নাম তার শান্তা

তাপসকিরণ রায় ৫ নভেম্বর ২০১৩, মঙ্গলবার, ১০:০৩:৪৮অপরাহ্ন গল্প ১৪ মন্তব্য

সময় কাটতে চায় না। পুরনো স্মৃতিরা মন ছেঁকে ধরে। বয়সের ধর্মই যে এমনটা। সময় বন্দী কাজ তো এ সময়ে থাকে না। কোথাও হয়তো বসে আছি–খানিক পরেই কেমন ঝিম এসে যায়! আর ঝিমের মাঝে স্মৃতির আনাগোনা !

খুব ছোট বেলার এক স্মৃতি মনে  ঘুরপাক খাচ্ছিল।  কতই বা বয়স হবে তখন–বয়স নয়, দশ! বালক বেলা যাকে বলে।

রানাঘাটে থাকতাম। তখন বন্ধু,বান্ধবীর কোন পার্থক্য নেই–চায়না,ননটাই,কল্যাণ,রীনা,বাবু সবাই আমারা বন্ধু–এক সঙ্গে খেলাধুলা করি। ছেলে মেয়েদের খেলা আলাদা হয় নি তখনও। রান্নাবাটি,আপত্তি নেই–পুতুল বিয়ে,আপত্তি নেই–লুকোচুরিও চলবে।

আমার এক স্কুলের সহপাঠী অন্য পাড়ায় থাকে। আমার চে বছর দুই তিনের বড় হবে। ও আমায় একদিন আড়ালে নিয়ে গিয়ে কেমন যেন হেসে বলে ছিল,কিরে তুই মেয়েদের সঙ্গে খেলিস?

আমি,কেন ? প্রশ্ন করে ওর মুখের দিকে তাকিয়ে ছিলাম। এই কেন’র উত্তর বন্ধুটি কি দিয়েছিল আজ আর মনে নেই। তবে সে বয়সে এ ব্যাপারটা আমার মনেও দু একবার উঁকি ঝুঁকি মেরে ছিল। আর ভেবে ভেবে সেই বয়সেও ছেলে ও মেয়ের মধ্যে  একটা আড়াল ভাব যেন মনের কোনে কোথাও অনুভব করে ছিলাম। আর এই অনুভব করার পর থেকেই মেয়েদের সঙ্গে মেলা মেশা ক্রমশ কমে যাচ্ছিল। লজ্জা,নামক একটি গোপন ভাবের সৃষ্টি মনে মনে সক্রিয় ভাবেই যেন সৃজন হয়ে যাচ্ছিল।

ঠিক এমনি দিনের কথা। আমাদের পাশের বাড়ির ননটাইয়ের এক মাসতুত বোন এলো আমাদের এখানে বেড়াতে। নাম তার শান্তা–আমাদের চে বছর দুই তিন বড়ই হবে। আমাদের সঙ্গে শান্তা ভালই মিলেমিশে গেল।

আমি শুরুতে বুঝতে পারি নি,পরে মনে হয়ে ছিল,খেলাধুলার সব জাগায় শান্তা আমায় সাপোর্ট করে চলে। খেলার মাঝে ওর গা আমার গায়ের ছোঁয়া ছুঁই খারাপ লাগত না।

আমি ওই সময় হাত লাট্টু ঘুরাতে শিখে ছিলাম। ওই সময় হাত লাট্টুর বেশ প্রচলন ছিল। প্রায় আট দশ হাত সুত নিয়ে ছুঁড়ে মারতাম সে লাট্টু,ঘুরতে ঘুরতে সুতোর শেষ প্রান্তে গিয়ে আবার ঘুরপাক খেতে খেতেই ফিরে আসত আমার হাতে।

সে দিন লুকোচুরি খেলার ফাঁকে ফাঁকে আমি লাট্টু ঘোরাচ্ছিলাম। দেখলাম,শান্তা বেশ মনোযোগ দিয়ে তা দেখছিল। ও বেশ আনন্দ উপভোগ করছিল। বারবার হাসছিল। এক সময় আমার দিকে তাকিয়ে ও হেসে বলে উঠলো,তোর লাট্টু তো বেশ রে ! দে তো আমি ঘুরাব। মনে আছে,লাট্টু ছিল পিঙ্ক কালারের।

শান্তা আবার বলল,দে না আমি ঘুরাই !

–তুমি ! আমি বড় আশ্চর্য হয়ে প্রশ্ন করে ছিলাম। এক তো মেয়েদের লাট্টু ঘুরাতে কখনও দেখিনি,তারপর এ লাট্টু না শিখে ঘোরানো কোন ভাবেই সম্ভব নয়।

–দে না—শান্তা আবার বলে উঠে ছিল। আমি দিতে ইতস্তত করছিলাম। উল্টাপাল্টা ছুঁড়ে মারলে নিশ্চয় আমার লাট্টুর দফা রফা হয়ে যাবে। শান্তা যেন একটু অভিমানিনী হয়ে উঠলো,কিছুক্ষণ চুপ করে থেকে–আমার দিকে নিষ্পলক তাকিয়ে থেকে বলে উঠে ছিল, বাবাঃ,দেখছি,এই লাট্টুর ওপর খুব মায়া !

শান্তার চোখের দিকে আমার চোখ পড়েছিল–তার ভাষা সে দিন ততটা হয়তো বুঝতে পারি নি। আজ বুঝতে পারি সে চোখের ভাষা বড় মায়াময় ছিল। আমার মনের কোন কোণ থেকে যেন এক অনুভূতি উঠে আসছিল। শান্তার ঝংকৃত সে কথাগুলি আমার মনে রণিত হয়ে যাচ্ছিল।

–বাবাঃ ! এই লাট্টুর ওপর খুব মায়া ! সে বয়সের হঠাৎ সজাগ হয়ে যাওয়া মনটা বারবার স্মৃতিতে উঠে আসত।

শান্তার সঙ্গে আর কোন দিন আমার দেখা হয় নি। ওর আর কোন কথা আমার মনে নেই।

জানি স্মৃতি সতত সুখের হয় না–সুখদুঃখের মিলনেই তো জীবনের সম্পূর্ণতা।

সমাপ্ত

২৪৭জন ২৪৭জন
0 Shares

১৪টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য