প্যাঁচোয়া

শিরিন হক ৭ মে ২০২০, বৃহস্পতিবার, ১০:০৫:১৩অপরাহ্ন কবিতা ১৭ মন্তব্য

জিলাপির প্যাঁচ দিয়ে হয় যত কারবার।
মনের প্যাঁচ আছে যত, চেষ্টা ঢাকবার।
বড় খোকা মারেন প্যাঁচ মোক্ষম সময়ে
প্যাঁচ শুধু জিলাপিতে,
নেই আর কিছুতে?

রাজা প্যাঁচ মেরে জান রাজ্যনীতিতে,
গোপাল রাখে প্যাঁচ বুদ্ধির ঝুড়িতে।

যত প্যাঁচ কু-তে আছে, সু -কেবল প্যাঁচ হীন।

শব্দে প্যাঁচ লেগে লেখকের যায় দিন।
দেশটা হয়েছে মারপ্যাঁচে বন্দি।
মানুষ খুঁজছে বাঁচবার ফন্দী।

প্রেমের বাজারে প্যাঁচ মেয়েদের ভোলাতে,
প্যাঁচ দিয়ে কেটে পরে বিয়ের বেলাতে।

দড়িতে প্যাঁচ দিয়ে গলায় দিলে ফাঁস
পরাণ’টা যাবে চলে করবে হাঁসফাস।

নাটাইয়ের সুতোয় প্যাঁচ লেগে গেলে একবার,
গাট্টা খেতে হবে, উপায় নেই জিতবার।

পানিতেও প্যাঁচ মারে হয়ে যায় গোল্লা
কত প্যাঁচ আছে, বলে যাও মোল্লা!

বাতাসের প্যাঁচে পড়ে বাড়ি ঘর উড়ে যায়
সংসারের প্যাঁচে সাধারণ ধরাশয়।

নারী আর পুরুষের স্বভাবের ওজনে,
কে কাকে হারাবেন প্যাঁচ মারেন কথাতে।

স্ক্রু ঢিলা হলে বোকা বনে সজনে
মেশিনটা অকেজো ফেলে রাখি দোকানে।

চাকুরীর বাজারে মামা-খালু মারে প্যাঁচ,
বসের টেবিলে। ফাইলেও ঘোরপ্যাঁচ।

প্যাঁচে পড়ে পরকিয়া, করো যদি ঘোরা ফেরা
জীবন্ত লাশ হবে যারা আছো ভোলা-ভালা।

সাপে প্যাঁচ দিয়ে স্বীকার ধরে খায়
স্বীকারির বাচঁবার তরে প্যাঁচ এঁটে যায়।

যুক্তি খাাতিরে বক্তার মারপ্যাঁচ
কেউ হারে কেউ বা জিতে যান।

লিখলাম সোজা কথা কবিতার ভাষাতে
কে জানে,কে ধরবে প্যাঁচ মোর কথাতে!
প্যাঁচ নয় আর কোনো
এসো সবে সোজাতে।

……………………

৭/৬/২০২০

৩৩৪জন ২৪২জন
15 Shares

১৭টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য