নীরার প্রেম/ নীরার রোববার/ –৩

উৎসর্গ সোনেলা ব্লগের সবাই ছাড়াও আমার প্রিয় মানুষজন

 

নীরা যখন ষোল , কিছুই বুঝত না পরিবেশটা ই তাঁর কাছে কোনদিন অনুকূল ছিল না / ছেলে মেয়ে র ফারাক বুঝতো না ছেলে মেয়ে আলাদা সেটা বুঝলেই প্রেম ভালোবাসা সম্পর্কে কোন সলিড ধারনা তাঁর ছিল না/ বাড়িতে অশান্তি র পরিবেশ থাকলেও তাঁর প্রকৃতি খুব ভালো লাগত/ আকাশ দেখতে দেখতে রাস্তায় হাঁটতে সমুদ্রের পাড়ে বসে থাকতে কোন নদীর পাড়ে দুই এক ঘন্টা কাটানো তাঁর কাছে সেরা সময় /

 

এক বড় গাছের মাথায় পাখি বসলেই তাঁর কাব্যিক মনে অনেক কাব্য ঝরে পড়ত / বৃষ্টি ভিজতে তাঁর খুব ই ভালো লাগত / ব্যথাগুলো তাঁর শরীরে রোমাঞ্চ দিত কোন শিউলি ফুলের বৃষ্টি হয়ে ঝরে পড়ত/ এতো কষ্টেও  ভালো থাকার চেষ্টা!

 

 

একটা সময়ের পর মেয়েদের বিয়ের জন্য প্রস্তুত ভেবে পরিবার থেকে আলাদা করে দেওয়া হয় / ছেলেদের সংগে মিশতে দেওয়া হয় না/ জ্যাঠার সংগে ঘুরতে যেত সেই ঘোরাটা তাঁর বন্ধ হয়ে গেল / মেয়েজীবন যে শুধুমাত্র বাড়ির কাজের জন্য সংসারের জন্য সেটা বুঝিয়ে দেওয়া হয়

যেহেতু নীরা একা বাবা মা না থাকার মতোই বোন ও বেশী মিশতে চাইত না তাই নীরা একপ্রকারের একাকীত্বে ভুগতে শুরু করে।

মাকে খুব মিস করত।

 

কোনরকম বেঁচে থাকা ।  দিনের বেলা মারধর আর রান্নাবান্না আর এক দুই ঘন্টা পড়াশোনা স্কুল থাকলে স্কুল এই হল নীরার জীবন।

নীরার বয়েস ১৮!

 

অসহ্য মানসিক যন্ত্রণায় ভুগতে ভুগতে ডিপ্রেশনে চলে যেত ।  বাড়ি থেকে বিয়ের জন্য প্রচুর পরিমানে চাপ দিত ।  ডিপ্রেশনে নীরা নিজেকে আত্মহত্যা করার অনেক চেষ্টা করেছে/ কিন্তু পারেনি।

মরাটা পৃথিবীর সবথেকে কঠিন কাজ মনে হয় / চারিদিক টা আঁধার হলেই কেমন ছটফট করে উঠে পৃথিবীর আলো দেখার জন্য/

 

যাইহোক স্মৃতি জিনিসটা মানুষ কে বাঁচার ওষুধ জাগায় / মায়ের মুখ চুল কোল যেন আজো মনে পড়ে / মা মা করে জীবনের কুড়ি বছর কাটিয়ে ও মায়ের মুখ দেখতে পেল না/

 

বাবা নামমাত্র অসুস্থ থাকার কারণে খুব অত্যাচার করতেন আর বাড়ির পরিবেশে এতটা পাগলামি করতেন যে মানুষের বেঁচে থাকা দায় হয়ে ওঠে/ পরিবারের সবার অত্যাচারে নীরার বাঁচা বাড়িতে টিকে থাকা দায় একদিকে বাবার অত্যাচার আর একদিকে দাদাবাবু দিদি র অত্যাচার মানসিকভাবে পুরোপুরিভাবে ডিপ্রেশনে চলে যেত নীরা /

 

 

ঠিক হল যাকে পাবে তাঁর হাত ধরে কোনরকম বিয়ে করে নেবে/ পালিয়ে বাঁচবে/

 

ভগবানের কি পরিহাস এক নরক জীবন থেকে বাঁচতে আর এক নরক জীবনে এসে পড়ল /

 

তবুও কি তাঁর জীবনে প্রেম ছিল না

প্রকৃতি র প্রেম কি শ্রেষ্ঠ প্রেম নয়?

 

গাছ কখনো বারন করবে না তাঁকে প্রেম করতে? আকাশ ও ছলনা করে না?

 

 

নিরব প্রেম বারবার কাঁদিয়ে দিয়ে যায় ?

 

কাকদ্বীপ

 

 

 

 

 

 

 

১৭১জন ৭৯জন
0 Shares

৬টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য