বাউড়ী বাতাসে… বাওয়াল ভাবনা ৫

আগুন রঙের শিমুল ৩১ মার্চ ২০১৫, মঙ্গলবার, ০৪:৫৭:১৪পূর্বাহ্ন কবিতা ১৮ মন্তব্য

painting

বিরহী ঘুঘুর ডাক খামচে ধরে বুকের ভেতরে –
থেমে আসা কোলাহল, জমে থাকা হিম
থমকে যাওয়া সময়ের নীল বিষের পেয়ালা,
মিলেমিশে মুচড়ে ওঠে পরানের অতল গভীরে।

শহর জুড়ে বৃষ্টি নামে –
বৃষ্টি নামে অন্ধকারের শরীর জুড়ে,
কবেকার দুঃখ ভিজে যায় কোন জলে।
বেপথু মাতাল হাওয়া দীর্ঘ রাত্তির শেষে
চেনা দীর্ঘশ্বাসের বারান্দা ছুঁয়ে যায়
ভেজা বাতাসে পুরনো দুঃখ ঘ্রাণ
অনিঃশেষ একাকিত্ব ভিজিয়ে দিয়ে যায় জলচুর্ন ;
অন্ধকারের শরীর জুড়ে বৃষ্টি নামে
বৃষ্টি নামে শহর জুড়ে –
একা একা, একা একা অন্ধবৃত্তে ঘুরে ঘুরে।

রাত নেমে এলে পথের সাথে কথা বলি,
রাত নেমে এলে কথা বলি নিজের সাথেও।
রাত নেমে এলে মনে পড়ে আর মনে পড়ে
টবের মৃত গাছ, ছেড়া কবিতার বই, উপচে পরা ছাইদানী
শুন্য বারান্দায় দোল খাওয়া আলো ;
রাত নেমে এলে মনে পড়ে একদিন, এই বুকে
আকাশের ঘ্রাণ খুজেঁ পেয়ে কেউ বেসেছিল ভালো।

সময়ের ফ্রেমে আটকে আছে ছেরাখোরা ঘুড়ি
অভিমানী নীল জল থিরথির
কেপেঁ ওঠে হঠাৎ হাওয়ায়। ভাবে,
এইবুঝি নেমে এলো জলের পাখিটি
আকাশ ভুলে যার খাঁচার মাপের ওড়াউড়ি।

অস্থির জলের বুক ছুঁয়েছিলো পাখি –
স্থিরতার শিকড় নেমেছে জলে,
জলজঘ্রানের স্থিরতার ভেতরটা তোলপাড়
মহীরূহছায়াঘন পথজুড়ে নেই নেই হাহাকার।
লোনাজল এসে স্থিরতার অপেক্ষার জলে মেশে
ভালোবাসা ভালোবাসা, সে নির্বান হয় কোন বিষে?

– বোধিবৃক্ষ তলে নির্বান্ধব জল অপেক্ষা নির্বানের।

৩৩৬জন ৩৩৬জন
0 Shares

১৮টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য