পুরুষের সম্মান !!

সিহাব ১৮ জুন ২০১৪, বুধবার, ১২:০৬:২৯পূর্বাহ্ন বিবিধ ৬ মন্তব্য

ক্যাম্পাসের এক জায়গায় দাঁড়িয়ে কয়েকজন বন্ধু আড্ডা দিচ্ছে। কোন বিশেষ স্থানে না গিয়ে একাডেমিক ভবনের পাশে দাঁড়িয়েই শুধুমাত্র আড্ডা দেয়ার উদ্দেশ্য হচ্ছে- ক্লাস ছুটির পর-পরই এই ভবনের দরজা দিয়ে বের হবে জুনিয়র ক্লাসের ছাত্র-ছাত্রীরা। মিশন জুনিয়র ছাত্রী দেখা ! কে সুন্দর, কে কী ধরনের সেটা নিয়েই আড্ডা আর চোখের শান্তি !!!
বন্ধুদের মাঝেও একছেলে ছিল যে কিনা এই ধরনের কাজকে অতীব ঘৃণা করে। আর সেই দলের মধ্যেই একজন ছিল যে কিনা এই ধরনের কাজে, আর ছাত্রীদের প্রতি মন্তব্য ছুঁড়ে দিতে ওস্তাদ। যার ফলে আরো জুনিয়র কয়েক ব্যাচের ছেলেরাও মধুর চাকের মতই ভীর করছে। আর সেই ভাইয়ের মন্তব্যে হাসছে, আর মাঝে মাঝে নিজেরাও কিছু যোগ করছে !!
বন্ধুদের এহেন কার্য সহ্য করতে না পেরে বলেছিল সে সেই পটু ছেলেকে ” তুই এমন করছিস যেন জীবনে মেয়েই দেখিস নাই !! আরে পৃথিবীতে তো দুই জাতই আছে। তাই বলে বিপরীত জাতকে এমন শকুনী চোখে দেখতে হবে !!??”

পটু… ” আরে ওরা তো দেখানোর জন্যেই বের হয়েছে। আর আমরা দেখলেই দোষ ??!!”

বন্ধু … ” তুই এত নিশ্চিত হইলি ক্যামনে?? !!”

পটু… ” আরে, ওদের খবর আমি ভালই জানি ! আর তোর প্যান-প্যানানি ভাল লাগছে না। আমার দেখার অসুবিধা হচ্ছে ! তুই তো শালা রস-কস হীন ! সবসময় সিরিয়াস। আরে একটু-আকটু এমন না হলে চলে??”

বন্ধু …” একটু-আকটু !!  … শালা, তোর বাড়ীতে যে বোনটাকে রেখে আসলি, তাকেও যদি কেউ তোর মত করেই দেখে আর মন্তব্য ছুড়ে দেয় তাহলে কী করবি? তোর ভাল লাগবে?? আর তুই বললি যে তারা দেখানোর জন্যেই বের হয়। তোর বোন ও কি তাই করে নাকি?? !! ”

পটু … ” বোনকে টানিস কেন? আর আমার বোন এমন না। কোন ছেলে এমন করলে ………”

বন্ধু …” দেখ দোস্ত ! তুই যেমন করে তোর বোন সম্পর্কে ধারণা রাখিস আর বোনের কোন অমর্যাদা সহ্য করতে পারিস না, ঠিক তেমন করেই কিন্তু এই সামনের জুনিয়র ছাত্রীগুলোর ভাইও সহ্য করতে পারবে না তোর এহেন নির্লজ্জ কাজ ! আর তুই তোর বোনেরটা সহ্য করতে পারবি না। আর আরেকজনের বোনের উপর কু-দৃষ্টি আর মন্তব্যও ছুঁড়বি !! এমন কেন ?? তোরা শালা আমাদের জাতটাকেই নালায় ডুবালি ! ”

পটু … ” না…… মানে…… ”

বন্ধু …… ” আর বলিস না। শালা, দু’মুখো সাপ ! নিজের মূল্য বুঝতে শিখ। দেখ তোর সাথে তাল মিলিয়ে আরো জুনিয়র কিছু ছেলেও খারাপ হচ্ছে ! আর তোরাই যখন দেখিস খবরের কাগজে বা টিভিতে – অমুক যায়গায় রেপ হয়েছে বা ইভ টিজিং হয়েছে ইত্যাদি ইত্যাদি- তখন নাক কুচকে বলিস -ইশ, কি খারাপ কাজ !!… শালা, তোর কাউকে পছন্দ হলে সেই সৎ সাহস নিয়ে তার কাছে গিয়ে বলবি। হয় মেয়েটা মেনে নিবে বা রিজেক্ট করবে। যদি রিজেক্টই করে তাহলে তোর কোন অধিকার নাই যে সেই মেয়েটিকে উত্ত্যক্ত করার !”

পটু … ” আরে আমার তো এখানে কোন পছন্দের নাই। শুধু মেয়ে দেখি… ”

বন্ধু … ” তোর পছন্দ নাই, তো দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে মেয়ে দেখবি !!  … আরে ওরা এমন কী হয়ে গেল যে দেখতে হবে !!?? তুই যে এমন কাজ করতেছিস তাতে কিন্তু তোর মর্যাদা ঐ মেয়েগুলোর কাছে মাটিতে মিশে যাচ্ছে ! আর তুই আমাদের ছেলে জাতটাকে কলঙ্কিত করছিস ! তোদের মতন ছেলে আছে বলেই সমাজে ছেলেদের আর মর্যাদা নেই !! পাড়ার মোরে, চায়ের দোকানে কিছু বন্ধু বসে আড্ডা দিলেই এলাকাবাসীরা উদ্বিগ্ন হয়ে থাকেন যে তাদের মেয়েটা ঠিক মতন বাসায় ফিরতে পারবে কি না ……… !!

এমন তর্ক চলেই আসছে। আমরা ছেলেরা সবাই জানি এই একটু দুষ্টামির খারাপ ফল। তারপরও এগুলো চলছেই ! আরে উল্লুকের দল, তোদের এহেন গর্হিত কাজের দরুন আমাদের ছেলে জাতের মর্যাদা আজ কতটুকু একবার চিন্তা করেছিস ??!! আমরা ছেলেরা নিজেদের সুলভ্য করে দিচ্ছি সকল মান সম্মান বিসর্জন দিয়ে ! যা কিনা আমাদের ক্ষণিকের তরেও ভাবাচ্ছে না যে “মেয়ে দেখা/মন্তব্য ছুঁড়ে দেয়া/ উত্ত্যক্ত করা ইত্যাদি করে আমাদের মনের শান্তি হচ্ছে যতটুকু তার চেয়েও আমরা হারিয়ে ফেলেছি আমাদেরই সম্মান-আমাদেরই মর্যাদা !! ”

এহেন গর্হিত ক্ষণিকের কার্য বর্জন করে নিজের সম্মান-মর্যাদা কেমন করে বৃদ্ধি পায় সেইটার চেষ্টা ক্ষণিকের তরেও করা উচিত ! আমাদের-ছেলেদের- শুভবুদ্ধির উদয় হোক !!

৩৬৭জন ৩৬৯জন
0 Shares

৬টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ