প্রতারণার গল্প #১

বায়রনিক শুভ্র ৬ মার্চ ২০১৭, সোমবার, ১০:১৫:৪৩অপরাহ্ন গল্প ২৮ মন্তব্য

জনৈক ফেসবুক সেলিব্রেটি , ধরি তার নাম ‘ক’ । সচারচার সেলিব্রেটি বলতে যা বোঝায় , জনাব ‘ক’ তা নন । ‘ক’ যে খুব ভালো লেখেন তা কিন্তু নয় । তবে আইডিগুলো তাকে চেনে । আমার মত জনাব ‘ক’ এর চরিত্রগত কিছু কানাঘষা ভার্চুয়ালি চাউর থাকলেও , অন্যান্য দিক থেকে ‘ক’ আমার চেয়েও ভালমানুষ । ‘ক’ মিথ্যা বলেন না । ‘ক’ শো-অফ করেন না । ফেসবুকে ‘ক’ এর অনেক খাতিরের মানুষ থাকলেও , ‘ক’ কারো সাথে খুব একটা বাস্তবে দেখাও করেন নাই । আরেকটা বিষয় , ‘ক’ লুলামি করেন না , তবে প্রেম করেন । এরপরেও নারীরা তাকে বেশ পছন্দ করেন ।

 

একদিন জনাব ‘ক’ এর একটি ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট আসল । উক্ত আইডিটি রবীন্দ্র নাথ এর বিখ্যাত একটি নৃত্য নাট্য এর নায়িকার নামে খোলা । এটা দেখে ‘ক’ বাবু প্রলুব্ধ হয়ে “দেখাই যাক না , ফেইক না রিয়েল” এই ভেবে ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট একছেপ্ট করলেন । এক্সেপ্ট করে বুঝতে পারলেন আইডিটি ফেইক নয় , কারণ উক্ত আইডির মালকিনের প্রচুর বিভিন্নভাবে তোলা ছবি সেখানে বিদ্যমান ।

 

‘ক’ সাহেব সেলিব্রেটি মানুষ , প্রতিদিনই তার ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট আসে । অনেকর টা তিনি গ্রহন করেন । ফলাফলে গ্রহন করে ব্যাপারটা তিনি ভুলেও গেলেন । এভাবে সময় কিছুটা কাটল । একদিন রাতে ‘ক’ সাহেব খেয়াল করলেন উক্ত আইডি থেকে প্রচুর পরিমানে গণহারে ‘ক’ সাহেবের পুরানো পোস্ট এ লাইক দিয়ে যাচ্ছে । একরকম বিরক্ত হয়ে ‘ক’ সাহেব আইডি টিতে মেসেজ দিলেন “আপু এত লাইক দিয়েন না , ডর লাগে” । ব্যস সেই শুরু , তাঁদের মধ্যে এরপরে কথা চলতেই থাকল । ধরি উক্ত আইডির মালকিনের নাম “গ” ।

 

‘ক’ সাহেব কথা বলে জানতে পারলেন , ‘গ’ একটি নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের বড় মেয়ে । অনেক স্ট্রাগেল করে তার বাবা তাকে পড়াশুনা করাচ্ছে । ‘গ’ এর আগে একটা রিলেশন ছিল । কিন্তু তার প্রেমিক ছিল মুসলিম , ফলাফলে ব্রেক আপ হয়ে গেছে । ‘গ’ একটি প্রতিষ্ঠানে পার্ট টাইম চাকুরী করে । ঢাকার একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে লেখাপড়া করে এবং ‘গ’ এর মাথাপাগলা একটা ভাই আছে । যে কিনা মেডিক্যালে পড়ে ।

 

‘ক’ এবং ‘গ’ এর বেশ জমে গেলো । একে একে ‘ক’ তার নিজের কথা , পরিবারে কথা সব খুলে বলল । তার প্রাক্তন প্রেমিকাদের কথা বলল । বন্ধুদের কথা বলল । আস্তে আস্তে ‘গ’ , ‘ক’ এর বন্ধুদের সাথেও পরিচিত হল । ‘ক’ এর ভাষ্য মতে মেয়েটা সুন্দরী ছিল না , মেয়েটির ফ্যামিলি স্ট্যাটাস একদম খারাপ ও আর্থিক ভাবে অসচ্ছল , মেয়েটি ভালো কোন প্রতিষ্ঠানের ছাত্রীও  না । কিন্তু সে ছিল খুবই কেয়ারফুল । দূরে থেকে ‘ক’ এর প্রতি ও তার পরিবারের প্রতি যতটা কেয়ার নেওয়া যায় ততটা কেয়ার ‘গ’ নিত । তার এই কেয়ারফুল মনোভাব ও কিঞ্চিত পাগলাটে ধাঁচের ‘ক’ কে লাগাম পরানোর ক্ষমতা দেখে , বুদ্ধিমান ‘ক’ বোকার মত একটা কাজ করে বসল , মানে ‘গ’ এর প্রেমে পড়ে গেলো । প্রেমে পড়াটা কি বোকার মত কাজ ? অবশ্যই না । তাহলে আমি পৃথিবীর মধ্যে সবচেয়ে বোকা প্রাণী । কারণ আমি প্রেম করি,প্রেমে পড়িও । তাহলে কেন বললাম বোকার মত কাজ ? যদি এই বিরক্তিকর লেখাটি আপনারা পুরাটা পড়েন তাহলে বুঝতে পারবেন কেন বোকার মত কাজ বলেছি ।

 

এখন আসুন ‘ক’ এর ব্যাপারে কিছু কথা বলি । ‘ক’ হ্যান্ডসাম, ড্যাম স্মার্ট না হলেও মোটামুটি চলনসই চেহারার একজন পুরুষ । তার হাইট আমার তুলনায় বেশি এবং আমাকে কেউ “বাইট্যা” বলে না ।  সরকারী চাকুরীজীবী বাবা-মায়ের একমাত্র পুত্র , ‘ক’ এর একটি বড় বোন আছে যিনি বিবাহিতা এবং এডমিন ক্যাডার । ‘ক’ ছাত্র হিসাবে খারাপ না এবং একটি মধ্যম মানের প্রতিষ্ঠান থেকে ভালো বিষয়ে,ভালো নম্বর নিয়ে ‘ক’ স্নাতক ডিগ্রী তখন শেষ করেছিল । তখন সে বেকার হলেও, তার ফিউচার ফিলিপ্স বাতির মত ফকফকা এটা নিঃসন্দেহে বলা যেত ।

 

সবকিছুই মিস ‘গ’ জানতেন । একদিন ঝড় বৃষ্টির গভীর রাতে ‘ক’ ও ‘গ’ এর মধ্যে কথা বলার সময় ‘ক’ ও ‘গ’ একে অপরকে “ভালোবাসি” বলে ফেলল । তবে ‘গ’ শর্ত দিল বিয়েটা খুব দ্রুত করতে হবে । আর তা যদি সম্ভব নাও হয় তাহলে অন্তত দুই পরিবারের মধ্যে কথাবার্তা পাকা করে রাখতে হবে । ‘ক’ তাতে রাজি হল , কারণ অ-রাজি হওয়ার মত কোন শর্ত ‘গ’ দেয় নি ।

 

বেশ ভালোভাবেই ‘ক’ ও ‘গ’ এর মধ্যে প্রেম চলতে থাকল । প্রেম হয়ে যাওয়ার পরে তাদের মধ্যে দেখা হল এবং দুজন দুজনকে বেশ পছন্দও করল । দুধ যত ফুটানো হয় তত ঘন হয় । নিয়মিত পরিচর্যায় তাঁদের প্রেমও ঘন হতে থাকল । তাঁদের মধ্যে বার বার দেখা হল , পাশাপাশি বসা, রেস্টুরেন্টে খাওয়া,সেলফি তোলা,ঢাকার আশেপাশে ঘুরতে যাওয়া “সবই” চলছিল । ‘ক’ মিস ‘গ’ এর ভালোবাসায় যতটা না মুগ্ধ হচ্ছিল তার চেয়ে বেশি জড়িয়ে যাচ্ছিল তার কেয়ারিং স্বভাবের কারণে । যেমন তাঁদের দেখা হলে ‘গ’ নিজেই সব খরচ বহন করতে চাইত , এবং বেশিরভাগ খরচ ‘গ’ এর পার্স থেকেই বের হত । যুক্তিটা ছিল “তুমি তো বেকার,আমি তো পার্ট টাইম জব করি” । ‘ক’ তার বৃদ্ধ বাবা-মায়ের যতটা খোজ খবর নিত তার চেয়ে বেশি খোজ রাখত ‘গ’ । ‘গ’ এর কারণেই সে বার বার বাবা-মায়ের কাছে গিয়ে বসত , শরীরের খোজ খবর নিত ।

 

এভাবে বেশ ভালোই চলছিল সব । ‘ক’ চাকুরীর প্রস্তুতি নিচ্ছিল সেই সাথে ‘গ’ কে বিয়ে করার ব্যাপারেও নিজেকে প্রস্তুত করছিল । কিন্তু কিছু কিছু বিষয় ‘ক’ কে একটু একটু কনফিউসড করছিল । যেমন ‘গ’ মাঝে মাঝেই দির্ঘ সময় ফোন রিসিভ করে না । জিজ্ঞাসা করলে বেশিরভাগ সময়েই জবাব দেয় “ফোন রুমে রেখে পাশের রুমে গল্প করতে গয়েছিলাম” , “ফোন চার্জারে লাগানো ছিল” , “ফোন সাইলেন্ট করা ছিল” ইত্যাদি । এরবাইরেও মাঝে মাঝেই ‘গ’ এর ফোন দীর্ঘ সময় ওয়েটিং থাকত । এব্যাপারে প্রশ্ন করলে জবাব দিত “মামা ফোন করেছিল” , “ভাই ফোন করেছিল” , “আমার বান্ধবী অমুক বিদেশে থাকে সে ফোন করেছিল” , “কাজের জায়গা থেকে ফোন করেছিল” , “মা ফোন করেছিল” , “বিল্লার ব্রেক-আপ হইছে তাই মন খারাপ আমি স্বান্তনা দিচ্ছিলাম”  ইত্যাদি । ‘ক’ কিছুতেই মেলাতে পারত না “মা কেন রাত ১২ টার পরে ফোন দেবে” , “কাজের জায়গা থেকে কেন রাত ১২ টার পরে ফোন দেবে” । এই বিষয় নিয়ে বেশি প্রশ্ন করলে ‘গ’ জিজ্ঞাসা করত “তুমি কি আমাকে সন্দেহ কর” ? এই প্রশ্নের জবাবে কোন প্রেমিকের পক্ষেই বলা পসিবল না যে “হ্যা করি” তাহলেই ৩য় বিশ্ব যুদ্ধের সুচনা হবে, এমনকি সম্পর্ক ভেঙ্গেও যেতে পারে । তাই ‘ক’ এর মনে একটু খচ খচ করলেও ‘ক’ এসব নিয়ে ভয়ে ঘাটাতো না । এর বাইরে ‘ক’ আরেকটা বিষয় আবিষ্কার করল,তা হল “রাতে তাঁদের কথা হয়ে যাওয়ার পরে প্রতিদিনই ‘গ’ এর ফোন ওয়েটিং থাকে । প্রশ্ন করলে সদ উত্তর ‘গ’ দেয় না । আবার বেশি প্রশ্ন করলে ঝগড়া লেগে যায় ।

 

একদিন এসব নিয়ে তাঁদের মধ্যে একটা যুদ্ধ হয়ে গেলো । শেষে ‘গ’ কথা দিল তার ফোনে কথা বলার এই অভ্যাস সে হুট করে বন্ধ করতে পারবে না । তবে সময় দিলে সে নিজেকে শুধরে নেবে । ‘ক’ ভবিষ্যতের কথা ভেবে ‘গ’ কে সময় দিল । তাঁদের প্রেম আবার স্মুথলি চলতে থাকল ।

 

এর মধ্যে ‘গ’ তার দাদু দিদাকে ‘ক’ এর ছবি দেখাল , তারা নাত-জামাই হিসাবে ‘ক’ কে পছন্দ করল । ‘গ’ এর মায়ের সাথে ফোনে ‘ক’ এর কথা হল , তিনিও ‘ক’ কে পছন্দ করলেন । এসবের ভিত্তিতে ‘ক’ তার মা ও অন্যান্য আত্মীয় স্বজন কে ‘গ’ এর ছবি দেখালো । স্বাভাবিক ভাবে চেহারা নিয়ে সবার একটু আপত্তি থাকলেও একমাত্র ছেলে ‘ক’ এর আগ্রহ দেখে সবাই রাজিও হল । ‘ক’ এর মধ্যে একটা মাঝারি ধরনের সরাকারি চাকুরী পেয়ে গেলো । তবে সে ‘গ’ এর কাছে সেটা গোপন রাখল , যে একবারে পারিবারিক ভাবে বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে ‘গ’ কে সারপ্রাইজ দিয়ে দেবে । কিন্তু ‘ক’ জানত না তার জন্যে এর চেয়ে বড় সারপ্রাইজ নিয়ে ‘গ’ অপেক্ষা করছে ।

 

প্রতিদিনকার মত ‘ক’ আর ‘গ’ রাতে ফোনে কথা বলছিল । এর মাঝে ‘ক’ এর ফোনে একটি অপরিচিত নাম্বার থেকে কল আসল দুইবার । ‘গ’ এর সাথে কথা শেষ করে ‘ক’ যখন সেই নাম্বারে ফোন দিল , তখন ওই নাম্বার ওয়েটিং ছিল । ব্যস মিটে গেলো । এরপরের দিন দুপুর বেলা যখন ‘ক’ আর ‘গ’ আবার কথা বলছিল তখন আবার সেই নাম্বার থেকে কল আসল । তাই কথা শেষ করে ‘ক’ ওই নাম্বারে আবার ফোন দিল , কিন্তু ফোন রিসিভ হল না । দুপুরের ঘুমের প্রস্তুতি নিচ্ছিল ‘ক’ এর মধ্যে ওই নাম্বার থেকে আবার ফোন আসল । ‘ক’ ফোন রিসিভ করে জানতে চাইল কে? ওই পাশ থেকে বলল “আপনি আমাকে চিনবেন না, আপনার সাথে আমি একটু কথা বলতে চাই” । ‘ক’ বলল ‘বলুন’ । মোদ্যাকথা ওই নাম্বার থেকে ফোন দিয়ে যা বলল তার সারমর্ম “আমি ‘গ’ এর বয়ফ্রেন্ড । ৭-৮ বছর ধরে আমাদের সম্পর্ক । আপনি যদি মানসিক ভাবে ‘গ’ এর সাথে জড়িয়ে পড়েন তাহলে এখনই কেটে পড়ুন । কারণ আমাদের কোর্ট ম্যারেজ হয়ে গেছে , সেইসাথে আমাদের বাড়িও পাশাপাশি । তাই আপনি চাইলেও ওকে ছিনিয়ে নিতে পারবেন না” ।

 

‘ক’ ফোন দাতার সাথে কথা বাড়ালো না । ‘গ’ কে নাম্বার টা মেসেজে পাঠিয়ে , ফোন দিয়ে সব কিছু বলল । ‘গ’ বলল , ওয়েট আমি সব কিছু জানাচ্ছি । কিছুক্ষণ পরে ‘গ’ ফোন দিল । বলল দুজনকেই আমার কিছু কথা জানানো দরকার । তখন ‘ক’ বুঝতে পারল কনফারেন্সে আরও কেউ একজন আছে । এরপরে ‘গ’ বলা শুরু করল “শোয়েব আর আমার অনেক দিনের সম্পর্ক,আমাদের বলতে গেলে বিয়েই হয়ে গেছে।তবে ‘ক’ তোমাকে আমার ভালো লেগেছিল । ভেবেছিলাম বিয়ে করব । তবে আসলে আমার পক্ষে শোয়েব কে ভুলে যাওয়া সম্ভব না । আমি সরি” । এরপরে ‘ক’ এর আর কি বলার থাকতে পারে ? ‘ক’ শুধু বলল “আমি তো গায়ের উপরে গিয়ে তোমার সাথে প্রেম করি নি । তুমি নিজেই এগিয়ে এসেছ বলেই আমাদের প্রেম টা হয়েছে । এত সব যখন ছিলই তাহলে আমাকে কেন এর সাথে জড়ালে” ? জবাবে ‘গ’ বলল “আমি সরি , ভুল হয়ে গেছে আমাকে পারলে ক্ষমা করে দাও” । ‘ক’ এর পরে আর কি বলবে ? টেক-কেয়ার বলে ফোন টা রেখে দিল । এরপরেও অনেক ঘটনা ঘটেছে । ‘গ’ এর পরিবার ‘ক’ এর সাথে কথা বলেছে । শোয়েব ‘ক’ কে বারবার ফোন করেছে । কিন্তু সেসবে আমি যাবো না । এই ঘটনার পরে ‘ক’ বুঝতে ও জানতে পারল যে রাতে ‘গ’ কারণ ছাড়াই ফোন রিসিভ করে নি , সে রাতে ‘গ’ এবং শোয়েব এক সাথে ছিল । আর ফোন ওয়েটিং যতবার পেয়েছে ততবারই ‘গ’ শোয়েবের সাথে প্রেম করেছে ।

 

‘ক’ আমার ফেসবুকের এক বড় ভাই । উনি গতরাতে আমাকে ঘটনাটি বললেন । প্রায় একই রকম ভাবে আমিও প্রতারণার শিকার হয়েছি । তবে স্বাভাবিকভাবেই মনে প্রশ্ন জাগে ‘গ’ এরকম কেন করল ? আমার খুব ইচ্ছা করছে এরকম ‘গ’ যারা আছে তাঁদের কাছে জিজ্ঞাসা করি “আপনারা এমন কেন করেন” ? প্রেম হতে যেমন কিছু দরকার হয় না , প্রেম ভেঙে যেতেও কিছু লাগে না । কিন্তু এরকম নষ্টামি মানুষ কেন করে ? আমারও একাধিক প্রেম ছিল । কারো ব্যাপারে সিরিয়াস ছিলাম , কারো ব্যাপারে না । কিন্তু দুইটি রিলেশন আমি কখনও একই সাথে চালাই নি । কাউকে ফালতু স্বপ্নের জ্বালে আমি আটকাইনি । অন্তত এরকম অপমান আমি কাউকে করি নি । কাউকে পরিবারে সাথে পরিচয় করিয়ে দিয়ে সম্পর্কের ভিত্তি শক্ত বানাই নি ।

 

‘ক’ দাদা এখন ভালো চাকুরী করেন । বিয়ের জন্য মেয়েও ঠিক করে ফেলেছেন । তবে উনি ‘গ’ এর দেওয়া অপমান টা ভুলতে পারছেন না । এরকম অপমান কি আসলেই সহজে ভোলা যায় ? উনি একটা কথা বলেছেন কালকে “আমার খুব ইচ্ছা করছিল এই অপমানের বদলা নেই । কিন্তু একটা মেয়ের বিরুদ্ধে বদলা নিতে গেলে তার সাথে আমার যে গোপন মুহুর্ত গুলোর ডকুমেন্ট ছিল তা ফাঁস করে দিতে হত । কিন্তু এতটা নিচে নামতে ইচ্ছা করল না। কিন্তু এই অপমান আমি ভুলতেও পারছি না ” । আগেই বলেছি আমার সাথেও প্রায় এরকমই ঘটেছে(মাত্রা একটু কম) , আমারও কিন্তু প্রতিশোধ নিতে ইচ্ছা করে । বাস্তব জীবনে আমি ছাড় দেওয়া মানুষও নই । কিন্তু ওই যে “আমি মানুষ” , এই কারণেই নিচে নামতে ইচ্ছা করে না । ভালবাসলে যে তাকে পেতেই হবে , এমন নয় । প্রেম এর সম্পর্ক ভেঙে যেতেই পারে । গেছেও আমার । কিন্তু প্রতারণা,অপমান এসব কোন ভাবেই মুছে ফেলা যায় না । ভাই যদি কাউকে দিয়ে না পোষায় তাহলে ছেড়ে চলে যান না , কারণ কেউ সম্পর্ক না রাখতে চাইলে তা টিকিয়ে রাখা যায় না । কিন্তু এই ধরনে নষ্টামি কেন মানুষ নাম ধারী অমানুষ গুলো করে ?

৫১৯জন ৫১৯জন
0 Shares

২৮টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ