না বলা, চোখের প্রেম।

রিতু জাহান ২১ ফেব্রুয়ারী ২০১৬, রবিবার, ১১:২৭:৪১পূর্বাহ্ন বিবিধ ৩০ মন্তব্য

ক্লাস টেন। মেট্রিক পরীক্ষার্থী। বয়সটা কেমন প্রশ্নবোধক। স্কুলে নতুন এক স্যার। সদ্য পাশ করা অতি সুদর্শন এক স্যার। ধর্ম মতে হিন্দু। অত্যন্ত ব্যক্তিত্বসম্পন্ন এক স্যার। কলেজের বড় আপুরা কোনো না কোনো বাহানায় স্কুলে আসতে লাগলো ঐ স্যারের জন্য। সাধ্য কার কথা বলবে স্যারের সাথে। যে কি মুড স্যারের! ক্লাসেই কোনো ছাত্রীর দিকে তাকায় না। নিজ মনে ক্লাস নিয়ে ক্লাস থেকে বের হতে পারলেই যেন বেঁচে যেতো স্যার। ক্লাসের এমন মেয়ে হয়ত ছিলো না যে স্যারকে পছন্দ করতো না।

মুখে কেউ স্বীকার করেনি এই কথা। অধিকাংশ মেয়ের চোখেই ছিলো না বলা প্রেম। তখন বয়সটাই যে প্রশ্নবোধক। প্রেম বোঝে কিন্তু ভালোবাসার ভাষা হয়ত কেউ তখন বুঝি না।

এই কিশোরীও যে ভালোলাগায় গা ভাসায়নি তা না। ভাসিয়েছে, বলা হয়নি। এভাবে চলে গেলো কয়েকটা মাস। পরীক্ষা হলো, কলেজে ভর্তি হলো।    ।

আচ্ছা তখন কি সে কিশোরী!

কিশোরীর কোয়ার্টারের সামনের কোয়ার্টারেই প্রাইভেট পড়াতে আসতো স্যার। শুভকে পড়াতো স্যার। বিকাল তিনটা থেকে চারটা সাড়ে চারটা। ক্যাম্পাসের ভিতরটা খুবই সুন্দর। সেই সময়ের বয়সটাতে বাড়ির ছাদটাই নাকি একমাত্র সুন্দর জায়গা। তাই সেই কিশোরীর স্যারকে আড়চোখে দেখতে, ঠিক সময়ে মনের অজান্তেই ছাদে উঠে যাওয়া। মেইন গেট থেকে কোয়ার্টারের ভিতরে ঢুকা পর্যন্ত স্পষ্ট স্যারের আসা যাওয়া দেখা যেতো। একসময় স্যারও ঠিক কী যেন চোখের ইশারায় খুঁজে নিতো।গেটে ঢুকতেই। কাছাকাছি এসে কখনোই তাকাইনি।

কিশোরীর প্রথম চোখের প্রেম ওখানেই শেষ। তারপরেও প্রেম যে আসেনি তা না, এসেছে।

১৫৩১জন ১৫০০জন
0 Shares

৩০টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ