প্রকৃতির প্রতিশোধ

হালিমা আক্তার ১৭ জুলাই ২০২২, রবিবার, ০১:০৪:০৬পূর্বাহ্ন পরিবেশ ১৪ মন্তব্য

উত্তপ্ত ধরনী। বিরূপ প্রতিক্রিয়া প্রকৃতির। প্রকৃতি একটু বেশি তেতে আছে বলেই মনে হয়। এশিয়া ইউরোপ জুড়ে তীব্র তাপদাহ। অতীষ্ট জীবন যাত্রা। রাস্তায় বের হলে মনে হয় শরীর পুড়ে যাচ্ছে। মনে হচ্ছে সূর্য তার সমস্ত রাগ ঢেলে দিচ্ছে বসুধার উপর।

স্পেন ও পর্তুগালের তাপমাত্রা ৪০° সেলসিয়াস ছাড়িয়ে গেছে। ফ্রান্সেও একই অবস্থা। ব্রিটেন জরুরি অবস্থা জারি করেছে। পুরো বিশ্বজুড়েই জলবায়ুর বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। আর যাবেই না কেন। প্রকৃতি তার নিজস্ব নিয়মে চলে। আর মানুষ তার নিজস্ব ক্ষমতা বলে প্রকৃতিকে ভেঙে চুরে নিঃশেষ করে দিচ্ছে। পৃথিবী যত আধুনিকায়ন হচ্ছে। প্রকৃতি ততটাই ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।

গাছ কেটে বন উজাড় করে ফেলা হচ্ছে। ক্রমাগত ছোট হয়ে যাচ্ছে বনভূমি। একটি দেশের আয়তনের ২৫ ভাগ বনভূমি থাকা প্রয়োজন। আমাদের ১০ ভাগ বনভূমি আছে কি না সন্দেহ। ক্রমাগত গাছ কেটে ফেলা বৈশ্বিক উষ্ণায়নের প্রধান কারণ। পাহাড় কেটে ঘর বাড়িয়ে এবং রাস্তাঘাট তৈরি করা হচ্ছে। জনসংখ্যা বৃদ্ধির ফলে ফসলি জমির পরিমাণ কমে যাচ্ছে। কলকারখানা এবং গাড়ি থেকে নির্গত হচ্ছে কার্বন ডাই অক্সাইড। পৃথিবী ক্রমশ উত্তপ্ত হচ্ছে। আধুনিকায়নের সুফল ভোগ করতে হলে,  প্রকৃতির দুর্ভোগ্য পোহাতে হবে।মানুষ তার নিজ প্রয়োজনে প্রকৃতির সৌন্দর্য নষ্ট করবে।আর প্রকৃতি বসে চুপচাপ দেখে যাবে। প্রকৃতির ও তো শোধ নিতে ইচ্ছে হয়। বৈশ্বিক উষ্ণতা প্রকৃতির চরম প্রতিশোধ।

প্রকৃতি প্রতিশোধ নেক আর যাই করুক। আমরা তো বলতেই পারি।

চাতকের মতো চাহিয়াছি আকাশ পানে।

দৃষ্টি খুঁজে ফেরে মেঘ কোথায় আছে।

আষাঢ় গেল। শ্রাবণ আসলো।বর্ষা তুমি এলেনা।

ওগো মেঘ তুমি এত নিঠুর হইও না।

বৃষ্টি হয়ে এসো তুমি। সিক্ত করো মোরে।

পিপাসিত আমি।

তুমি ছাড়া তৃষ্ণা কে আর মিটাবে।

 

 

 

 

 

 

 

১৬৮জন ৩১জন
0 Shares

১৪টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ