বই পর্যালোচনাঃ যুদ্ধ ও নারী

ফাতেমা জোহরা ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৫, বুধবার, ০৯:৪০:০৩অপরাহ্ন মুক্তিযুদ্ধ ১৮ মন্তব্য

“নির্যাতিত হবার পর সমাজ ও দেশ অনেকক্ষেত্রে এইসব নারীদের পরিত্যাগ করেছিল। যখন তাঁদের জন্য প্রয়োজন ছিল শারীরিক ও মানসিক চিকিৎসা,সহযোগিতা,সহমর্মিতা ও স্নেহ ভালোবাসাপূর্ণ আশ্বাস তখন কেউ তাঁদের পাশে এসে দাঁড়ায় নি। ফলে ব্যক্তিত্ব ও মর্যাদার সংকটে পিষ্ট এসব ধর্ষিত নারীরা নিজেদেরকে যৌন শৃঙ্খলে আবদ্ধ এক ঘৃণিত বিচ্ছিন্ন জীব হিসেবে আবিষ্কার করেন।”

…….দেশ স্বাধীন হবার পরে পাকিস্তানি জানোয়ারদের হাতে নির্যাতিত বাঙালি নারীদের ঠিক কতোটা অবহেলা আর অপমানে একটা ঘন কালো অন্ধকারে নিক্ষেপ করা হয়েছিলো, তার কথাই খুব স্পষ্টভাবে প্রকাশ পায় উপরের লাইনগুলো দ্বারা। লাইনগুলো হুবুহু তুলে দেয়া হয়েছে ডা. এম এ হাসানের “যুদ্ধ ও নারী” বইটি থেকে। মূলত, “যুদ্ধ ও নারী” কে বই না বলে একটি “প্রামাণ্য দলিল” বলাটাই সবচাইতে সঠিক। ইতিপূর্বে, আমি একাত্তরে নারী নির্যাতন নিয়ে লেখা যতোগুলো বই পড়েছি, তারমধ্যে এই বইটিই সবচেয়ে তথ্যসমৃদ্ধ।

যুদ্ধের ন’মাস পাকিরা যে কতভাবে নির্যাতন করেছে তা নারী নির্যাতনের ঘটনা গুলো না পড়লে কখনোই জানা যাবে না। শুধু মাত্র যৌন লালসা চরিতার্থ করার জন্যই ওরা নারী ধর্ষণ করেনি। সেই সাথে ওদের উদ্দেশ্য ছিল, দানবীয় ত্রাস সৃষ্টি করা, মনোবল ভেঙ্গে দেয়া, বাঙালি নারীর গর্ভে পকিস্তানী সন্তানের বিস্তারের মাধ্যমে বাঙালি জাতিকে নির্মূল করা। এ ব্যাপারে “যুদ্ধ ও নারী”র ৩১ পৃষ্ঠায় বলা হয়েছে-

“ঘরের বউ মেয়েদেরকে নির্যাতন করেছে তাদের শুদ্ধি অভিযানের অংশ হিসেবে, যাতে প্রতিপক্ষ ঝাড়ে মূলে নিকাশ হয়ে যায়, যে ক’টা বেঁচে থাকে তারা যেন ভয়ে পালিয়ে যায়। আর যারা পালাতে পারলো না সেসব মেয়েদের ভেতরে ইসলামের বিজয়ের বীজ বুনেই দেয়া হল।”

পাকিরা ধর্ষণ করেছে ৭ থেকে ৮৭ বছরের নারীদেরও। বইটির ২৬ পৃষ্ঠায় রয়েছে ন’বছরের সন্ধ্যার জীবন প্রদীপ চিরতরে নিভে যাবার কথা-

“পাকিদের বীভৎস পাশবিক লালসা থেকে ন’বছরের শিশু সন্ধ্যায়ও রেহাই পায়নি। একাত্তরের জুন মাসের মাঝামাঝি সময়ে ঝালকাঠির কুড়িয়ানা গ্রাম আক্রমণ করে পাকিরা। সন্ধ্যা ও তাঁর মা অন্যান্য সদস্যদের সাথে ছুটে পালাচ্ছিলো। কিন্তু তাঁরা সবাই ধরা পরে আটক হয় কুড়িয়ানা স্কুলের পাকি ক্যাম্পে।সেখানে পাকি হায়নারা সন্ধ্যার উপর এমন নির্যাতন চালায় যে- কষ্ট , যন্ত্রণা আর বিরামহীন রক্তপাতে সে নির্জীব ও ফ্যাকাশে হয়ে গিয়েছিলো। পরবর্তীতে সে মারা যায়।”

পাকিদের যৌন বিকৃতি,মনোবিকার ও নিষ্ঠুরতা এতোটা ভয়ংকর ছিল যে ওদের অনেকেই Sociopath Personality হিসেবে গণ্য করে। ওরা যতোই পরাজয়ের পথে এগিয়ে যাচ্ছিলো ততোই নিষ্ঠুর যৌন নির্যাতক,বিকারগ্রস্ত ও ধর্ষকামী হয়ে উঠেছিলো। নিষ্ঠুর নিপীড়নের মাধ্যমে ভুলতে চাচ্ছিলো ক্রমবর্ধমান পরাজয়ের গ্লানি। এ বিষয়ে বইটির ২৯ পৃষ্ঠার কিছু লাইন এরকম-

“ওরা এইসব নারীর পায়ুপথ ছিন্নভিন্ন করে ওদের সকল বর্জ্য ও যৌনাঙ্গ নারীদের মুখে ঢুকিয়ে দিয়েছে। অল্প বয়সী মেয়েরা যখন অবর্ণনীয় যন্ত্রণায় কাতরিয়েছে তখন ওরা বেয়ানেটের খোঁচায় ছিন্নভিন্ন করে দিয়েছে তাঁদের যোনিপথ। কামড়িয়ে,খামচিয়ে ক্ষতবিক্ষত করেছে মেয়েদের শরীর, কেটে নিয়েছে স্তন। মেয়েদের যৌনাঙ্গে লাঠি,রাইফেলের নল,ধারালো বোতল জাতীয় জিনিস ঢুকিয়ে দিয়ে নির্যাতন করা ছিল ওদের উপভোগের বিষয়।”

একাত্তরে নির্যাতিত নারীর সংখ্যা নিয়ে যে দ্বিধাটি রয়েছে, সেটিও পরিষ্কার হয়ে যাবে বইটির “গবেষণা তথ্যসার” অংশে চোখ রাখলে। বিস্তারিত আলোচনায় না গিয়ে আমি বইটির ৪১ পৃষ্ঠা থেকে একটি লাইন তুলে দিচ্ছি –
“একাত্তরে বাংলাদেশে পাকিদের কারাগার ও বন্দি ক্যাম্পাসগুলোতে নিক্ষিপ্ত নারীর সংখ্যা ছিল দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধোত্তর সময়ে সর্বোচ্চ।”
……

কি করে নিমিষেই নিভে যেতো একটি প্রান প্রদীপ ? আর যাদের প্রান প্রদীপ নিভে না গিয়ে মিটিমিটি করে জ্বলতো, তাঁদেরকেই বা কতোটা যন্ত্রণা কতো আক্ষেপে প্রতিমুহুর্তের সাথে লড়াই করে বাঁচতে হয়েছে? … প্রশ্নগুলোর উত্তর লুকিয়ে আছে নির্যাতিত এবং ভুক্তভোগী প্রতিটি নারীর সাক্ষাৎকারে। বড্ড কষ্ট আর যন্ত্রণা মিশে আছে তাঁদের কথায়। আবার কারো কারো কথায় রয়েছে ৪৪ বছর ধরে জামানো অভিমানের সুর, আছে ঘৃণার নিদর্শনও- এই সমাজের প্রতি, রাষ্ট্রের প্রতি। তেমনি কিছু বুকচাপা অভিমানের কথা লেখা আছে ১৬৭ পৃষ্ঠায়, বীর ম চানমনি সখিনা’র জবানিতে-

“ত্রিশ বছর পর আমার এই নির্যাতনের কথা শুনে কি হবে? আমার এই বঞ্চনা,অপমানের সত্যিই কি কোন বিচার হবে? এসব কথা তো স্বাধীন হবার পরপরই তোলা উচিৎ ছিল। কই,কেউ তো এলোনা। কেউ তো বলল না, চানমনি, তোমার জন্যই আজ আমরা স্বাধীন হয়েছি…”

যুদ্ধ ও নারী” বইটির খুব সামান্য কিছু অংশ এখানে তুলে ধরেছি।একাত্তরে নারী নির্যাতন সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এই বইটির কোন বিকল্প আছে কিনা আমি জানিনা।

বই পর্যালোচনাঃ যুদ্ধ ও নারী; ডা. এম এ হাসান।

৫১৩জন ৫১৩জন
0 Shares

১৮টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ