাপের ফল। এসব শুনে শুনে আমার মনে হতো__ জেসিকা কি কোন মানসিক সমস্যায় ভুগছে ! একটি অপরাধ মানুষের গোটা জীবনকে এমনভাবে তাড়িয়ে বেড়ায় !

অথচ, এতো এতো জীবন্ত মানুষ হত্যা করেও অপরাধ বোধ হয়না অনেকের…  🙁

৩৬৬জন ৩৬৬জন
0 Shares

৩২টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ