তুমি থেকে আপনি

সুপর্ণা ফাল্গুনী ২৮ এপ্রিল ২০২০, মঙ্গলবার, ০৮:১০:৩০অপরাহ্ন গল্প ৩১ মন্তব্য

আমার ভাবনা গুলো তো প্রায়ই সত্যি হয় তাহলে কেন এতো বড় ভুল হয়ে গেলো? আমাদের সম্পর্কের শুরু তে দু’জন দু’জনকে ‘তুমি’ ডাকা নিয়ে টানাপড়েন শুরু হয়ে গেল। তুমি বয়সে অনেক বড় হবার পরও আমাকে কিছুতেই ‘ তুমি’ বলে ডাকবেনা । আর আমিও গো ধরে রইলাম তুমি না বললে আমিও বলবো না। যাইহোক আমাদের বন্ধুত্বের আদান-প্রদানের খাতিরে দু’জনের সবকিছু শেয়ার করলাম। আমাদের অতীত, বর্তমান, পুরানো সম্পর্কের কথা সব অবলীলায় বলে যাচ্ছিলাম। হঠাৎ ‘তুমি’ করে বলা শুরু করলে তুমি, কিন্তু তখনো আমি দ্বিধা, লজ্জায় ‘তুমি’ বলতে পারিনি। খুব অভিমান করলে আমার উপর । কিন্তু আমি আমার বাঁধা পেরোতে পারছিলাম না কিছুতেই। যাইহোক, তোমার অভিমান ভাঙ্গাতে একদিন ‘তুমি’ করে বলা শুরু করলাম। সেদিনের কথা ভাবলে এখনো আমার অন্যরকম লাগে। ‘তুমি’ করে বললে কেউ এতোটা খুশী হতে পারে জানা ছিলো না। সেদিনের স্মৃতিটা আজো আমার কাছে অমলিন। আমার ‘তুমি’ ডাক শুনে তোমার নাকি শিহরণ হয়েছিল পুরো শরীর- মন জুড়ে, আনন্দে পারলে আমাকে তখনই জড়িয়ে ধরতে।

সেদিনের ঐ মুহূর্তটা আজো আমাকে ব্যাকুল করে তোলে, তোমাকে ভালোবাসতে বলে। আমিও ভেবেছিলাম তুমি আমাকে ভালোবেসে ফেলেছো তানা হলে বন্ধু কখনো ‘তুমি’ ডাক শুনে এতটা আবেগী হয়ে যেতে পারে! সেই থেকে তোমাকে নিয়ে আমার ভাবনার ডালপালা ছড়িয়ে গেলো ভালোবাসার মায়াজালে। তারপর তোমার পবিত্রতা, আবেগ , তোমার চোখে মেয়েলি কান্না দেখে আমাকে তোমার মাঝে বিলীন করে দিলাম। ভাবলাম, বিশ্বাস দৃঢ় হলো যে এতো দিন আমি যে পুরুষটার অপেক্ষায় ছিলাম সে হলো ‘তুমি’। তুমি আমার সেই ভালোবাসা , কিন্তু তোমাকে আমি পাবো না সেটাও জানতাম কারণ তোমার আমার মাঝে বিশাল প্রাচীর দাঁড়িয়ে আছে । ধর্মের দেয়াল যদিও ভাঙ্গা যেতো কিন্তু তুমি যে আরেকজনের কাছে বন্দী। তাকে তুমি খুব ভালোবাসো। তাই আমি আমার ভালোবাসাকে হৃদয় কুটিরে চাপা দিয়ে রাখলাম। তুমি আমার স্বপ্নে হানা দিলে ভালোবাসার উপহার হয়ে। তাও তোমার কাছে গোপন রাখলাম। তুমি যদি আমাকে ভুল বুঝো , তাই। বিশ্বাস করো তোমাকে আমি চেয়েছি কিন্তু তোমার ইচ্ছার বিরুদ্ধে , তোমার ভালোবাসাকে নষ্ট করে নয়। আমাদের বন্ধুত্বটাকে সঙ্কুচিত, ধূলিসাৎ করতে চাইনি। তোমার সাথে কথা বলতে, সময় কাটাতে, মনের সবকিছু শেয়ার করাতেই আমার সব আনন্দ লুকায়িত ছিলো। হঠাৎ তোমার দূরত্ব, যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়া , আমার প্রশ্ন করাটা, কোনো কিছু জানতে চাওয়াতে তুমি রাগ করতে শুরু করলে, কৈফিয়ত ভেবে আমাকে যা না তাই বললে। হঠাৎ তোমার আচার আচরণ পুরোটাই আমার কাছে অচেনা, অবোধ্য হয়ে গেল। হ্যাঁ আমি আমার ভালোবাসার কথা বলতে বাধ্য হয়েছিলাম তোমার অবজ্ঞা, অবহেলার কারণে বা তোমার জানতে চাওয়ার কারনেই ।

আমার পুরো পৃথিবীটাই ভেঙে চুরমার হয়ে গেল, আমার বিশ্বাসের মর্যাদা নষ্ট হয়ে গেল। ভেবেছিলাম তুমি কিছু দিতে না পারলেও আমাদের সম্পর্ক টাকে কলঙ্কিত করবে না, আমাকে ছেড়ে যাবে না। জানিনা কেন তোমার এমন বোধোদয় হলো , কেন ভাবলে আমি তোমার জন্য ক্ষতিকর, বিপদজনক? তোমাকে বোঝাতে ব্যর্থ হলাম যে আমি তোমার বন্ধুত্ব চাই সেই বন্ধুত্ব যেখানে কোনো ধর্মের, সমাজের কোন বাঁধা ছিল না। অবলীলায় একজন আরেকজনের মনের ঘরে হানা দিতে পারতাম, সবকিছু উজাড় করে বিনাদ্বিধায় বলে যেতে পারতাম, কর্তৃত্ব খাটাতে পারতাম। তুমিই বলেছিলে বউকে যা না বলা যায় বন্ধুকে তা সব বলা যায়। তুমি যতই বলো তুমি আমাকে বন্ধু ভাবো কিন্তু তোমার ব্যবহার, এই যে যোগাযোগ কমিয়ে দেয়া, তোমাকে আপনি বলে ডাকার পরেও তোমার মধ্যে কোন বিকার / জিজ্ঞাসা পেলাম না -এসব কিছুই সে কথা বলে না। আজ আর তোমাকে ‘তুমি ‘ বলে ডাকতে পারিনা হয়তো তুমি ও সেটাতে আগের মত সুখ খুঁজে পাওনা বা চাওনা বলেই আমাকে ‘তুমি’ বলতে জোর করোনা। আমি তোমাকে ভালোবাসি, শুধুই ভালোবাসি বিনিময়ে তোমার অবজ্ঞা,অবহেলাই সঙ্গী হলো। আজো তোমারি বন্ধুত্বের অপেক্ষায় আছি। ভালো থেকো তুমি তোমার সুখ নিয়ে।

৫৯৩জন ৩৬৯জন
17 Shares

৩১টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য