বিভাজন….//

বন্যা লিপি ২৭ মে ২০২০, বুধবার, ১২:০৪:২৮পূর্বাহ্ন বিবিধ ১৬ মন্তব্য

অতি ক্ষুদ্র অংশে তার সন্মানের চিরনির্বাসনে সমাজের উচ্চ মঞ্চে বসেছি সংকীর্ণ বাতায়নে’

মূল ভাবঃ সন্মান বঞ্চিত ব্রাত্যজনতা থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে সমাজের উচ্চ মঞ্চে কবি আসন গ্রহন করেছেন। তাই সেখানকার সংকীর্ণ জানালা দিয়ে বৃহত্তর সমাজ ও জীবনকে তিনি দেখতে পারেন নি।

উপরের লাইনদুটো রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের। কবি এই কবিতাটি লিখে গিয়েছেন তাঁর মৃত্যুর চারমাস আগে ১৩৪৮ বঙ্গাব্দের পহেলা বৈশাখ ‘জন্মদিনে’ কাব্যগ্রন্থটি প্রথম প্রকাশিত হয়। ১৩৪৭ সালে বঙ্গাব্দের ফাল্গুন সংখ্যা ‘প্রবাসী’কবিতাটি ‘ঐকতান’-নামে প্রকাশিত হয়। ‘ঐকতান’ আত্মসমালোচনা মূলক কবির নিজের অপূর্ণতার স্বতঃস্ফূর্ত স্বীকারোক্তি।

*****************************

দোকানে কেন এ দর কষাকষি? – পথে ফোটে তাজা ফুল! তোমাতে রয়েছে সকল কালের জ্ঞান, …………………..

তোমাতে রয়েছে সকল ধর্ম, সকল যুগাবতার,’

উপরিউক্ত লেখা কবি  কাজী নজরুল ইসলাম এর।

টিকাঃ সকল শাস্ত্র…দেখ নিজ প্রাণ–

মূল ভাবঃ ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের প্রধান ধর্মগ্রন্থ কোরআন শরীফ,হিন্দুদের বেদ,খ্রিষ্টান সম্প্রদায়ের বাইবেল- এভাবে পৃথিবীর নানা জাতির নানা ধর্মগ্রন্থ। কবি এখানে বলতে চেয়েছেন সকল ধর্মগ্রন্থের মূলমন্ত্র মানুষের হৃদয়ের মধ্যেই সংকলিত আছে তা হচ্ছে মানবতা বোধ, সমতার দৃষ্টিভঙ্গি।

১৯২৫ খ্রিষ্টাব্দে প্রকাশিত ‘সাম্যবাদী’ কাব্যের অন্তর্ভুক্ত এ কবিতাটিতে বৈষম্যবিহীন অসাম্প্রদায়িক মানব সমাজ গঠনের প্রত্যাশা ব্যক্ত হয়েছে।

নজরুলের এই আদর্শ আজও প্রতিটি সত্যিকার মানুষের জীবনপথের প্রেরণা।

গতকাল গেলো বাংলকদেশের জাতীয় কবি নজরুল ইসলামের ১২১ তম জন্মবার্ষিকী। ছিলো করোনা নিবন্ধিত বিশ্বে ঈদুল ফিতর। ঘটা করে উদযাপন করা হয়নি কবি জন্মবার্ষিকী।  ফেসবুকের নিজস্ব ওয়ালে অনেকেই কবিকে নিয়ে নিজের অনুভূতি ব্যক্ত করেছেন নিজের মতো করে। আমার কিছু চোখে পড়েছে কিছু এড়িয়ে গেছে। আমি তার্কিক নই। সাহসও নেই আমার। জ্ঞান থাকা প্রয়োজন যথেষ্ঠ তর্ক বা সমালোচনা করার মতো। কিছু  বিষয় বুঝে নেই নিজের মতো করে। কেউ কেউ আমাকে জিজ্ঞেস করেন নানা বিষয় নিয়ে।আমি আমার বোধের জায়গা থেকে উত্তর দেবার চেষ্টা করি।

যেমনঃ—-

:ঈদ মোবারক

:ঈদ মোবারক

:কোরোনা শুভেচ্ছা

:আল্লাহ্ মাফ করুন আমাদের সবাইকে-আমিন

:কেমন চলছে অন্যরকম ঈদ?

:আমার কাছে পার্থ্যক্য নেই তেমন কোনো, শুধু খাটনীটা একটু বেশি যাচ্ছে এই আর কি! তারওপর এবার প্রথম মেয়ে জামাই ঘরে…তো বুঝতেই তো পারছো!

: মেয়ে তুলে দিয়েছেন(আনুষ্ঠানিকতা)

: কোরবানী ঈদের পরে কথা ছিলো।এখন তো সব স্থগিত করতে বাধ্য হলাম।

:এখন যে পরিস্থিতী,  তাতে কবে স্বভাবিকভাবে আবার সব কিছু ঠিক হবে, তা বলা মুশকিল।

:সেটাই….

:মেয়েরে কন আর কাম নাই

: মেয়ে মানবে না।একবছর পর হলেও আল্লাহ্ বাঁচালে তাঁর প্রোগ্রাম লাগবেই।

: আচ্ছা – আপনি তো লেখক মানুষ, তাই আপনার কাছে একটা ব্যাপার জানতে চাই।

:কি বিষয় জানতে চাও,আমার জ্ঞানগম্মি কিন্তু খুব খাটো ভাই😊

:ব্যাপারটা হলো -হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষজন নজরুল ইসলামকে মন থেকে মনে হয় সবাই একটু কম পছন্দ করে। হয়তো আমার ধারনা ভুলও হতে পারে।

:তোমার সাথে আমিও একমত। যেমন মুসলিম সমাজে নজরুলের যে রকম গ্রহনযোগ্যতা, ঠিক তেমনই হিন্দু সম্প্রদায়ের কাছে রবীন্দ্রনাথ সেরকম।আমিও তেমনই দেখে আসতেছি।

:কিন্তু আমরা মুসলমানরা তো কেউ রবীন্দ্রনাথের অশ্রদ্ধা করিনা!

:এটা মনে হয় সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সাম্প্রদায়িক মনোভাবের কারনেই হচ্ছে। রবীন্দ্রনাথ -নজরুল ইসলাম কে সঠিক, মননশীল,বোদ্ধারা যতটা গবেষণা বা পড়ে পড়ে জেনেছে, ততটাই বোধ করি বিশাল এক জনগোষ্ঠী দূরেই রয়েছে এসব বোঝার দিক থেকে।

আবার আমি এমনও কোনো মুসলিম নজরুল ভক্ত দেখেছি যে, নির্ধিদ্ধায় রবীন্দ্রনাথের বিরুদ্ধে যা ইচ্ছা তাই বলে গেছেন। এক শ্রেনীর মোল্লা-মৌলবি ও আছেন, যারা রবীন্দ্রনাথের নামে গুষ্টি উদ্ধার করেন শুধুমাত্র নমঃ কবি(হিন্দু) বলে।

নজরুল ইসলাম এমন কোনো সেক্টর নাই যেখানে তিনি হাত দেননাই। এমনকি হিন্দু সম্প্রদায় নিয়েও লিখেছেন।সেখানে রবীন্দ্রনাথ মানুষের আবেগ-অনুভূতি, সমাজ,সমাজের শ্রেনীবিভেদ,প্রেম-পূজা, ঋতু-সব পর্যায় নিয়ে লিখেছেন।অর্থাৎ আমার মনে হয়েছে একটা গন্ডির ভেতরেই রয়ে গেছেন তিনি। বিষয়গুলো সেখান থেকেও আসতে পারে বিপরীত মনোভাবের কারন হিসেবে।

:হিন্দু সম্প্রদায়ের পূজা পর্বের শ্যামা সঙ্গীত তো বেশিরভাগই নজরুল ইসলামের লেখা।

: সেখানে রবীন্দ্রনাথের লেখায় এমন কিছু খুঁজে পাবে যে, তিনি একটা ছোটো গল্পও লিখেছেন কিনা মুসলিম প্রেক্ষাপটে?  এই রকম তর্ক আমি প্রায়শই শুনি শুধু। তর্ক করার মতো বা বিভেদ করার মতো জ্ঞান নাই আমার। এবং এমনটাও শোনা কথা- নোবেল প্রাইজটাও কৌশলে হাতানো হয়েছে নজরুলকে সরিয়ে।

:কাঠ মোল্লাদের আর মৌলবিদের মন্তব্য যতসব না বুঝেই। হ্যাঁ- মুসলিমদের মধ্যেও অনেক আছে শুধু হিন্দু বলেই উল্টাপাল্টা মন্তব্য করে।

: কিছু কট্টর মৌলবাদ আছে যেমন,তেমন আছে কিছু কট্টর হিন্দু সম্প্রদায়, যারা আমরণ টিকিয়ে রাখবে এইরকম সাম্প্রদায়িকতা…..এটা জেনে রেখো।

: কিন্তু সংস্কৃতিমনাদের মনে তো ভেদাভেদ থাকার কথা নয়। অনেক হিন্দু শিক্ষিত যারা সাংস্কৃতির সাথে জড়িত বা যুক্ত আছেন তাদের মধ্যেও আছে নজরুলকে  নিয়ে মন থেকে পছন্দ করেন না।

: এটা তো আগেই বললাম। কতিপয় সংস্কৃতিমনা বলো আর সৃজনশীল, মননশীল যারা দুই কবিকে নিয়েই পড়াশোনা বা গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছেন-এদেরকে পাবে না এই দলে। শিক্ষিত অনেকের মধ্যে ও অনেক দেখেছি এমন বিভাজন মনোভাবের। তুমি বিশ্বাস করবে না আমি খুব কাছের আপনজনের মাঝেও দেখেছি দুই কবির মধ্যে পার্থক্য বা পছন্দ অ-পছন্দের বিষয় নিয়ে উষ্মা প্রকাশ করতে। তখন কিছুই বুঝতাম না।

: আপনি একটা পোস্ট দেখেছেন? একটু খেয়াল করে দেখেছেন? নজরুলকে নিয়ে!

: তোমাকে এই বিষয় নিয়েও যদি বলি, হয়তো তোমার ভালো নাও লাগতে পারে।

:দেখেছেন?

: তুমি যাদের কথা বলছো, সবাইকে কি তুমি একরকম ভাবছো না? আমি কিন্তু বিষয়গুলো অনেক আগে থেকেই খেয়াল করে আসছি।

: আমি আসলে এদের(সংস্কৃতিমনা) আলাদা ভাবতাম।

: কাছের মানুষগুলো সম্পর্কে আসলেই আমরা অনেক অজ্ঞ এখনো বিস্তর। আমার কাছে আলাদা লাগেনাই কিছু। খুব কাছে থেকে দেখা বোঝার সুযোগ হয়/ হচ্ছে আমার।

প্রতিনিয়ত ধাক্কা খাই তাই,ভেতরের কিছু আচরনের প্রকাশ দেখে। সে জায়গা থেকে বাদ যায়না খুব বেশি কেউই।

: আমি তো শুধু লেখালিখি দেখি- কিন্তু আজ ওই পোষ্ট দেখে একটা ধাক্কা খেলাম—

: আমি নিজস্ব অভিজ্ঞতা থেকে বলছি, আমি ভুলও হতে পারি, তবে সবটাই নিজের ভেতরে রাখি।এসব বিষয় নিয়ে কারো সাথে প্রকাশও করিনা।

: আপনি দেখেছেন পোস্ট? হয়তো আমার ভুলও হতে পারে। তাই আপনাকে দেখতে বললাম।

: এখন দেখলাম। আসলে কার লেখা কার কাছে কেমন লাগে বা লাগবে সেসব বিচারের বিষয় আমার না। আমার বোধ থেকে আমি পড়ি- আমি আমার মতো বুঝি।

কারো কারো লেখা পড়লে ভাবতে দ্বিধা হয়না, যোগ্যতা এবং ক্ষমতা অনুযায়ী যার যতটুকু সম্ভব তিনি/ তাঁরা ততটুকুই লেখায় প্রকাশ করেন। এর চেয়ে বেশি বলার কিছু নেই আমার। কেউ কেউ নিয়মিত খুব লেখেন- মনের দিক থেকে খুব টিপিক্যাল সাধারন ঘরানার চিরাচরিত বাঙালী নর/নারী’ই হয়ে আছেন। প্রচুর পড়েন, কিন্তু প্রতিফলন এসে ঠেকে গিয়ে সেই চিরাচরিত টিপিক্যালতায়।

: ওই পোস্টে কি উল্লেখ করলেন?

: বুঝিয়ে দিয়েছেন -একচেটিয়া একজনার প্রতি ভালবাসা বা খুব পছন্দের গুরুত্ব!

দুইজন কবির মধ্যে একজনকে উপস্থাপন করেছেন কিভাবে দেখেছো/ বুঝেছো?

: এজন্যই তো বললাম, পোস্ট দেখে একটা ধাক্কা খেলাম।

: আমার স্বভাব খুব খারাপ জানো!  কারো কারো মুখের ভাষা /কথা বলার ধরন খুব খেয়াল করি প্রথম থেকেই। আবার লেখার ধরনেও আঁচ করা যায় কার মনের গভীরে কতটা জল?

নিজের জন্য কিছু সুবিধা হয়ে যায় তাতে আমার………

 

 

বিঃদ্রঃ পুরো লেখাটার একটাই উদ্দেশ্য, সাম্প্রদায়িক মনোভাব শুধুমাত্র মানুষে মানুষে নয় কবি বা লেখকের  ক্ষেত্রেও বাদ যায়না। অনগ্রহ করে ভিন্ন ধর্মাবলম্বী  ভাই/বোনেরা এ লেখা থেকে মনে কষ্ট নেবেন না। আন্তরিক ভাবে ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি। সকলের জন্য শুভ কামনা।

ভালো থাকবেন সবাই।

ঈদ মোবারক।

 

 

 

 

২৯২জন ১৮২জন
0 Shares

১৬টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য