সোনেলা দিগন্তে জলসিড়ির ধারে

নীলার ডায়েরী ১

ইসিয়াক ৪ ফেব্রুয়ারী ২০২০, মঙ্গলবার, ১২:৪০:০৪অপরাহ্ন গল্প ২৪ মন্তব্য

প্রতিদিনের মতো আজও বেশ ভোরে ঘুম ভেঙে গেল নীলার , খুব সকালের সিগ্ধতা বরাবরই তাকে আকর্ষণ করে।

সে প্রকৃতির এই একান্ত নিরিবিলি সময়টাকে উপভোগ করার জন্য প্রতি ভোরে সকাল সকাল ঘুম থেকে উঠে পড়ে।পুব আকাশের লালচে আভা ,পাখীদের নীড় ছেড়ে ঝাঁক বেধে দুরে ছুটে চলা।অদ্ভুত শুনশান নিরব চারপাশে হঠাৎ দু এক পশলা পাখিদের মিষ্টি মধুর ডাক।
তবে বেরসিক কাকেদের কর্কশ আওয়াজ বেমানান হলেও সেই সময় অন্য রকম মাত্রা পায় বৈকি ।

সারারাত ধরে বিন্দু বিন্দু জমে শিশির।সকালে ঘাসের ডগায় কুমারী শিশিরে হাত পড়তেই টুপটাপ ঝরে পড়ার আলাদা একটা ছন্দ খেলে যায়।শামুকেরা সেই ঘাসের ডগায় ছন্দ তুলে হেটে চলে ধীরে ধীরে।শিশির ভেঙে বেশ এগিয়ে যায় অনেকটা আপন মনে নিরবিচ্ছিন্ন, নির্ভয়ে।

স্বস্তিদায়ক ফুরফুরে বাতাসে নীলা দুহাত মেলে ধরে ,কিছু অজানা অচেনা ফুলের সুগন্ধে শ্বাস নেয় বুক ভরে ,হঠাৎ যেন হৃদয়ের অলিন্দে সুর খেলে যায় । আনমনে গেয়ে ওঠে গান ….
আহা কি আনন্দ আকাশে বাতাসে
শাখে শাখে পাখি ডাকে
কত শোভা চারিপাশে
শাখে শাখে পাখি ডাকে
কত শোভা চারিপাশে
আহা কি আনন্দ আকাশে বাতাসে।

এর ফাকে আলোরা গাড়ো হয়ে আসে ।মসজিদ থেকে গোটা কয়েক মুসুল্লী নিয়মিত অভ্যাসে শান্ত হয়ে হেটে চলে গন্তব্যে।বোবা প্রকৃতিতে ধীরেধীরে শব্দের কথামালা বিস্তার লাভ করতে থাকে বেলা বাড়ার সাথে সাথে ।নীলা ও ঘরে ফিরে আসে দৈনন্দিন কাজকর্মে ব্যস্ততায় যোগ দিতে।

 

৩২৬জন ১৯৯জন
10 Shares

২৪টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য