বুঝি গো রাত পোহাল —পর্ব- ৪

রেহানা বীথি ১৩ এপ্রিল ২০২০, সোমবার, ০৭:৫৯:১০অপরাহ্ন গল্প ২৫ মন্তব্য

ধুর শালা,  শালা বেজন্মার দল,  যত রাগ ওই ঘরগুলোর ওপর!  সব মিশমার করে দিলো চোখের পলকে!  নেশার পয়সাটাই মাটি। ভর সন্ধ্যেবেলায় নেশা করে গায়ে এমন জ্বালা ধরেছিল যে বলার না।  এসে দেখি কিচ্ছু নেই? ঘর টর ভেঙে ফেলে তাড়িয়ে দিয়েছে সবাইকে! 

কাঁদু ঠিক বুঝতে পারলো না,  লোকটা কি নেশার ঘোরে ভুল বকছে?  কার ঘর ভাঙলো? কেই বা ভাঙলো? বুকের ভেতর যেন ডুম ডুম করে উঠলো হঠাৎ।  কৌতূহল দূর করা দরকার! অন্ধকারে আবছা লোকটা ততক্ষণে পাশ কাটিয়ে গেছে। কিছুটা পিছিয়ে এসে জানতে চাইলো কাঁদু,  

কোন ঘর ভেঙেছে,  আপনি কি পরিষ্কার করে বলবেন আমাকে?   থমকে দাঁড়ায় টলমলে লোকটা।  অন্ধকারেও বোধহয় অনুমান করতে পারে কাঁদুর বয়স।  বলে,  

তুমি কে গো ছোকরা?  এই বয়সেই ওসব পাড়ায় যাতায়াত শুরু করেছো?  ভালো ভালো….. শুরু করলে আগেই করা উচিত! আমার বয়সে যেতে যেতে তুমি অভিজ্ঞ হয়ে উঠবে অনেক,  হা হা হা…. 

বিরক্ত হয়ে কাঁদু বললো,  যা হবে দেখা যাবে, দয়া করে বলুন তো কি হয়েছে?
হবে আবার কী!  ওই যে রাস্তার মেয়েমানুষগুলো ঘর তুলে ব্যবসা করছিল,  ওটা তো সরকারি জায়গা। ওখানে কেন থাকবে ওরা? পরিবেশ নষ্ট!  তাই ঘর ভেঙে ফেলে তাড়িয়ে দিয়েছে ওদের। আসলে কি জানো, বনিবনা হয়নি বোধহয়,  ওই শালার পুলি…… 

আর শোনার দরকার নেই।  কাঁদুর বুকের ভেতরটা হু হু করে উঠলো।  তাড়িয়ে দিয়েছে? কোথায় গেছে তাহলে সুরভী,  খুঁজে যদি না পায় আর!  

শীত কোথায় উধাও হয়ে গেল যেন।  পায়ের নিচের এবড়োখেবড়ো শক্ত মাটির চটি ভেদ করে গুঁতো দেয়া উপেক্ষা করে ছুট লাগালো জোরে।  যেন ওখানে গিয়ে দেখতে পাবে সুরভী ওই ভেঙেফেলা ঘরগুলোর স্তুপে বসে আছে চুপটি করে। কারণ সুরভী তো জানে,  কাঁদু যে খুঁজবে তাকে! গভীর বেদনা যখনই ভর করে, তখন যে সুরভী ছাড়া কাঁদুর আর কোনও আশ্রয় নেই! কী এক অদ্ভুত আশায় ছুটতে ছুটতে অবশেষে পৌঁছায় কাঁদু ওখানে।  অন্ধকারেও তছনছ ঘরগুলো করুণচোখে তাকিয়ে আছে কাঁদুর দিকে। খুঁজতে থাকে কাঁদু। খুঁজতে খুঁজতে পৌঁছে যায় ধ্বংসস্তুপের পেছন দিকে। একটু আলো যেন দেখা যাচ্ছে ওখানে! 

কে আছে?  কেউ তো আছেই!  ক্ষীণ আলোয় বড় উজ্জ্বল দেখালো একটি মুখ।   সব ভয় কাটিয়ে মুখটি তাকিয়ে আছে কাঁদুর দিকে।  

রাত কত হয়েছিল কে জানে,  সুরভীর একটা হাত শক্ত করে ধরে কাঁদু বললো,  চলো!
মেয়েটা ঠিক বুঝতে পারেনি।  বললো, কেন… কোথায়?

চলবে…..

বিঃদ্রঃ গল্পটা একটু বড়।  ধৈর্য ধরে যারা পড়ছেন কৃতজ্ঞতা জানাই তাদের ।  তবে আর বেশি ধৈর্য ধরতে হবে না ,  আগামী পর্বেই শেষটুকু দিয়ে দেয়ার চেষ্টা করবো।  আশাকরি সাথে থাকবেন সবাই।  ধন্যবাদ সবাইকে ।।

 

২০১জন ৭৮জন
0 Shares

২৫টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য