বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন একজন অসাম্প্রদায়িক চেতনাধারী অসাধারণ রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব। তিনি ১৯৭২ সালের ৪ নভেম্বর জাতীয় সংসদে ধর্ম নিরপেক্ষতা নিয়ে মূল যে কথাগুলো বলেছিলেন-

“ধর্ম নিরপেক্ষতা মানে ধর্মহীনতা নয়। মুসলমানরা তাদের ধর্ম পালন করবে, তাদের বাধা দেওয়ার ক্ষমতা এই রাষ্ট্রের কারও নেই। হিন্দু তাদের ধর্ম পালন করবে, কারও বাধা দেওয়া ক্ষমতা নেই। বৌদ্ধরা তাদের ধর্ম পালন করবে, তাদের কেউ বাধাদান করতে পারবে না। খ্রিস্টানরা তাদের ধর্ম পালন করবে, কেউ তাদের বাধা দিতে পারবে না।”

“আমাদের শুধু আপত্তি হলো এই যে, পবিত্র ধর্মকে কেউ রাজনৈতিক অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করতে পারবে না। ২৫ বছর আমরা দেখেছি— ধর্মের নামে কী জুয়োচুরি, ধর্মের নামে শোষণ, ধর্মের নামে বেইমানি, ধর্মের নামে অত্যাচার, ধর্মের নামে খুন, ধর্মের নামে ব্যাভিচার এই বাংলার মাটিতে চলেছে। ধর্ম পবিত্র। পবিত্র স্থানে রাখতে দেন। একে রাজনীতির হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করা চলবে না। এখানে যদি কেউ আমাদের বলেন, আমরা অধিকার খর্ব করেছি, অধিকার খর্ব করি নাই। সাড়ে সাত কোটি মানুষের অধিকার রক্ষার জন্য এই অধিকারটুকু আমাদের খর্ব করতে হয়েছে।” [বাংলা ট্রিবিউন] 

এদেশ বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের দেশ, সকল স্বাধীনতাকামী মুক্তিযোদ্ধাদের দেশ। যারা বঙ্গবন্ধুর অস্তিত্বকে কোনদিনও মেনে নিতে পারেনি তাদের আস্তিনে রেখে আশ্রয় দিলে ফণা তুলে ফোঁসফোঁস করবে এটাই স্বাভাবিক। সেই প্রেক্ষাপটেরই কুফল হলো তারা আজ বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যকে মূর্তি বলার দুঃসাহস করে!

পৃথিবীর অনেক দেশেই মুসলিম স্কলারদের ভাস্কর্য রয়েছে। সেদেশের মুসলিমরা কি তাদের পুজা করে? মোটেই না। পৃথিবীর ভবিষ্যৎ প্রজন্ম যেন সেসব স্কলার ব্যক্তিদের সম্পর্কে জানতে পারে সে কারনেই ভাস্কর্যগুলো তৈরী করে সংরক্ষণ করা হয়।

এদেশের উগ্র মৌলবাদীরা এর সবকিছুই জানে। সেগুলোতে তাদের মাথাব্যথা নেই। কারন তাদের মূল সমস্যাতো আসলে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে, তার আদর্শকে এদেশ থেকে বিলীন না করা পর্যন্ত এদের ঘুম হারাম হয়ে গিয়েছে।

কথার সত্যতা- মোল্লার দৌড় মসজিদ পর্যন্ত। আমাদের কাঠ মোল্লাদের অবস্থা হচ্ছে এরকম। তাদের জ্ঞানহীন, মূর্খ বললে খুব বেশি অত্যুক্তি করা হবে কি? ২০২০ সালকে আমরা যখন বঙ্গবন্ধুর জন্মশবার্ষিকী পালন করার প্রস্তুতি নিচ্ছি তারা তখন বঙ্গবন্ধুর অস্তিত্বকেই অস্বীকার করার দুঃসাহস দেখাচ্ছে কিভাবে?

বাংলাদেশ, বঙ্গবন্ধু এবং এদেশের স্বাধীনতার বিরুদ্ধে কেউ কিছু বললে আমি সহ্য করতে পারিনা। যারা পারেন তারা সুবিধাবাদী চেতনার অধিকারী। তাদের মুখে একদলা থুথু ছিটিয়ে গেলাম।

এখানে মুসলিম ভাস্কর্যের কিছু ছবি নামসহ দিলাম। এরকম শতশত ভাস্কর্য অন্যান্য মুসলিম দেশেও রয়েছে। চাইলে গুগোল সার্চ করতে পারেন।

মসজিদের সম্মুখে স্থাপিত কিছু ভাস্কর্য –

এছাড়াও মুসলিম দেশে মুসলমান মনিষীদের বিখ্যাত কিছু ভাস্কর্য দেখুন-

মাওলানা রুমী
মুহাম্মাদ আল গাফী
আবু আব্দুল্লাহ ইউসুফ
মুসা ইবনে মুসা বনু ক্কাসী
আল ওয়ালিদ ইবনে রুশদ
মুসা ইবনে মুসা আল খোয়ারিজমি

সকলে ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন।

জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু।

—————————

তথ্যসূত্র- বাংলা ট্রিবিউন অনলাইন থেকে বঙ্গবন্ধুর ভাষণটি কপিকৃত।

ছবি– গুগোল, ফেসবুক।

২১৯জন ১জন
0 Shares

১৮টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য