%E0%A6%AC%E0%A7%87%E0%A6%B2%E0%A7%81%E0%A6%A8

-আচ্ছা নীলা আমাদের সম্পর্কের বয়স কত হৈল?

– ১ বছর! হটাৎ এই প্রশ্ন কেন?

– না, এম্নিই!

– আমি তোমায় ভালো করেই জানি! তুমি এম্নি এম্নি এমন কথা জিজ্ঞেস করো নাই! বলো কি হইছে?

– আমাদের সম্পর্কটা কেমন যেন! কোন বাঁধা নাই বিঘ্ন নাই। আমি প্রপোজ করছি তুমি রাজি হয়ে গেছ! পরিবার থেকেও কেউ কিছু বলে নাই। সবকিছু কেমন যেন! সহজলভ্য!

– এটা কেমন কথা! তুমি কি চাও আমি দুর্লব হই? কোন ঝড় এসে আমাকে তোমার কাছ থেকে অনেক দূরে নিয়ে যাক? কিংবা অন্য কারো সাথে রিলেশন করি? তুমি তাকে মাইর ধর করে আমাকে ছিনাইয়া আনো! আমাকে জয় করো।

– ( শুভ মুছকি হাসে! সেই হাসির অর্থ নীলা ঠিকই বুঝে! ) এমন কিছু না আসলে! দেখো তুমি তো জানো আমি অন্যরকম! না চাইতেই যেটা পাওয়া যায় ঐ জিনিসের কোন মূল্য থাকে না!

– এসব কি বলছো শুভ! তুমি আমাকে চাও না? ভালোবাসো না? এত নিষ্ঠুরের মত কথা বলো কেন?

– আমি তোমাকে অনেক ভালোবাসি নীলা! কিন্তু এইভাবে পেতে চাই না! আমি তোমাকে জয় করে পেতে চাই!

– তো বলো! তোমার পরিকল্পনা কি?

– ঐ যে দূরে বেলুন ফুটানো হচ্ছে দেখছো না! ঐখানে চলো। ঐখানে যে কোন একটা বেলুন দেখাবে আমি তিন বারে ফুটাবো!

– আর যদি না পারো? সবকিছু শেষ! আমার তোমার ভালোবাসার মৃত্যু ঘটবে? আমি পারবো না শুভ!

– তুমি পারবে নীলা! চলো!

কি অদ্ভুত ভালোবাসা! ভালোবাসা ও জয় করতে হয়! অর্জন করতে হয়! নীলা ভাবে এতই বুঝি সস্তা তার ভালোবাসা! যে বেলুন ফুটালে দিতে হবে! না হলে জীবন থেকে হারিয়ে যেতে হবে!

– বলো নীলা কোন রংয়ের টা ফুটাবো!

-( নীলার চোখে জল! কি বলবে বুঝতে পারছে না! তবুও বলবে! তাকে বলতে হবে! তার ভালোবাসা সস্তা না।) শুনো শুভ তুমি যদি না পারো তাহলে কিন্তু সব শেষ! মাঝের লাল রংয়ের টা ফুটাও!

– হু! আমি জানি সব শেষ!

শুভ ট্রিগার এ চাপ দিলো! শব্দ হলো! সেই শব্দ বিদ্যুৎ চমকানোর মতোই মনে হলো নীলার কাছে! চারদিক কেমন অন্ধকার হয়ে আছে!

নীলা দেখলো লাল বেলুন টা আগের জায়গায় আছে! শুভর হাত কাঁপছে! তার ঠোঁঠ সাদা বর্ণ ধারন করেছে! চোখ লাল হয়ে আছে!

আর মাত্র দুইটা চান্স! দ্বিতীয় বার বুলেট ভরে বন্দুক দিলো শুভর হাতে! লোকটা বললো মন স্থির করেন ভাই! তবেই পারবেন! মনই সবকিছু!

নীলা ভাবে শুভ এ কোন খেলায় মেতেছে!! দ্বিতীয় বারেও ব্যর্থ হলো শুভ! নীলার চোখ দিয়ে জল পড়ছে! শুভকে বললো …
– শুভ বাদ দাও, চলো
– হু! পালিয়ে যেতে বলছো?
– না! সবকিছু নিয়ে প্রতিযোগীতা করতে হয় না! তুমি চলো এখান থেকে!
– না নীলা! চলে গেলে হয় না! তোমার মনের মাঝে থাকবে আমি কাপুরুষ! মাঝপথে পালিয়ে গেছি! এ হয় না!
– আমি এসব বলবো না শুভ!

শুভ রক্ত বর্ণ হাসি দেয়! শুভ তীক্ষ্ণভাবে তাকিয়ে আছে লাল বেলুনের দিকে! আজ না পারলে নীলাকে হারাতে হবে চিরতরে! শুভ নিজের মনকে স্থির করলো! ট্রিগার চাপলো!

বিকট শব্দে যেন আকাশ ভেঙ্গে পড়লো! নীলা চোখ বন্ধ করে আছে! লোকটি বললো এইতো পারছেন! বলেছিলাম না মন স্থির করতে!
– নীলা চোখ খোল! বেলুন ফুটছে!
– যাহ্! সত্যি?
– হু
নীলা চোখ খুললো! আকাশ টা কত পরিষ্কার! লাল বেলুন টা চুপসে আছে! চারপাশ কত সুন্দর লাগছে তারকাছে!
কান্না ভরা কন্ঠে শুভকে বললো তুমি এত নিষ্ঠুর কেন!

শুভ হাসে! বলে ভয় নেই আর নীলা! জনম জনমের জন্য তুমি আমার!


হ্যাপি রিডিং!

৪৬১জন ৪৬১জন
0 Shares

২১টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ