1

বাংলাদেশ ব্যতীত অন্য কোনো দেশে মসজিদ থেকে জুতো চুরি হয় কিনা আমার জানা নেই। এই জীবনে আমার দুইবার জুতো চুরি হয়েছে, এবং দুবারই মসজিদ থেকে। নামাজ পড়ে এসে দেখি জুতো নেই। আমার আসলে জুতো না স্যান্ডেল চুরি হয়েছিল দুবারই। স্যান্ডেল চোর  বললে শুনতে ভালো লাগেনা, তাছারা  চোরদের অপমান করা হয়। তাই জুতো চোর বলছি।
আচ্ছা মন্দির এবং গির্জা হতেও কি জুতো চুরি হয়? সবাই উপাসনালয়ে প্রার্থনা করছেন, আর চোর মহাশয় চিন্তা করছেন কিভাবে জুতো চুরি করা হবে, কত জোড়া জুতো আজকে চুরি করবেন। সৃষ্টিকর্তা জুতো চোরের মনের আশা পুরন করে দেন 🙂

মসজিদে যে এই চুরি হরহামেশা হয় তার প্রমাণ পাওয়া যায় মসজিদের অভ্যন্তরে বড় বড় জুতো রাখার বাক্স দেখে। মুসুল্লি গন যেন নিবিষ্ট মনে নামাজ আদায় করতে পারেন মসজিদ কর্তৃপক্ষ এর ব্যবস্থা রাখেন। রুকু বা সেজদা দিলেন মুসুল্লি, এই অবস্থায় যদি তিনি ভাবেন ” আমার নতুন জুতো জোড়া আবার চোরে নিল নাকি?” তাহলে নামাজ শেষ। জুতোর বাক্স গুলো একাগ্র মনে নামাজ আদায় করার সহায়ক হিসেবে মসজিদের অভ্যন্তরে গচ্ছিত থাকে।

কিভাবে জুতো চুরি রোধ করবেন?
খুবই সহজ বুদ্ধি। আপনি আপনার দুই জোড়া জুতোর একটি একটি পায়ে দিয়ে নামাজ পড়তে যাবেন। উপরের ছবিতে এর নমুনা দেখানো হলো। দুধরনের জুতো পড়তে আপনার সংকোচ হচ্ছে? আরে ইয়ার আপনি তো নামাজ পড়তে যাচ্ছেন, কোনো ডেটিং বা অনুষ্ঠানে যাচ্ছেন না? আল্লাহর ইবাদতে গিয়ে ফ্যাশন এর কথা ভাববেন কেন আপনি?
মসজিদের একেবারে বাইরে রাখুন আপনার জুতো। চোর  আপনার দুই ধরনের জুতো নিয়ে কি করবে? বিক্রি করবে কোথায়? অতএব আপনি নিশ্চিন্ত 🙂

ফ্যাশন হিসেবে এর ব্যবহারঃ
আপনি নিজে ফ্যাশন তৈরী করুন। আপনি কেনো ফ্যাশন অনুকরণ করবেন? পাংকু ফ্যাশনওয়ালারা দুই কালারের দুই পা ওয়ালা প্যান্ট পরিধান করেন। দেখেছেন নিশ্চয়ই। ব্যাস আপনি দুই কালার এবং ডিজাইনের দুটো জুতো পায়ে দিয়ে বের হয়ে যান কোন পার্টির উদ্দেশ্যে। লেটেষ্ট ফ্যাশন আপনিই চালু করুন না। সেদিন দেখলাম এক প্রেমিক প্রেমিকা নিজেদের জুতো পাল্টাপাল্টি করে পায়ে দিয়ে হাঁটছে 🙂 মেয়েটির পায়ে ছেলেটির জুতো, মনে হচ্ছে যেন পায়ে নৌকা দিয়েছে। আর ছেলেটির পায়ে মেয়েটির জুতো, পা অর্ধেক বের হয়ে আছে। এসবই হাল ফ্যাশন।
অতএব বিলম্ব কেন ইয়ার? 🙂
2

ইস্পিশাল টেকি পোষ্ট- ১

১২৪১জন ১২৪৮জন
0 Shares

৫৩টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ