– পাগলী……
– কি ?
– কাল তোমার হাত ভর্তি থাকবে কাঁচের চুড়ি। কপালে ছোট্ট কালো টিপ। চাইলে ঠোঁটজোরাও হালকা ভাবে রাঙ্গাতে পারো। আর ঐ যে কাজলদানীটা! এটা ঘরের কোন কোণায় পরে আছে। খোঁজখবর রাখো কিছু? অযত্নে-অবহেলায় কেমন আছে এটা পারলে একবার দেখে নিও।
– ইস! মাঝে মাঝে আমার চেয়েও আমার টিপ, লিপস্টিক আর কাজলদানীর প্রতি তোমার প্রেম দেখলে গাঁ জলে যায় একদম। হুহ।
– পানি ঢালতে হবে? ব্যাপার না! কিছুক্ষন আগেই বৃষ্টির সাথে অনেক কথা হয়েছে আমার। ওদের কাল নিমন্ত্রণ করেছি। দলবল নিয়ে বিকেল ৪টা নাগাদ পৌছে যাবে। তুমি শুধু লাল টুকটুকে সুতি শাড়িটা পড়ে চলে এসো।
– শাড়ি পড়ে আসতে হবে? আমি পারব না। প্লিজ…
– তুমি জানো না। শাড়িতে তোমাকে কতটা সুন্দর লাগে। জলে ভেজা পরী দেখেছো কখনও? দেখোনি। শাড়ি পড়ে এসো। কাল আমি তোমাকে দেখাবো।
– উহু! তুমি জানো না পাগল! শাড়ি আমার বড্ড অবাধ্য। কিছুতেই শাসন মানে না সে। এই শাসন না মানা বস্তুটাকে কে সামলাবে শুনি?
– তা না হয় আমিই সামলে নিলাম। তাতে হবে তো?
– উমম… জানো তো? সুযোগ পেলে বৃষ্টিও কিন্তু কম নির্লজ্জ হয়না। ভেতর বাহির সব ছুয়ে দেখতে চায়। আর তুমিতো……… 
– হুম আমিও না হয় বৃষ্টির মত একদিন নির্লজ্জ হলাম। তাতে ক্ষতি কি বল?
– তুমি না.. পাজি একটা।
– এটা পুরান কথা। নতুন কিছু নেই?
– হইছে আর নতুন কিছু শুনতে হপে না। হুহ! এতক্ষনতো হাসের মত খুব পক পক করছো। নিজের বেলা ষোল আনা। শুধু আমার বেলাতেই এটা না ওটা। নাহ? তুমি কাল কি পরে আসছো শুনি একটু? ঐদিন কি যে একটা রঙের শার্ট পড়ে এসেছিলে। ওয়াক…
– ওটা আমার খুব পছন্দের। কাল নাহয় ওটা পড়েই আসব। আর না হয় হাফ-প্যান্টের উপর ছেড়া-ফারা একটা পাঞ্জাবী।
– হাফ- প্যান্টের উপর পাঞ্জাবী? হা হা হা … তুমি না সত্যি একটা পাগল।
– পাগল তোর জন্যেরে পাগল এ মন………… পাগল……………।

 

সোনেলায় প্রথম পোষ্ট। একটু লুতুপুতু হয়ে গেছে…। :p

যাইহোক, সবাইকে পহেলা বৈশাখের অগ্রিম শুভেচ্ছে। 🙂

২৪৫জন ২৪৩জন
0 Shares

৭টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য