গতকাল ১৩ই জানুয়ারী দিল্লীর এক সামরিক হাসপাতালে ৯২ বছর বয়সে মারা গেছেন ভারতের সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত লেফটেন্যান্ট জেনারেল জে এফ আর জ্যাকব। ১৯৭১ সালের বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে ভারতীয় সেনাবাহিনীর পূর্বাঞ্চলীয় কমান্ডের চিফ অফ ষ্টাফ হিসেবে অভূতপূর্ব ভুমিকা রেখেছিলেন তিনি। দীর্ঘ জীবনে বাংলাদেশের এক অকৃত্রিম বন্ধু হিসেবে পরিচিত ছিলেন জেনারেল জ্যাকব। তাকে উৎসর্গ করে এই লেখাটি লেখা।

জেনারেল জ্যাকবের পুরো নাম জ্যাকব ফার্জ রাফায়েল জ্যাকব। ১৯২৩ সালে কলকাতায় বাগদাদ থেকে আগত এক রক্ষণশীল ইহুদী পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন তিনি। পিতার অসুস্থতার কারণে অল্প বয়সেই দার্জিলিং এর এক বোর্ডিং স্কুলে ভর্তি করানো হয় জ্যাকবকে। ছাত্র জীবনে মেধাবী ছিলেন তিনি, ছিলেন কাব্যপ্রেমী। বিভিন্ন কবির লেখা যুদ্ধের কবিতা তাকে আকৃষ্ট করতো। ১৯৩৯ সালে ইউরোপে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হলে হিটলারের জার্মান বাহিনীর নির্বিচার ইহুদী হত্যা গভীর প্রভাব ফেলে সে সময়ের তরুণ জ্যাকবের মনে। জার্মান নাৎসি বাহিনীর বিরুদ্ধে প্রতিশোধ নেওয়ার নেশায় উন্মত্ত হয়ে তিনি মাত্র ১৮ বছর বয়সেই তৎকালীন ব্রিটিশ সেনা বাহিনীর ভারতীয় ইউনিটে যোগ দেন। আর্মি ট্রেনিং স্কুল থেকে ট্রেনিং সমাপ্তের পর দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে তার প্রথম পোস্টিং হয় উত্তর ইরাকে। সেখানকার কিরকুক শহরে জার্মান বাহিনীর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ যুদ্ধে অংশ নেন। এরপর ১৯৪৩ সালে বিখ্যাত জার্মান সেনাপতি আরউইন রোমেলের নেতৃত্বাধীন আফ্রিকান কর্পসের বিরুদ্ধে ব্রিটিশ বাহিনীর হয়ে যুদ্ধে অংশ নেওয়ার জন্য উত্তর আফ্রিকায় গমন করেন। কিন্ত উত্তর আফ্রিকায় তার ব্রিগেড পৌঁছানর পূর্বেই সেখানকার যুদ্ধের পরিসমাপ্তি ঘটে। এরপর জেনারেল উইলিয়াম স্লিমের নেতৃত্বাধীন ১৪ ডিভিশনের হয়ে বার্মায় জাপানিজ বাহিনীর বিরুদ্ধে যুদ্ধে অংশ নেন। যুদ্ধের পর উপমহাদেশ বিভক্ত হলে তিনি দেশে ফিরে ভারতীয় সেনাবাহিনীতে যোগ দেন। ভারতীয় সেনা বাহিনীর হয়ে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন যুদ্ধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন জ্যাকব যার মধ্যে অন্যতম ১৯৬৫ সালের পাক ভারত যুদ্ধ। তবে জ্যাকব তার সেনা ক্যারিয়ারের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে। সে সময় ভারতীয় সেনাবাহিনীর পূর্বাঞ্চলীয় কমান্ডের জিওসি জগজিৎ সিং অরোরার অধীনে চিফ অব স্টাফ হিসেবে কর্মরত ছিলেন তিনি। মার্চে যুদ্ধ শুরুর পর থেকে বিপুল সংখ্যক বাঙ্গালী শরণার্থী হিসেবে ভারতে আশ্রয় প্রার্থী হয়। এই বিপুল সংখ্যক শরণার্থীকে আশ্রয় দিতে হিম শিম খেতে হচ্ছিল সে সময়ের ভারত সরকারকে। শরণার্থী সমস্যার আশু সমাধানের উদ্দেশ্যে তৎকালীন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী এপ্রিলেই বাংলাদেশে সামরিক হস্তক্ষেপের সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের ব্যাপারে সেনা প্রধান শ্যাম মানেকশকে নির্দেশ দেন। কিন্ত জ্যাকব এপ্রিলে বাংলাদেশে সামরিক হস্তক্ষেপের বিরোধিতা করেন । তিনি যুক্তি দেখান যে বাংলাদেশে এখন বর্ষা আসন্ন। বর্ষায় নদী অধ্যুষিত বাংলাদেশে তার সেনাবাহিনীর পক্ষে যুদ্ধে সফল হওয়া কঠিন। তিনি মধ্য নভেম্বর থেকে যুদ্ধ শুরুর ব্যাপারে অভিমত দেন। তার আগ পর্যন্ত মুক্তি বাহিনীকে অস্ত্র ও প্রশিক্ষণ সুবিধা প্রদানের ব্যাপারে অভিমত ব্যক্ত করেন। জেনারেল মানেকশ তাকে এ ব্যাপারে প্রধান মন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীকে অবহিত করার দায়িত্ব দেন। তিনি এই কাজ সফল ভাবে সমাপ্ত করেন। জেনারেল জ্যাকব জানতেন পাকিস্তানের সঙ্গে ভারতের যুদ্ধ আসন্ন। তাই তিনি এই কয়েক মাস যুদ্ধের প্রস্তুতিতে সম্পূর্ণ মনোনিবেশ করেন। তিনি বাংলাদেশ সীমান্তের কাছাকাছি ভারতীয় অঞ্চল গুলোতে ভারতীয় সেনাবাহিনীর স্বপক্ষে বিভিন্ন লজিষ্টিক সাপোর্ট যেমন অস্থায়ী হাসপাতাল, রাস্তাঘাট ইত্যাদী তৈরিকে গুরুত্ব দেন।
sd
জেনারেল জ্যাকব-ডান থেকে দ্বিতীয় জন

১৯৭১ সালের ৩ ডিসেম্বর পাকিস্তান ভারতের বিভিন্ন বিমান ঘাটি লক্ষ্য করে বিমান হামলা চালালে ভারত আনুষ্ঠানিক ভাবে এই যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে। জেনারেল জ্যকব সেনা প্রধান শ্যাম মানেকশর নির্দেশ অমান্য করে পাকিস্তানী সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে তার স্বতন্ত্র যুদ্ধ কৌশল প্রয়োগ করেন। মানেকশর নির্দেশ ছিল ঢাকার বাইরে বাংলাদেশের অন্যান্য শহর যেমন খুলনা , চট্টগ্রাম আগে দখলের। কিন্ত জ্যাকব এর বিরোধিতা করেন। তিনি জানতেন ঢাকা শুধু বাংলাদেশের রাজধানীই নয় , ভুরাজনৈতিক ও ভূকৌশলগত কারণে বাংলাদেশের সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ শহর। তিনি ঢাকা দখলকে সর্বাধিক গুরুত্ব প্রদানের ব্যাপারে অভিমত দেন। ঢাকা অভিমুখে যাত্রার উদ্দেশ্যে তিনি উত্তর ভুটানে নিয়োজিত ৬ মাউন্টেন ডিভিশনকে তার অধীনে দেওয়ার আবেদন জানান। কিন্ত তার এই আবেদন গ্রাহ্য হয়নি। তার অধীনস্ত দুইটি ডিভিশনে কোন আর্টিলারি না থাকায় তিনি চীন সীমান্ত থেকে সকল আর্টিলারিকে তার অধীনে নিয়ে আসেন। ঢাকা অভিমুখে যাত্রার উদ্দেশ্যে তিনি তিনটি পদাতিক ডিভিশনকেও নিয়োজিত করেন। নভেম্বরে কাদের সিদ্দিকীর সঙ্গী হয়ে পাকিস্তানীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করার জন্য তিনি ক্যাপ্টেন পি কে ঘোষের নেতৃত্বাধীন ৫০ প্যারা ব্রিগেডকে টাঙ্গাইলে মোতায়েন করেন। উত্তরাঞ্চল দিয়েও ভারতীয় বাহিনী দুর্বার গতিতে এগিয়ে যেতে থাকে। জ্যাকবের নিপুণ যুদ্ধ কৌশলে ১৩ই ডিসেম্বর নাগাদ ঢাকার আশেপাশের বিভিন্ন অঞ্চল গুলোতে ভারতীয় সেনাবাহিনী অবস্থান নিতে শুরু করে। কিন্ত ভারতীয় সেনা প্রধান মানেকশ তখনও তাকে ঢাকার বাইরে অন্যান্য শহর দখলের নির্দেশ দেন কিন্ত জ্যাকব এই নির্দেশও অমান্য করেন। সে সময় পাকি প্রধান জেনারেল নিয়াজী ভেবেছিল তার বিপন্ন পাকিস্তানী বাহিনীকে সাহায্য করতে হয়তো চীন ও আমেরিকা এগিয়ে আসবে। কিন্ত তার এই আশা পূরণ হয়নি। ১৩ই ডিসেম্বর জাতিসংঘে উত্থাপিত আমেরিকার প্রস্তাবে ভেটো দেয় সোভিয়েত ইউনিয়ন। এই সুযোগ হাতছাড়া করতে চাননি জ্যাকব। তিনি সব দিক দিয়ে কোণঠাসা জেনারেল নিয়াজীকে আত্বসমর্পণের আহ্বান জানান। কিন্ত ধূর্ত নিয়াজী তাকে যুদ্ধ বিরতির ব্যাপারে আলাপের উদ্দেশ্যে ঢাকায় আসার আমন্ত্রণ জানায়। কিন্ত জ্যাকবের উদ্দেশ্য ছিল নিয়াজীকে নিঃশর্ত আত্ব সমর্পণে রাজী করানো। তিনি দিল্লী থেকে প্রেরীত আত্বসমর্পণের দলিল ও তার এক স্টাফ অফিসারকে সঙ্গী করে আলাপের উদ্দেশ্যে সম্পূর্ণ নিরস্ত্র অবস্থায় ঢাকায় প্রবেশ করেন। তিনি নিয়াজীর সঙ্গে আলোচনায় বসেন। আত্বসমর্পণ করলে পাকিস্তানী বাহিনী ও তাদের পরিবারগুলোকে উপযুক্ত সম্মানে নিরাপদ অবস্থায় রাখা হবে বলে তিনি নিয়াজীকে আশ্বস্ত করেন। অন্যথায় ৯ মাস ধরে বাঙ্গালীদের উপর চালানো নিষ্ঠুর গণহত্যার প্রতিশোধ হিসেবে মুক্তি বাহিনীর কাছ থেকে করুন পরিনতির স্বীকার হতে হবে বলে নিয়াজীকে সতর্কও করেন। মৌনব্রত পালন করা নিয়াজীর জ্যাকবের প্রস্তাবে নীরব সমর্থন দেওয়া ছাড়া আর কোন উপায় ছিল না কিন্ত প্রকাশ্য আত্ব সমর্পণে আপত্তি জানায় নিয়াজী। কিন্ত নাছোড় বান্দা জ্যাকব শেষ পর্যন্ত নিয়াজীকে প্রকাশ্য আত্বসমর্পণে রাজী করিয়ে ফেলেন। এরপর ১৬ই ডিসেম্বর তৎকালীন রেসকোর্স ময়দানে সংঘটিত হয় পৃথিবীর ইতিহাসে একমাত্র প্রকাশ্য আত্বসমর্পণ, অভ্যুদয় ঘটে একটি স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ রাষ্ট্রের।

জেনারেল জ্যাকব ৭১ এ যুদ্ধ জয়ের প্রধান কৃতিত্ব হিসেবে মুক্তি বাহিনীর অবদানকে শ্রদ্ধা ভরে স্মরণ করতেন যেটা তাকে অন্য অনেক ভারতীয় জেনারেলদের থেকে আলাদা করেছে। ভারতীয় বাহিনীর একটা বড় অংশের মাঝে ৭১ এর বিজয়কে শুধু তাদের একার কৃতিত্বের বিজয় বলে দাবী করার প্রবণতা লক্ষ্য করা যায় কিন্ত জ্যাকব ছিলেন এ ক্ষেত্রে উজ্জ্বল ব্যতিক্রম। তিনি মুক্তিবাহিনীর অপেশাদার যোদ্ধাদের সাহস ও বীরত্বের ভূয়সী প্রশংসা করতেন। মুক্তি বাহিনীই যে পাকিস্তানী সেনা বাহিনীর অভ্যন্তরীণ যোগাযোগ ব্যবস্থা ও মনোবল ধবংসে সবচাইতে গুরুত্ব পূর্ণ ভূমিকা রেখেছিল তা তিনি বিভিন্ন সাক্ষাৎকারে স্বীকারও করেছেন। কোন বিষয় গুলো তাকে হৃদয় থেকে বাংলাদেশের যুদ্ধে অংশ নিতে প্রলুব্ধ করেছিল এ ব্যাপারে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেছিলেন- আমি কলকাতার ছেলে, বেড়ে উঠেছি সেখানে। আমি হৃদয় থেকে একজন বাঙ্গালী। ৭১ এ পাকিস্তান আর্মির হাতে বাংলাদেশের বাঙ্গালীদের দুর্দশায় আমি গভীর ভাবে ব্যথিত ছিলাম।

ব্যক্তিগত জীবনে এই মানুষটি ছিলেন চিরকুমার। দু বার প্রেমে পড়েছিলেন বলে স্বীকার করেছিলেন তিনি । কিন্ত সেই মেয়ে গুলো তার এই যোদ্ধা জীবন পছন্দ করেনি। তার জন্য অপেক্ষা না করেই তারা নিজেদের পথ বেছে নেয়। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ইসরায়েল রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠিত হলে তার ইহুদী বন্ধু ও আত্মীয় স্বজনদের একটা বড় অংশ ইসরায়েলে পাড়ি জমায় কিন্ত তিনি ভারতেই থেকে যান। ১৯৭৮ সালে সেনাবাহিনী থেকে অবসরের পর তিনি গোয়া ও পাঞ্জাব প্রদেশের গভর্নর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি বলতেন- আমি একজন গর্বিত ইহুদী, একই সঙ্গে একজন গর্বিত ভারতীয়। আমি ভারতে জন্মেছি, সেখানেই জীবন কাটিয়েছি, সেখানেই মরতে চাই। শেষ পর্যন্ত তার এই ইচ্ছাটি পূরণ হয়েছে।

জেনারেল জ্যাকব বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে অতুলনীয় অবদান রাখার জন্য বাংলাদেশ সরকারের কাছ থেক মৈত্রী সম্মাননা লাভ করেছেন কিন্ত এখনো অনেক বাংলাদেশির কাছে তিনি অপরিচিত। আবার তার ইহুদী পরিচয়টির কারণে তাকে ঘৃণা করার মত মুসলিম বাংলাদেশীরও অভাব নেই এদেশে, জামায়াত-শিবিরের কথা না হয় বাদই দিলাম। সৌদি বাদশাহর মৃত্যুতে এদেশে শোক দিবস ঘোষিত হয় অথচ জ্যাকবের মত বাংলাদেশের এই পরীক্ষিত বন্ধুর মৃত্যুতে কোন রাষ্ট্রীয় পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি। কিন্ত চাইলেও তো আর ইতিহাসের অমোঘ সত্যকে মুছে দেওয়া যায় না, সে টিকে থাকে তার আপন মহিমায়। যতদিন আমাদের এই স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রটি টিকে থাকবে ততদিন এই রাষ্ট্রটির অভ্যুদয়ের গৌরবজনক ইতিহাসে জেনারেল জ্যাকবের নাম স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে। বিদায় হে মহান জেনারেল, চির শান্তিতে থাকুন।

তথ্যসুত্রঃ
১)http://www.rediff.com/news/special/lt-gen-jfr-jacob-the-man-who-masterminded-pakistans-surrender-in-1971/20160113.htm
২)http://www.ndtv.com/people/born-in-india-will-die-in-india-1971-war-hero-jfr-jacob-had-said-1265402
৩)http://indiatoday.intoday.in/story/jfr-jacob-1971-indo-pakistan-war-hero-liberation-of-bangladesh/1/569401.html
৪)http://www.timesofisrael.com/a-jewish-war-hero-and-the-last-vestige-of-a-dying-indian-community/
৫)http://forbesindia.com/interview/close-range/lt-general-jfr-jacob-i-had-to-ignore-orders/26542/1
৬)http://defence.pk/threads/taking-dhaka-did-not-figure-in-manekshaw%C2%92s-plans-interview-with-general-jacob.60880/

৬৩০জন ৬৩২জন
0 Shares

৩৬টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ