ফাগুন-হাওয়া

রেজওয়ানা কবির ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২২, শনিবার, ১১:২২:২৫অপরাহ্ন চিঠি ৮ মন্তব্য

প্রিয় ফাগুন,,,

তুমি আসলেই এই গানটা মনে পড়ে,,,, প্রথমে গানটাই শোন,,,,

“ফাগুন, হাওয়ায় হাওয়ায় করেছি যে দান

তোমার হাওয়ায় হাওয়ায় করেছি যে দান

আমার আপনহারা প্রাণ আমার বাঁধন-ছেঁড়া প্রাণ

ফাগুন, হাওয়ায় হাওয়ায় করেছি যে দান

তোমার হাওয়ায় হাওয়ায় করেছি যে দান”

একটা সময় আমার কাছে তুমি মানেই ছিলো ধানমন্ডি হকার্স, গাউছিয়ায় তাতের হলুদ শাড়ী কেনা, রাস্তায় বন্ধুদের সাথে কাপলদের খুনসুটি দেখা। ঢাকা শহরে তুমি আসা মানেই হলদে হলুদ হওয়া লাল নীল বাতি আর যেখানে সেখানে জুটি বেঁধে ফুলার রোড,টি এস সি,কার্জন হল,কলাভবন, দোয়েল চত্তরসহ অনেক জায়গায় জমানো ভীড়। ফাগুন,সত্যি তোমার জাদু আছে বলা যায়!

কাল আবার আসছো ফিরে এ বছর তোমার রুপে?  প্রতিবারই এভাবে অনেক সাজসজ্জায় আলোকিত হয়ে নতুনরুপে ফিরে আসাই তোমার ধারা, কিন্তু একটাবারও কি তুমি ভাবো যে তুমি একেকজনের জীবনে একেকভাবে একেকবছর ভিন্ন ভিন্ন রুপে ফিরে আসো। হয়ত! কারো জীবনে একবার ভালো রুপে আসো,আবার সেই মানুষটার জীবনেই পরের বছর খারাপ কিছু নিয়ে আসো। এ কেমন লীলাখেলা তোমার ফাগুন?

১লা ফাল্গুন, সালটা ঠিক মনে নেই তবে যখন কেবল বুঝি তখন থেকেই  ফাল্গুন মানেই হলুদ গাঁদা ফুলে নিজেকে রাঙ্গিয়ে গায়ে হলুদ পোশাক জড়িয়ে রাস্তায় কত মানুষের ভীড়  দেখতে যাওয়া ! অবশ্য এই ভীড় প্রথম দেখার সুযোগ হয়েছিল বাবার হাত ধরে। জানো ফাগুন,তোমার সম্পর্কে আমার প্রথম জানা আমার বাবার কাছে।  সেই থেকে ২০১৯ পর্যন্ত প্রতিবার তুমি আসার আগে আমার কত আয়োজন ছিল!!!

যখন স্কুলে পড়ি তখন আব্বুর কাছ থেকে ফুল কিনে আব্বুর হাত ধরে  হাটতাম। যখন কলেজে পড়ি তখন তুমি আসা মানেই হলুদ পোশাক পড়তেই হবে! বন্ধুদের সাথে রংপুর পাবলিকে আড্ডার পর সন্ধ্যায় বাসা ফিরে আম্মুর কাছে মাইর!সেই মারেও ছিল ফাগুন 🥰।

যখন ভার্সিটিতে পড়ি,তখন ফাগুন মানে মাথায় ফুলের টায়রা,নতুন শাড়ী কেনা,টি এস সি তে কাঁচের চুড়ি কেনা,বেলী ফুলে চুল জড়ানো,মোক্তার ভাইয়ের চায়ের দোকানের চা সহ শায়লা বৃষ্টিদের সাথে গলা ছেড়ে রিক্সায় চিৎকার করে গান গাওয়া।

এরপর যখন চাকুরিজীবন এলো তখন ফাগুন মানে কলিগদের সাথে ফাগুন উদযাপন🥰 সবাই একসাথে  হলুদ কাপড় পড়ে ঢাকা উদ্যানের নদীর পার, ফার্মগেইটের বস্তির পাশে অফিস ফাঁকি দিয়ে ফাগুন উদযাপন,অফিসে চিরকুট,গানের কলি খেলা সহ প্রতিবছর হলুদ শাড়ী থাকতোই🥰এছাড়া সংসদ ভবনের সামনে কাপলদের আহলাদী দেখার সুযোগ ও ছাড়তাম না সেইসময়।

এভাবেই প্রতিবছর তোমার সাথে আমার আলিঙ্গন হয় ফাগুন। তখনকার সময়গুলোতে ফাগুন মানেই কেমন জানি অনেক রোমান্চকর,আনন্দমুখর  অনুভুতি কাজ করত আমার মাঝে।

ঢাকা ছেড়ে আসার পর থেকে ফাগুন আসা কি সেটাই ভুলতে বসেছি।  বিকেলে মার ফোন পেয়ে মনে পড়ে গেলো তুমি আসবে!!

মাঃ কাল পহেলা ফাল্গুন তোর সব হলুদ শাড়ী রেখে গেছিস! কাল কি পড়বি?

আমিঃ ওহো!! তাইতো প্রতিবার শাড়ী আগেভাগেই খুঁজে রাখি অথচ এবার😭।

মাঃ কিরে!!!!

আমিঃ হুম আছে আমার কাছে,রাখো পরে কথা বলবো।।।

এভাবেই রেখে দিলাম ফোনটা। মানুষ কি অদ্ভুত! সময়ের সাথে সাথে সব ভুলে যায়,তাই হয়ত আজ তোমায় নিয়ে এতো জল্পনা কল্পনা নেই, হয়ত অবচেতন মনে তুমি ঠিকই  স্থান করে আছো তোমার আগের সেই জায়গায়,কিন্তু শতকিছুর চাপায় আর আগের মতো উঠে আসতে পারছো না।

ফাগুন সত্যি কথা বলতে তোমার সাথে এখন আমার “হয়ত” শব্দটি জড়িয়ে আছে,তাই আগের ফাগুন তুমি ঠিকই আছো কিন্তু আমি আমাকে ধীরে ধীরে হারিয়ে ফেলছি।  আসলে তোমাকে নিয়ে একা একা আহলাদী করা যায় তুমি বলো? আহলাদী করতেও তো সবাইকে প্রয়োজন তাইনা?একেকজীবনে তোমার সাথে  আহলাদী করার জন্য একেকজনকে একেকসময় পেয়েছি এখনতো,,,,,,তাই এখন সব  আহলাদ নিজের ভিতর পুষে রাখি,দমিয়ে রাখি।

জানো ফাগুন, তবে খুব মিস করি আগের আমিকে যেকিনা তোমার মত প্রতিবছর ফিরে আসা প্রত্যেক দিবস উদযাপন করত সেই আমি এখন,,,,, মাঝে মাঝে মনে হয় এ যেন অচেনা আমি যাকে আমি নিজেই চিনি না 😭।

এখন আর তুমি এলেও মন আনচান করে না, ইচ্ছে  করে না আগের মতো হতে!!!কারন প্রত্যাশা থাকলেই খারাপ লাগা,তবুও,,,,,,,,,

অনেক কথা বললাম এ বছর, কালতো তুমি আবার আসবে তোমার রুপে তাই না?আমিও চাই আমাকে আগের রুপে সাজিয়ে তোমাতে জড়িয়ে রাখতে। তবে আফসোস একটাই😭 হলুদ ফুল পাওয়া যাবে না অতসকালে।

তাতে কি!!!তবুও তোমায় নিয়েই দিনটি আগের মত কাটাতে চাই।।।। যদিও আগের মতো হবে না তবুও নিজেকে সাজাতে ক্ষতি কি! বলাতো যায় না যদি পরের বছর ঔ ফাগুনে আমি আর পৃথিবীতে না থাকি😭তখন চাইলেও আর,,,,, বাকিটা বুঝে নাও।।।।। যাই আলমাড়ী খুলে দেখি যদি পাই একটা হলুদ শাড়ী🥰।

আজ এ পর্যন্ত, তুমি আসার অপেক্ষায়।।।।

“শুভ ফাল্গুন”

ইতি

হাওয়া,,,

ছবিঃ নিজের।

২৭৬জন ৯৪জন
0 Shares

৮টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য