তিনদিন আগে তনুশ্রী নামের হিন্দু নাবালিকা মেয়েটারে তার প্রধান শিক্ষক ফুসলিয়ে বিয়ে আর ধর্মান্তরিত করেছিলো তার বিরুদ্ধে কেইস হয়েছে। মেয়ের বাবা কেইস করেছেন। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তার উপর নির্দেশ হয়েছে আসামী গ্রেপ্তার আর ভিক্টিমকে উদ্ধারের জন্য।

এই পরিবারকে ধন্যবাদ যে উনি মেয়ের পাশে দাঁড়িয়েছেন, ভয়ে বা লজ্জায় সরে যান নাই, যেটা অধিকাংশ হিন্দু বাবা মা করে থাকে এই ধরণের কেইসে। এই বিষয়ে স্কুল প্রশাসন ভাল উদ্যোগ নিয়েছেন। জানার পরই তারা মিটিং করে প্রধান শিক্ষককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে এবং সাতদিনের মধ্যে কেন তাকে পার্মানেন্ট ভাবে চাকুরিচ্যূত করা হবে না সেই মর্মে নোটিশ দেওয়া হয়েছে। ওই এলাকার অভিভাবক আর এলাকাবাসী এবং অন্যান্য শিক্ষকদের ধন্যবাদ পাওনা। তারা শ্যামনগরের নূরনগর বাজারে ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে মানববন্ধন করেছেন শিক্ষক সমাজের ব্যানারে গতোকাল বিকেলে, হিন্দু মুসলিম সবাই মিলে, নিজেদের মেয়েটার পাশে দাঁড়িয়েছেন। অভিযুক্ত শিক্ষককে গ্রেফতার করার দাবী জানিয়েছেন।

এই শামীম আহমেদ আগেও তিনটে বিয়ে করেছেন, অনেকবার আরও ছাত্রীদের সাথে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে তোলার চেষ্টা করেছেন বলে জনগণের হাতে লাঞ্চিত হয়েছেন, একবার এক নারী সংক্রান্ত অভিযোগের জন্য গনধেলাইও খেয়েছেন। এরপরও এই লোকেরে প্রধান শিক্ষক রাখাই উচিত হয়নাই। তার বড় ভাই নাকি একই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আর জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য। যাই হোক না কেন এমন চরিত্রহীন লোকের শিক্ষক হওয়ার কোনো যোগ্যতা নাই। আশা করব শ্যামনগরের মানুষ সঠিক সিদ্ধান্ত নিবে আর এই বদমাইশটাকে তার প্রাপ্য শাস্তি দিবে।

তনুশ্রী তার বাবা মায়ের কাছে ফিরে আসুক। টিনএইজে অনেক রকম ভাবনা থাকে মনে, সেও এই লম্পটের প্ররচনায় পা দিয়েছে। কোনো ব্যাপার না, সামনে সুন্দর ভবিষ্যত আছে তার। যারা তার আশেপাশে আছে আশা করি তাকে ভালবাসা দিয়ে বোঝাবেন, শাসন করে নয় অথবা খোঁটা দিয়ে নয়। ভালবাসা তনুশ্রীর জন্য। আর তার পাশে যারা দাঁড়িয়েছেন সবাইকে ধন্যবাদ।

বিস্তারিত পড়ুন লিংক এ ক্লিক করে।

ছাত্রীকে ধর্মান্তরিত করে স্কুলশিক্ষকের চতুর্থ বিয়ে!

পুস্পিতা আনন্দিতা,

নিউইয়র্ক।

১৩৩জন ৪৮জন
15 Shares

৫টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য