বরিশালে হারিচ – পিকলু’র গর্জন!

আহমেদ জালাল ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৫, সোমবার, ০৮:৩০:৫৫অপরাহ্ন এদেশ, সমসাময়িক ১ মন্তব্য

একদিকে বরিশালের গৌরনদী পৌরসভার মেয়র ও আওয়ামী লীগ সভাপতি হারিচুর রহমান হারিচ। আরেকদিকে একই উপজেলার মাহিলাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সৈকত গুহ পিকলু। এই দু’জনের দ্বন্দ্বে নানা ঘটন অঘটনের জন্ম দিয়েছে। সংঘর্ষ ,গুলিবর্ষনের ঘটনা ঘটে। যেন সর্বশক্তি প্রয়োগে একে অপরের বিরুদ্ধচারনে মাঠে বিরাজমান। বরিশাল নগরীসহ জেলার বিভিন্নস্থানে মেয়র হারিচকে ‘কুখ্যাত এরশাদ শিকদার’ আখ্যা দিয়ে ফাঁসির দাবি চেয়ে ছবিসহ পোস্টার সেটে দেয়া হয়েছে। পোস্টারে মেয়র হারিচের নেতৃত্বে হামলার শিকার চেয়ারম্যান পিকলুর ছোট ভাই পিন্টুকে রক্তাত্ব জখম দেখানো হয়েছে।

এসব বিষয়ে মেয়র হারিচুর রহমান হারিচ’র বক্তব্য, পিকলু গুহ’র নামে সর্বোচ্চ ডাকাতির মামলা রয়েছে। চাঞ্চল্যকর মিশন ডাকাতি মামলার অন্যতম আসামী পিকলু। যতদূর জানি তার নামে ২২ টি ডাকাতির মামলা রয়েছে। মেয়র আরো বলেন, বিভিন্ন ধরণের অন্যায় অপকর্মের সঙ্গে জড়িত পিকলু। বলেন, আওয়ামী লীগের কোন কমিটিতেই পিকলুর নাম নেই। কোন সহযোগী কিংবা অঙ্গসংগঠনের সঙ্গে জড়িত নয়। এক সময়ে থানা ছাত্রলীগের সেক্রেটারী ছিলো।
মাহিলাড়া ইউপি চেয়ারম্যান সৈকত গুহ পিকলু’র বক্তব্য, মানব সেবাই আমার মূখ্য উদ্দেশ্যে। অন্যায়ের প্রতিবাদী ভূমিকায় অবতীর্ন হওয়ায় শকুনরা আমার বিরুদ্ধে বিভিন্ন ধরণের আপপ্রচারসহ নাটক সাজিয়ে হেনস্তা করছে। তিনি বলেন, আমার পুরো পরিবার আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যায়ে জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রূপকল্প ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার পথ বেয়ে চলছি।
গৌরনদী থানার অফিচার্জ ইনচার্জ(ওসি) মো: আলাউদ্দিন বলেন, মাহিলাড়া ইউপি চেয়ারম্যান সৈকত গুহ পিকলুর বিরুদ্ধে মিশন ডাকাতিসহ কয়েকটি মামলা রয়েছে। কিন্তু ২২টি ডাকাতি মামলা থাকার তথ্যটি সঠিক নয়।
আহমেদ জালাল
মাজেদা ভিলা,ব্রাঞ্চ রোড,কাউনিয়া,বরিশাল।
যোগাযোগ: ০১৭০৩৯৭৬৪০১

৪৪৯জন ৪৪৮জন
0 Shares

একটি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ