দুষ্ট প্রকৃতির শিশু-কিশোরদের কাজই হচ্ছে খেলার ছলে নিজেদের মাঝে আনন্দ ভাগাভাগি করে নেয়া। কিন্তু তারা নিজেরাই বুঝে না তাদের খেলার আনন্দ কারো জীবনাবসানের কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। জুন মাসের ৮ তারিখে গিয়েছিলাম নীললেজ সুঁইচোরা পাখির ছবি তোলার জন্য ময়মনসিংহের বরুরা গ্রামে। সেখানে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের শেষ মোড় থেকে  কিছুটা পথ নৌকায় যেতে হয়।

নৌকায় বসেই দেখতে পেলাম নীললেজ সুঁইচোরা ব্রহ্মপুত্র নদীর পাড় ধরে কলোরব আর চেঁচামেচি করে যাচ্ছে। নদীর ধারে মাটিতে গর্ত করে তাদের বাচ্চাদের মুখে খাবার দেয়ার জন্য উড়োউড়ি করছে। প্রতিটি বাবা-মা’র মুখে খাবার হিসেবে রয়েছে পতঙ্গ। বরুরা গ্রামের নৌকাঘাটে পৌঁছে কিছুটা পথ হাঁটতে হল। হাঁটার পথেই দেখলাম নদীর ধারে যেখানে সুঁইচোরা বাসা করেছে সেই বাসার মুখ থেকে প্রায় ৫/৬ ফুট দূরে মাটি গর্ত করা। গর্ত দেখে বুঝতে অসুবিধে হলো না কিশোর বাচ্চারা সুঁইচোরা পাখির বাচ্চা মাটি খুঁড়ে বের করে নিয়ে গেছে।

বর্তমানে প্রকৃতির বাধার বাইরেও এই দুষ্ট প্রকৃতির শিশু-কিশোররাই পাখিগুলোর বেঁচে থাকার জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে। এদের শিক্ষামূলক উপদেশ দিয়ে যদি এপথ থেকে ফেরানো না যায় তাহলে একদিন  এই পাখিগুলি বংশবৃদ্ধিতে বাধাগ্রস্থ হয়ে হারিয়ে যাবে। প্রকৃতি হারাবে তার সৌন্দর্য, আর আমরা হারাবো এই আবাসিক পাখি।

নীললেজ সুঁইচোরা  Meropidae পরিবারের পতঙ্গভুক পাখি। এই পরিবারের প্রায় ২৬ প্রজাতির সুঁইচোরা পাখি বিশ্বে দেখা যায়। বাংলাদেশে আছে ৪ প্রজাতির। এরা ২৭ থেকে ৩১সে.মি. দৈর্ঘ্যে লম্বা লেজওয়ালা উজ্জ্বল সবুজ বর্ণের পাখি। এদের কোমড়, লেজ, লেজতলের ঢাকনি নীল বর্ণের হয়ে থাকে। বুকে অনেকটা নীলের আমেজ পাওয়া যায়। হলুদ বর্ণের থুতনি ও তামাটে গলা ছাড়া পুরা দেহটাই সবুজ বর্ণের হয়ে থাকে। এদের কপাল সবুজ। চোখে কালো লাইন ও সরু নীল বর্ণে ঘেরা থাকে। ঠোঁট কালচে বর্ণের ও লম্বা। চোখের চারপাশ রক্তের মতো লাল টকটকে ও  মাঝে কালো বিন্দু। এদের পা ও পায়ের পাতা মেটে ফিকে বর্ণের ও কালচে বাদামী রঙের। পুরুষ ও  মেয়ে পাখির চেহারায় পার্থক্য নেই। শুধুমাত্র মেয়ে পাখির লেজ লম্বা হয় না। তাছাড়া দেহের অন্যান্য রঙে কোনো তারতম্য নেই। বাচ্চা পাখিগুলো বয়স্ক পাখি থেকে অনুজ্জ্বল রঙের হয়।

নীললেজ সুঁইচোরা সাধারণত জোড়ায় ও মাঝারি আকারে ঝাঁক বেঁধে চলাফেরা করতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে। এরা নদীর পানির সামান্য উপর দিয়ে খুব ঘুরাফেরা করে। বাকি সময় গাছের ডালে বসে থাকে। মাঝে মাঝে নদীর পানিতে গা ভিজিয়ে দেহের পালক চুলকাতে খুব পছন্দ করে। এরা গাছের উঁচু ডালে শিকারের জন্য ওঁৎ পেতে থাকে। শিকার পাওয়া মাত্রই বিদ্যুৎ গতিতে ছোঁ মেরে খাবার ধরে ফেলে। উড়ন্ত পোকা-মাকড়, কীট-পতঙ্গ, ফড়িং, বোলতা, মৌমাছি, মথ ও গুবরে পোকা এদের পছন্দনীয় খাবারের তালিকায় আছে। অন্যান্য ফ্লাইক্যাচার পাখির মতই এরা উড়ন্ত অবস্থায় শিকারের মাধ্যমে খাদ্য গ্রহণ করে। এদের গলার স্বর কর্কশ ও উচ্চ স্বরে ডাকে।

নীললেজ সুঁইচোরা পাখি মুক্ত বালিময় এলাকায় নদীর ধারে বৃক্ষপূর্ণ জায়গা ও সুন্দরবনে বিচরণ করে। প্রজনন সময় মার্চ থেকে জুন মাস। এরা এদের কলোনীতে প্রজনন করে। নদীর খাঁড়া তীর, বালুময় পাহাড়ের ধারে বা সমতল বালু তীরে এরা ৫/৬ফুট সুড়ঙ্গ করে নিজেরাই বাসা বানায়। নিজেদের বানানো বাসায় স্ত্রী নীললেজ সুঁইচোরা পাখি ৫-৮টি সাদা বর্ণের ডিম দেয়। স্ত্রী ও পুরুষ পাখি উভয়েই ডিমে তা দিয়ে নির্দিষ্ট সময়ে বাচ্চা ফোটায়। ডিম থেকে বাচ্চা বের হবার পর মা ও বাবাপাখি সন্তানদের বড় ও লালন-পালন করার জন্য দিন রাত পরিশ্রম করে। পালাক্রমে খাদ্যের জোগান দেয়।

নীললেজ সুঁইচোরা বাংলাদেশের সুলভ আবাসিক পাখি। বাংলাদেশের গ্রামে,নদীর পাড়ে ও বনভূমিতে সহজেই দেখতে পাওয়া যায়। তবে রাজশাহী, কুষ্টিয়া, ময়মনসিংহ, গোপালগঞ্জসহ প্রায় সব জেলাতেই দেখা যায়। এ ছাড়াও ভারত, পাকিস্তন, নেপাল, ইন্দোনেশিয়াসহ বাংলাদেশের পূর্বাঞ্চল ও দক্ষিণের দেশগুলোতে এদের বিচরণ বিস্তৃতি রয়েছে।

বাংলা নাম: নীললেজ সুঁইচোরা

ইংরেজি নাম: Blue tailed be eater

বৈজ্ঞানিক নাম: Merops Philippinus

ছবিগুলো ময়মনসিংহের বরুরা গ্রাম থেকে তুলা।

 

২৩২জন ১২৮জন
8 Shares

১৪টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ