প্রথম দেখায় প্রেম – Love at first sight

তৌহিদ ১২ আগস্ট ২০২০, বুধবার, ০১:৪৬:৪৯অপরাহ্ন অন্যান্য ৩১ মন্তব্য

প্রথম দেখাতেই প্রেম! যাকে আমরা বলি Love at first sight এটি আসলে কি? একটি গবেষণা বলেছে এটি সম্ভবত ক্ষণিকের মোহ ছাড়া আর কিছুই নয়। সত্যিই কি প্রথম দেখায় প্রেম বলে কিছু আছে? চলুন জানার চেষ্টা করি।

ধরুন আপনি একটি ঘরে প্রবেশ করেই থমকে গেলেন। দেয়ালে বিপরীত লিঙ্গের কারও ছবি দেখে আপনি উদ্বেলিত হলেন। আতশবাজির মত আপনার মনে ঝলকানি এলো। আক্ষরিক অর্থে এটি ঠিক ভালোবাসা নয়। আপনি ছবিটির যে মানুষটিকে দেখে তৎক্ষণাৎ তাকে ভালোবেসে ফেললেন সেটি আপনার মনে দীর্ঘদিন লালন করা প্রেমিক/প্রেমিকার অথবা মনের চাওয়া/পাওয়ার প্রতিচ্ছবি। প্রথম দর্শনে যে দুর্দান্ত ভালবাসা ( LAFS- love at first sight) আপনি অনুভব করেন মনে রাখবেন, সেটি আসলে আপনার দীর্ঘ অপেক্ষার একটি প্রতিচ্ছবি। যা পুরোপুরি একধরনের রোমান্টিক কমেডি দ্বারা আপনার অবচেতন মন দেখতে চেয়েছে এবং ছবিটি দেখার পরে তা আপনার মনে লালিত দীর্ঘ কামনারই প্রতিফলন হিসেবে এটির বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে।

এতো গেলো ছবির কথা। এখন আসুন একটু অন্যভাবে চিন্তা করি। আপনি রাস্তায় হাঁটার সময়, রিক্সা যাত্রায়, পার্কে হাটাহাটি করার সময়, পার্টি, আড্ডায় কিংবা কারো মাধ্যমে একজনের সাথে পরিচয় হতেই তাকে হুট করে আপনার ভালো লাগলো। আপনার মনে হলো আরে এইতো সেই যাকে আপনি এতদিন খুঁজেছিলেন! আপনি বিবাহিত বা অবিবাহিত যেই হোন, এমনটা হতেই পারে।

আবার হালের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে, অন্যলাইনে মন্তব্য আদানপ্রদান করতে করতে তা চ্যাটিং এর দিকে ধাবিত হওয়া এবং ধীরে ধীরে তাকে আপনার ভালোলাগা; এটিও কি ভালোবাসা? অথচ এক্ষেত্রেও আপনি বিবাহিত বা অবিবাহিত হতেই পারেন। তাকে দেখামাত্র বা অদেখা থাকা অবস্থাতেও আপনার মনে ভালোবাসার নতুন নতুন সংজ্ঞা উঁকিঝুঁকি দিতে থাকে। আপনি যদি মনে করে থাকেন সেটি ভালোবাসা, তাহলে আপনি ভুল ভাবছেন। এটি ক্ষণিকের মোহ ছাড়া আর কিছুই নয়। আপনি যদি বোকা না হন বা মানসিক অবসাদগ্রস্ততায় না ভোগেন তাহলে এটি যে একধরনের মোহ তা আপনাকে স্বীকার করতেই হবে।

ভালোবাসার কথা ভাবাটা আসলে রোমান্টিকতারই একটি অংশ। যদিও এটি অদ্ভুত শোনায় তবে মনের ভাব আদানপ্রদান করাটা আপনার মনের কামনা, বাসনা বা সাধারণ শারীরিক আকর্ষণের সাথে সবসময় সম্পর্কযুক্ত নাও হতে পারে। সত্যিকারের প্রেমের তুলনায় বিপরীত লিঙ্গের প্রতি সাময়িক মোহ অনেকসময় আপনার মনকে একধরনের রোমান্টিক অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে প্রবাহিত করে। এটি স্বাভাবিক, দোষের কিছুই নয়। তবে সমস্যা হয় তখনই যখন আপনি এই মোহকে ভালোবাসা মনে করে স্বাভাবিক বিচারবুদ্ধিবোধ লোপ পেয়ে কিছু অস্বাভাবিক কর্মকাণ্ড করেন এবং এটি যে ভুল তা বোঝার মত ক্ষমতাও আপনি হারিয়ে ফেলেন।

ইন্টারন্যাশনাল অ্যাসোসিয়েশন ফর রিলেশনশিপ রিসার্চ জার্নালের ডিসেম্বর ২০১৭ সংখ্যায় প্রকাশিত একটি প্রবন্ধে এ সম্পর্কিত গবেষণায় বলা হয়েছে-

প্রথম দেখায় ভালোবাসা বা love at first sight এটির সত্যই কোন উপস্থিতি রয়েছে কিনা সে সম্পর্কে এখনও তেমন কোন বৈজ্ঞানিক তদন্ত যাকে বলে গবেষকদের পরীক্ষাগার গবেষণা হয়নি। তবে এ বিষয়টির সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের জন্য তারা একটি অনলাইন গবেষণা প্রতিষ্ঠান, তিনটি ডেটিং ইভেন্ট সহ মোট তিনটি প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করেছিলেন যার মধ্যে একটি স্পিড ডেটিং ইভেন্ট ছিল। তারা প্রায় ৪০০ অংশগ্রহণকারীদের সাথে কাজ করেছিল যাদের বেশিরভাগই ডাচ এবং জার্মান শিক্ষার্থী ছিলো। তারা অংশগ্রহণকারীদের প্রথমে love at first sight এর অভিজ্ঞতা আছে কিনা তা জানার জন্য শিক্ষার্থীদের জিজ্ঞাসাবাদ করেছিল। তারপরে তারা যে  বিষয়গুলি খুঁজে পেয়েছিল তা হচ্ছে শারীরিকভাবে আকর্ষণ, প্রতিশ্রুতি এবং আবেগের প্রতিফলন।

পরীক্ষাগুলিতে দেখা গেছে যে, অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে ৩২ জনই ৪৯ বার love at first sight এর অভিজ্ঞতা অর্জন করেছেন (যার অর্থ বেশিরভাগেরই এই অভিজ্ঞতা হয়নি)। তবে প্রতিশ্রুতি এবং ঘনিষ্ঠতার মতো ভালবাসার নির্দিষ্ট অংশগুলির সাথে এর (প্রথম দেখাতে প্রেম) কোন সম্পর্কই নেই।

গবেষকরা গবেষণায় লিখেছেন- ” প্রথম দেখাতে প্রেমের অভিজ্ঞতাগুলি উচ্চ আবেগ, ঘনিষ্ঠতা বা প্রতিশ্রুতি দ্বারা চিহ্নিত করা যায়না। শারীরিক আকর্ষণই এর অন্যতম একটি কারন। সেক্ষেত্রে বলা যেতে পারে – প্রথম দেখাতে প্রেম বিষয়টি প্রেমের আলাদা কোন স্বতন্ত্র রূপ নয়, বরং এটি একটি প্রাথমিক আকর্ষণ যা কিছু লোক প্রথম দর্শনের, মুহুর্তের বা পূর্বপরিকল্পিতভাবেই নিজের love at first sight হিসেবে চিহ্নিত করতে ভালোবাসে।”

গবেষকরা এর অর্থ ব্যাখ্যা করলেন এভাবে যে- অনেক লোক তাদের নিজস্ব সফল সম্পর্কের ( প্রতিশ্রুতবদ্ধ সম্পর্ক) সাথে অপর একটি love at first sight লেবেল সংযুক্ত করে। কারন “দম্পতিরা তাদের সম্পর্ক বাড়ানোর জন্য অবচেতন মনের হাতছানিকে প্রকাশ্যে নিয়ে আসতে পছন্দ করে।” সম্ভবত তারা সরাসরি তাদের সঙ্গীকে উদ্দীপক বা হটি হিসাবে বিবেচনা করেছিল এবং স্পষ্টতই তাকে তারা আরও ভালভাবে জানতে চাইত। যখন সেখানে সে নিজেকে নিস্ফল মনে করে তখন প্রত্যেকেই এই তাৎক্ষণিক সম্পর্কটিকে যার সাথে স্থাপন করতে চায়। এটি সাধারণত মস্তিষ্কে হরমোন নিঃসরণকৃত লালসা ও শারীরিক আকর্ষণ সম্পর্কিত একটি জৈবিক প্রতিক্রিয়া।” কাজেই প্রথম দেখাতেই ভালোলাগা বা ভালোবাসা এটি সম্পূর্ণ একটি ভুল ধারনা এবং নৈতিকতা বিবর্জিত একটি কাজ।

“কাউকে সত্যই ভালবাসতে হলে আপনাকে তার সম্পর্কে জানতে হবে। তাদেরকে ভালোবাসার উদ্দেশ্যগুলি বুঝতে হবে, তাদের মূল্যবোধগুলি সম্পর্কে শিখতে হবে। তারা বিশ্বকে কীভাবে দেখে, তাদের ভবিষ্যতের লক্ষ্যগুলি জেনে আপনাকে দীর্ঘমেয়াদী প্রেমের দিকে নিজের পরিচালিত রসায়ন এবং সংযোগগুলি স্থাপন করতে হবে। এটাই হচ্ছে ভালোবাসা। এর বাইরে যা কিছু আকর্ষণ সেটা সাময়িক বা ক্ষণিকের মোহ ছাড়া আর কিছুই নয়।”

নিজের জীবনসঙ্গীকে বোঝার চেষ্টা করুন, আপনার চাওয়া-পাওয়াগুলিকে তাকে বুঝতে দিন। তবেই আপনি মনের মত একজন জীবনসঙ্গী পেতে পারেন। মনে রাখবেন, ভালোবাসা একটি আদর্শের দ্বারা পরিচালিত হয়। সাময়িক মোহে যে ভালোলাগা সেটি আদর্শগত প্রেম হতে পারেনা। এই মোহের ফাঁদে পা দিলে আপনার জীবনে জটিলতা বাড়বে বৈ কমবে না।

————

* তথ্যসূত্র- লেখায় নীল কালিতে হাইলাইট করা হয়েছে।

** ছবি- নেট থেকে নেয়া।

৩৬৬জন ১জন
0 Shares

৩১টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ