বিস্মরণের তিন

বন্যা লিপি ১৬ জুন ২০২২, বৃহস্পতিবার, ০২:৩৪:৫৮পূর্বাহ্ন একান্ত অনুভূতি ১৪ মন্তব্য

 

রোদ্দুর ছুঁতে চেয়ে/

একটা অনাড়ম্বর দিন জেগে উঠেছিলো দোয়েলের ঠোঁটে শিষ দিয়ে।
জানালার কার্নিশে ভর করা রোদ্দুর ছুঁয়ে নেমে এসে বলে গিয়েছিলো….গতকাল বিদায় নিয়ে চলে গ্যাছে……
আজকের আলোটুকু ধার করে নিয়ে এসে বলে যাই…. আগামীকাল ও এমনি করে আসব কিনা জানি না;
আজ তুমি ধার করা আলোয় হয়ে ওঠো ঋনী….
এটুকুই তোমার জন্য দামী।
আমি তাই রোদের ছায়া মাখি ধার করা একজীবন ব্যাপী……।

সঞ্চয়ী জল/

চোরা স্রোতে যে নিজেকে ডোবায় / ভাসায় সেই জানে কে কতটা অপরাধী!
আমি দুঃখ বিলাসী নই,
লালন করি যত্ন কিংবা অযত্ন
অবহেলা গুলো ভুলে থাকিনা,
থাকি দূর্মূল্য খরার পূর্বাভাসে।
আমার  মরুভূমি নয়….
মেঘের নীচে বৃষ্টিও খরায় ডোবে।
হলুদ হলে পাতারাও আঁকড়ে ধরে বৃক্ষের শাখা….
আমি টেনে ছিঁড়ে সরিয়ে দিই বাদামী পাতার শরীর।
যাযাবর বলে যায়,  তার কোনো ঘর নাই…. পরের শুন্য কেড়ে নিয়ে সংখ্যা বাড়াতেই তাঁর বিলাসী দুঃখের অহং।
আমি চোখ পেতে দিই বিনা মূল্যের জল সঞ্চয়ে…..

ভোরের জানলা/

আমার কপাল ছুঁয়েছিলো আধখানা চাঁদের রোশনাই….
আধেক জোছনার সনাতনী আলোয় বিন্যস্ত পথের রেখা ধরে হেঁটে গেছি আলো আঁধারির আবছায়া / গন্তব্যের দিকে;
তিন পহরের নিদান কালে জেঁকে বসা শীত এসে পায়ের তলায় ঠাঁই নিতে চাইলো!
আরো দূর রয়ে গেছে যে নদী! তার কিনারে পৌঁছতে এখনো অনেক পথ হাঁটা বাকি।
আলোর লন্ঠন ঝুলে আছে পোড়ো দালানের কড়িবর্গায়….
আধেক চাঁদ নেমে যাচ্ছে আরেক ভোরের জানালায়……

ছবিঃসংগ্রহ।

১৬২জন ১৪জন
0 Shares

১৪টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন






ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ