হঠাৎ মাথা খারাপ হওয়া মানুষ যুগে যুগে সর্বকালে সব দেশেই ছিল। আমিও তার মাঝে একজন। কিছু সামাজিকতা আমার কাছে অসহ্য লাগে।
ভিতর ও বাহির এক রাখার চেষ্টা করি সব সময়, অন্তরে বিষ রেখে বাইরে ফুল দিতে আমি পারিনা
যাকে ভালো জানি সর্বাত্মক ভাবেই ভালো জানি, ভেজাল নেই তাতে কোন ।

” পশু আর পাখির যুদ্ধ
বাদুড়ের দ্বৈত কর্ম
মাসুদ আহমেদ মাসুদেরা
হঠাৎ মাথা খারাপ ”
১৯৭৭ সনে পড়া আমার অত্যন্ত প্রিয় একজন মানুষের লেখা কবিতার এই চারটি লাইন ৭৭ সন থেকেই আমাকে হঠাৎ মাথা খারাপের দলভুক্ত করেছে। বাদুড়ের সুবিধা, সে একসাথে পাখি এবং পশু । পাখির মত উড়তে পারে এবং একই সাথে স্তন্যপায়ী প্রাণী হিসেবে পশুও। আমার সীমাবদ্ধতা এখানে। আমি পারিনা এমন।

মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণ করে থাকা সব সময় প্রগতিশীলতার বিরুদ্ধে থাকা – আমি এমন প্রগতিশীল হতে চাই না ।
(মুক্তিযুদ্ধ কে ) পুরানো দিনের কবে কোন কালে ঘি খেয়েছিলাম, তা নিয়ে এখনো আমরা সুখ লাভ করি – আমি পুরানো দিনের ঘি নামক মুক্তিযুদ্ধ খেয়েই বাঁচতে চাই এবং এতে অপরিসীম সুখ লাভ করি।
ছাগুরা আমাদের দেশেরই সন্তান । তাদের বাক স্বাধীনতা থাকা উচিৎ – আমি এমন ভাবি না। এরা ১৯৭১ এ পরাজিত হয়েছে । এদের চিন্তা ভাবনা, আদর্শ নিয়ে এরা বাঙ্গালীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেছে এবং পরাজিত হয়েছে । কোথাও পরাজিত শক্তির অধিকার স্বীকৃত আছে কিনা আমার জানা নেই। এ সমস্ত কথা বার্তা বলে পরাজিত শক্তিকে পুনর্বাসন করার মানসিকতার বাইরে আমি।

নিজের বিশ্বাসকে আঁকড়ে থাকি। এসব হয়ত আমার সীমাবদ্ধতা । তবে এই সীমাবদ্ধতা আমার অহংকার।

————-
স্মৃতির ডায়েরি থেকে
১৫ জানুয়ারী ২০১৩

১৮৩জন ৪৯জন
40 Shares

১৭টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য