দেবী দুর্গার বাহন তত্ত্ব।

প্রদীপ চক্রবর্তী ৪ অক্টোবর ২০১৯, শুক্রবার, ০৭:৩৩:৫৯অপরাহ্ন সমসাময়িক ২৪ মন্তব্য

দেবীর বাহন কীভাবে বেছে নেওয়া হয়???

এইবার মা আসছেন ঘোটকে বা ঘোড়ায় চেপে। দশমীর দিন তিনি ফিরেও যাচ্ছেন ঘোড়ায় চেপে। অর্থাৎ এই বছরে দেবীর আগমন ও গমন ঘোটকে।
শাস্ত্রজ্ঞ পণ্ডিতরা বলছেন,ঘোড়ায় আগমন ও গমন মোটেই শুভ নয়। ঘোড়া ছটফটে প্রাণী। সে যখন যায়, সব কিছু ছত্রভঙ্গ হওয়ার আশঙ্কা থাকে। তাই দেবীর ঘোটকে আগমন ও গমনে প্রমাদ গুনছেন শাস্ত্রজ্ঞরা। এতে ফসল নষ্ট হওয়ার এবং প্রাকৃতিক দুর্যোগ যেমন বন্যা ও খরা হতে পারে। দেখা দিতে পারে মহামারী ও রাজনৈতিক অস্থিরতা। জানেন কি কীভাবে দেবীর বাহন প্রতি বছর বেছে নেওয়া হয়। অর্থাৎ তিনি কীসে চড়ে আসবেন ও যাবেন, সেটা জানার জন্য একটা মজার অঙ্ক আছে!
শাস্ত্র বলে
‘রবৌ চন্দ্রে গজারূঢ়া, ঘোটকে শনি ভৌময়োঃ।
গুরৌ শুক্রে চ দোলায়াং নৌকায়াং বুধ বাসরে।’
দেবীর মর্তে আগমন হয় সপ্তমীতে আর গমন হয় দশমীতে।এই দুটো দিন কোন বার পড়েছে সেই অনুযায়ী ঠিক হয় দেবী কীসে আসবেন আর কীসে যাবেন। উপরের এই শ্লোক দেখে বোঝা যাচ্ছে, সপ্তমী ও দশমী রবিবারে পড়লে দেবী গজ বা হাতিতে আসবেন ও যাবেন। যদি সপ্তমী শনিবার বা মঙ্গলবার হয় তা হলে ঘোটক বা ঘোড়ায় আসবেন। যেমনটা এই বারে হয়েছে। বৃহস্পতি বা শুক্রবার সপ্তমী হলে দেবী দোলায় আসবেন। আর বুধবার সপ্তমী বা দশমী পড়লে, তিনি নৌকায় আসবেন। দেবী কীসে করে এলে ঠিক কী হতে পারে, তার বর্ণনাও শাস্ত্রে আছে। যেমন বলা হচ্ছে, “গজে চ জলদা দেবী শস্যপূর্ণ বসুন্ধরা।” অর্থাৎ গজে এলে বা গমন হলে বসুন্ধরা শস্য শ্যামলা হয় অর্থাৎ ফসল ভাল হয়। আবার “ছত্রভঙ্গস্তুরঙ্গমে” এটি বলা হয় ঘোটকের ক্ষেত্রে। নৌকার ক্ষেত্রে বলা হয় “শস্যবৃদ্ধিস্থুতাজলম”। অর্থাৎ নৌকায় এলে শস্য দ্বিগুণ হয় কিন্তু বন্যা দেখা দিতে পারে। দোলায় বা আগমন বা গমনের ক্ষেত্রে বলা হয়েছে, “দোলায়াং মরকং ভবেত।” অর্থাৎ দোলায় এলে বা গমন হলে মহামারী, ভুমিকম্প বা বড় রকমের যুদ্ধ হতে পারে।

এই হলো সংক্ষেপে দেবীর বাহন তত্ত্ব।

জয় মা❤❤

সবাইকে শারদীয় দুর্গাপূজার শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।

সকল অশুভ শক্তির বিনাশ হউক।

জগত সংসারে শান্তির বাণী ছড়িয়ে পড়ুক।জগতের সকল প্রাণী সুখী হউক।

 

১৫৯জন ১৭জন
19 Shares

২৪টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য