বৈশাখী প্রেম—

অরুণিমা মন্ডল দাস ২৪ এপ্রিল ২০১৭, সোমবার, ০৩:৩৫:৪৭অপরাহ্ন গল্প ৭ মন্তব্য

গাঁয়ের নাম সজলপুর । ছোট্ট গ্রাম । এখনও খুব একটা উন্নতির ছোঁয়া পায়নি । তবে আস্তে আস্তে উন্নত হচ্ছে সেটা বলা যেতেই পারে । ছোট ছেলেমেয়েদের জন্য স্কুল ,হাসপাতাল ,অঙ্গনওয়ারী ,বিদ্যুত,টাইমকল –সবকিছুই হয়েছে –এই গঁায়ের ছেলে মেয়েরা শহরে ডাক্তারী ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ছে –এর থেকে আনন্দের সংবাদ আর কি হতে পারে–?

মাঠ ভরা ধান দেখলে আসলে গ্রাম টা পুরোটা ঘুরে ঘুরে দেখলে সবারই মন ভরে যাবে । পয়লা বৈশাখ আসলে গ্রামের চেহারাটা বেশ খানিকটা পাল্টেই যায় ¡ সবাই নতুন পোশাক পরে । কপালে চন্দনের ফোঁটা লাগিয়ে একে অপরকে শুভেচ্ছা জানায় । বড়দের প্রনাম করে আর কোলাকুলি করে শুভেচ্ছা বিনিময় করে ।
গঁায়ের মিষ্টি মেয়ে ভাদু । শহরের কোনো নামকরা স্কুলে পড়তে গিয়েছিল । বাড়ি এসছে । বাড়ির লোকের আনন্দই ধরে না । ভাদু সকাল থেকেই ব্যস্ত । গঁায়ের সবার বাড়িতে গিয়ে মিষ্টি খাচ্ছে আর প্রণাম করছে । আজ যে বৈশাখের প্রথম দিন । সে আজ খুব খুশি । তঁার সবথেকে প্রিয় পোশাক পরে বাড়িময় ঘুরছে । ওদিকে তঁার ছোটবেলার পাড়াতু দাদা হঠাৎ করে জাপটে ধরে মাথায় আবীরে লাল করে পালিয়ে গেল !
ভাদু তো বেজায় চটে গেল । তঁার অতো সুন্দর সখের জামাটা নষ্ট করে দিল ! লাল্টুদা টা ভারী সয়তান ”–এই বলে রাগে গজগজ করতে করতে বাড়ির ভিতর চলে গেল । ভাদুর ওই অবস্থা দেখে কাকাতু দিদি ভাই বোনদের কি হাসি!
আপনাদের এবার একটা জিনিস জানার খুব প্রয়োজন সেটা হল এই লাল্টুদা কে? লাল্টুদা হল ভাদুর খুব পুরোনো বন্ধু । ভাদু পঁচিশ বছর বয়স অবধি যে পুরুষটার সংগে বেশি কথা বলে,সময় কাটায় হাসাহাসি মস্করা করে – ভাদুর জীবনের খুব খুব ভালো বন্ধু হলেন এই লাল্টু মহাশয়। লাল্টুদা সবে গ্র্যাজুয়েট । একটা ছোটো কোম্পানিতে কাজ করে ।

লাল্টুদাকে ভাদু মনে মনে খুবই পছন্দ করে । গতবছর এই সময় ই তঁাদের প্রেম তাই এই প্রেমের নাম বৈশাখী প্রেম বলতেই পারেন । লাল্টু একটু রসিক টাইপের মানুষ । আবার রেগে গেলে বড্ড ক্ষেপে যায় এই এক দোষ । সংসারে তাই রাগী মানুষদের জীবন কখনও ভালো হয় না । উৎপটাং ঝামেলা লেগেই থাকে।
আগের বছর পয়লা বৈশাখ তঁারা দুজন এক বাড়িতে বসে হঠাৎ ই প্রতিজ্ঞা করে যে একে অপরকে ছেড়ে কেউ কোনদিন থাকবে না । কিন্তু একটাই দুঃখ লাল্টুদের বাড়ির অবস্থা খুব ভালো নয় । পঁাচ ভাই । চারজন ভাই দিনমজুরের কাজ করে । কোনরকমে সংসার চলে সবার ,লাল্টুকেই দেখতে হয় সবকিছু । লাল্টু বিয়ে করে নিলে দাদা বৌদিদের দেখবে কে? বাচ্চাদের পড়াশোনা ?এই সবকিছু চিন্তা করতে করতে লাল্টু র মাথা ভারী হয়ে ওঠে !ভাদু যে কিছু বোঝে না তা নয় ! সে বাপের একমাত্র সন্তান । অনেক আদরে মানুষ তাই তঁার অতো দুঃখ কষ্ট সহ্য করার ধৈর্য্য ইচ্ছা কোনটাই নেই?

এই পয়লা বৈশাখে দুপুরবেলা এক আমগাছের তলায় দঁাড়িয়ে দুজনের কথা হচ্ছিল । পাড়ার ই দুই ছেলেমেয়ে তাই কেউ ই কিছু সন্দেহ করতে পারল না । উল্টে লাল্টুকে ভালো ছেলে বলেই সবাই জানত। আমগাছের তলায় কিছুসময়ে জন্য যেন এক রমনীয় সুন্দর হাওয়া বইতে লাগল । চারিদিকে শুকনো ডাল ঝরে পড়ল । দুই প্রাপ্ত বয়স্ক যুবক তরুন তরুনী র অতৃপ্ত কামনাতে চারিদিক জ্বলে উঠল । দুজন দুজনের দিকে তাকিয়ে অনেকক্ষন । আজ অনেকদিন পর যেহেতু দেখা লাল্টু ভাদুকে এক সেকেন্ডের জন্য চোখের আড়াল করতে চাইত না । ভাদু অনেকক্ষন তকিয়ে থাকার পর বলেই ফেলল–“ লাল্টুদা কবে বিয়ে করবে–? একবছর হল ওদিকে বাবা বলেছে পড়া শেষ করলেই বিয়ে দিয়ে দেবে–¡
লাল্টু এই প্রশ্নটির ভয়েই গা ঢাকা দিয়ে বেড়ায় হঠাৎ ভ্যাবাচ্যাকা খেয়ে বলল বিয়ে–? ভাদু তুমি আমার অবস্থা জানো তো আমি কি করে–?

জানোই তো দাদারা আমাকে দেরী করে বিয়ে করতে বলেছে আমি কি ভাবে ? বল–?

ভাদু অনেকটা ভেঙে পড়ল “ আজকের বছরের প্রথম দিন এই দিন প্রোপোজ করেছিলে মিথ্যে করেই না হয় বলতে পারতে বিয়ে করব–?

বলেই কান্নাতে ভেঙে পড়ল । লাল্টু খানিকটা বেসামাল হয়ে পড়ল । কান্না থামানোর অনেক সাধ্যসাধনা করতে শুরু করে দিল । বেশকিছুক্ষন পর লাল্টু একটা সোনার আংটি ভাদুকে পরিয়ে দিয়ে বলল আমি প্রতিজ্ঞা করলাম বিয়ে যদি করি তোমাকেই করব–”—এবারে তো একটু শান্ত হও, তোমাকে দুঃখী দেখতে পারি না–”
পয়লা বৈশাখে ওই শেষ দেখা দুজনের । ভাদু দুদিন পরেই হোস্টেলে চলে গেল । আর লাল্টু চাকরির জীবনে । ভাদু ফোন করলে লাল্টু কথা বলত না । লাল্টু পরে ফোন করলে ভাদু রেগে কথা বলত না । এমনি করেই মাসের পর মাস কাটতে লাগল । ভাদুর ফাইনাল পরীক্ষা শেষ হল । এবারে সে বাড়ি ফিরবে আর লাল্টুকে বিয়ে করে নেবে । কিন্তু হায় !ভাগ্যের কি পরিহাস! পুরুষের মন কখন কোনদিকে গড়ায় বোঝা বড় মুশকিল! লাল্টু ভাদুকে না জানিয়ে বাড়ির চাপে এক অচেনা মেয়েকে বিয়ে করে নিয়েছে–!ভাদু দেখেই কিছু বলল না ,কিছু খেল ও না ,ঝগড়াও করল না ,জিনিসপত্র ভাঙচুর ও করল না, –শুধু কয়েকমিনিট থ মেরে প্রানহীন পাথর হয়ে বসে থাকল ! কিছুক্ষন পর চোখ থেকে কয়েক ফোঁটা জল ঝরে পড়ল–! পয়লা বৈশাখের সেই আমগাছ সেই বারান্দা –আজ তঁার কাছে বিষময় স্মৃতি—?জীবন্ত লাশ হয়ে দিনের পর দিন বঁাচতে লাগল ভাদু –! পরে পরিবারের চাপে বিয়ে করল বটে কিন্তু দু তিনবছর না কাটতেই বর ছেড়ে পালিয়ে গেল —! আজ ও সেই আমগাছ –পয়লা বৈশাখের দুপুর তঁাকে বঁাচিয়ে রেখেছে –এক জীবন্ত স্মৃতির সুখে—?

 

৩৯৩জন ৩৯৩জন
0 Shares

৭টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ