আমার পতাকা, আমার মা, আমার দেশ নয়, এটি আমাদের পতাকা, আমাদের মা, আমাদের দেশ। এটির কোন রুপ অবমাননা সহ্য করা সম্ভব নয়। কিন্তু তাই তো করে চলছি আমরা প্রতিনিয়ত জেনে বা না-জেনে! দেশপ্রেম দেখাতে গিয়ে অপমান করে চলছি নিজের অস্তিত্ব অর্জিত পতাকাকে। অন্তর থেকে শ্রদ্ধা করুন, লোক দেখানো নয়, সম্মানের সাথে এই ডিসেম্বর(সবসময়) মাসে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, ব্যবহার করি চলুন। জেনে, না-জেনে, অতি উচ্ছাসে করে চলছি অবমাননা।

দেখা যাচ্ছে, বিজয়ের মাসে অনেকে বাসা-বাড়িতে-গাড়িতে-ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে পতাকা উত্তোলন করে বসে আছেন। সকাল থেকে সন্ধ্যা হয় কিন্তু পতাকা নামে না, সুর্য্যদয় থেকে কালো রাত্তির অন্ধকার পতাকা উড়ছে তো উড়ছেই। দেশপ্রেমের চুটে ভুলেই গেলেন পতাকা সন্ধ্যায় নামাতে। কিন্তু এটি যে জাতীয় পতাকার অবমাননা। শহিদের রক্তের প্রতি অপমান!

নিজের ইচ্ছেমত মাপে, রঙে বানিয়ে আখাম্বা একটা খুটি তে উড়িয়ে দিলেন। রোদ-ঝড় বৃষ্টি, ধুলায় রঙ জ্বলে ফ্যাকাসে হয়ে পচে নষ্ট না হওয়া পযর্ন্ত পতাকা সেই খুটিতেই রয়ে যায় অনেক সময়। খেয়ালও করছেন না। রাস্তার পাশের বাড়িগুলোয় খুঁজলে এখনও পাওয়া যেতে পারে গতবছর টানানো পতাকাটি নষ্ট হয়ে ঝুলে আছে।

এ দেশের সরকার, আইন নিজের গতিতে চলে, এইধরনের আবেগ-অনুভতির জায়গা গুলো দেখার সময় কোথায় তাদের কাছে? দেশপ্রেমের অভাব, নিজের অস্তিত্ব অর্জণকে ভুলে থাকা অভ্যাস আমাদের। কিন্তু চলুন একটু সামান্য সচেতন ভাবে চলি, পতাকার অবমাননা রোধ করি। যদিও আইন রয়েছে অবমাননা প্রতিরোধে, আছে তাতে শাস্তির বিধানও।

চলুন জেনে নিই জাতীয় পতাকা টানানোর নিয়মঃ

১. সর্বদা পতাকার প্রতি যথাযথ সম্মান ও মর্যাদা প্রদর্শন করিতে হইবে।
২. পতাকা দ্বারা মোটরযান, রেলগাড়ি অথবা নৌযানের খোল, সম্মুখভাগ অথবা পশ্চাদ্ভাগ কোন অবস্থাতেই আচ্ছাদিত করা যাইবে না।
৩. যেক্ষেত্রে অন্যান্য দেশের পতাকা অথবা রঙিন পতাকার সহিত ‘বাংলাদেশের পতাকা’ উত্তোলন করা হয়, সেক্ষেত্রে বাংলাদেশের পতাকাকে সম্মান প্রদর্শনের জন্য স্থান সংরক্ষিত থাকিবে।
৪. যেক্ষেত্রে কেবলমাত্র দুইটি পতাকা অথবা রঙিন পতাকা উত্তোলন করা হয়, সেক্ষেত্রে ‘বাংলাদেশের পতাকা’ ভবনের ডানদিকে উত্তোলন করা হইবে।
৫. যেক্ষেত্রে পতাকার সংখ্যা দুইয়ের অধিক হয়, সেক্ষেত্রে অযুগ্ম সংখ্যক পতাকার ক্ষেত্রে ‘বাংলাদেশের পতাকা’ মধ্যখানে এবং যুগ্ম সংখ্যক পতাকার ক্ষেত্রে ‘বাংলাদেশের পতাকা’ মধ্যভাগের ডানদিকে উত্তোলন করা হইবে।
৬. যেক্ষেত্রে ‘বাংলাদেশের পতাকা’ অন্য পতাকার সহিত আড়াআড়িভাবে কোন দণ্ডে দেয়ালের বিপরীতে উত্তোলন করা হয়, সেক্ষেত্রে বাংলাদেশের পতাকা অন্য পতাকার ডানদিকে আড়াআড়িভাবে থাকিবে (আড়াআড়িভাবে যুক্ত পতাকা দুইটির দিকে মুখ করিয়া দণ্ডায়মান ব্যক্তির বামদিকে) এবং পতাকা দণ্ডটি অন্য পতাকা দণ্ডের সম্মুখভাগে স্থাপিত হইবে।
৭. ‘বাংলাদেশের পতাকা’র উপরে অন্য কোন পতাকা বা রঙিন পতাকা উত্তোলন করা যাইবে না।
৮. ‘বাংলাদেশের পতাকা’ শোভাযাত্রার মধ্যভাগে বহন করা হইবে অথবা সৈন্য দলের অগ্রগমন পথে (Line of March) শোভাযাত্রার ডানদিকে বহন করা হইবে।
৯. মর্যাদার প্রতীক সম্বলিত ঢালে (escutcheons) অযুগ্ম সংখ্যক পতাকার ক্ষেত্রে ‘বাংলাদেশের পতাকা’ মধ্যভাগে এবং সর্বোচ্চ কেন্দ্রে থাকিবে এবং যুগ্ম সংখ্যক পতাকার ক্ষেত্রে ঢালের ডানদিকে শীর্ষে (ঢালের দিকে মুখ করিয়া দণ্ডায়মান ব্যক্তির বামদিকে) বাংলাদেশের পতাকা স্থাপন করা হইবে।
১০. যেক্ষেত্রে অন্য কোন দেশের সহিত ‘বাংলাদেশের পতাকা’ একত্রে উত্তোলন করা হয়, সেক্ষেত্রে ‘বাংলাদেশের পতাকা’ প্রথমে উত্তোলন করিতে হইবে এবং নামাইবার সময় সর্বশেষে নামাইতে হইবে।
১১. যেক্ষেত্রে দুই বা ততোধিক দেশের পতাকা প্রদর্শিত হয়, সেক্ষেত্রে প্রতিটি পতাকা পৃথক পৃথক দণ্ডে উত্তোলন করা হইবে এবং পতাকাসমূহ প্রায় সমান আয়তনের হইবে।
১২. যেক্ষেত্রে ‘বাংলাদেশের পতাকা’ অর্ধনমিত থাকে, সেক্ষেত্রে প্রথমে সর্বোচ্চ চূড়া পর্যন্ত উত্তোলন করা হইবে এবং অতঃপর নামাইয়া অর্ধনমিত অবস্থায় আনা হইবে। ঐ দিবসে নামাইবার সময় পুনরায় উপরিভাগ পর্যন্ত উত্তোলন করা হইবে, অতঃপর নামাইতে হইবে।
১৩. যেক্ষেত্রে দণ্ডের উপর ব্যতীত অন্যভাবে কোন দেয়ালের উপর ‘পতাকা’ প্রদর্শিত হয়, সেক্ষেত্রে উহা দেয়ালের সমতলে প্রদর্শিত হইবে। কোন পাবলিক অডিটোরিয়াম বা সভায় ‘পতাকা’ প্রদর্শন করিতে হইলে উহা বক্তার পশ্চাতে উপরের দিকে প্রদর্শিত হইবে। যেক্ষেত্রে রাস্তার মধ্যখানে পতাকা প্রদর্শিত হয়, সেক্ষেত্রে উহা খাড়াভাবে প্রদর্শিত হইবে।
১৪. কবরস্থানে ‘জাতীয় পতাকা’ নিচু করা যাইবে না বা ভূমি স্পর্শ করান যাইবে না।
১৫. ‘পতাকা’ কোন ব্যক্তি বা জড় বস্ত্তর দিকে নিম্নমুখী করা যাইবে না।
১৬. ‘পতাকা’ কখনই উহার নিচের কোন বস্ত্ত যেমন: মেঝে, পানি বা পণ্যদ্রব্য স্পর্শ করিবে না।
১৭. ‘পতাকা’ কখনই আনুভূমিকভাবে বা সমতলে বহন করা যাইবে না, সর্বদাই । ঊর্ধ্বে এবং মুক্তভাবে থাকিবে।
১৮. ‘বাংলাদেশের পতাকা’ কোন কিছুর আচ্ছাদন হিসাবে ব্যবহার করা যাইবে না, তবে শর্ত থাকে যে, কোন বিশিষ্ট ব্যক্তি যাঁহাকে পূর্ণ সামরিক মর্যাদা বা পূর্ণ আনুষ্ঠানিকতাসহ সমাধিস্থ করা হয়, তাঁহার শবযানে পতাকা আচ্ছাদনের অনুমোদন প্রদান করা যাইতে পারে।
১৯. ‘পতাকা’ এমনভাবে উত্তোলন, প্রদর্শন, ব্যবহার বা সংরক্ষণ করা যাইবে না, যাহাতে উহা সহজেই ছিঁড়িয়া যাইতে পারে বা যে কোনভাবে ময়লা বা নষ্ট হইতে পারে।
২০. কোন কিছু গ্রহণ, ধারণ, বহন বা বিলি করিবার নিমিত্ত ‘পতাকা’ ব্যবহার করা যাইবে না।
২১ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক আরোপিত কোন শর্তাবলী (যদি থাকে) এবং লিখিত অনুমোদন ব্যতীত, কোন ধরনের ব্যবসা-বাণিজ্য, সম্বোধন, পেশা বা অন্য যে কোন উদ্দেশ্যে বাংলাদেশের ‘পতাকা’ কোন ট্রেড মার্ক, ডিজাইন, শিরোনাম অথবা কোন প্যাটেন্ট হিসাবে ব্যবহার করা যাইবে না।
২২. যেক্ষেত্রে ‘পতাকা’র অবস্থা এমন হয় যে, উহা আর ব্যবহার করা না যায়, সেক্ষেত্রে উহা মর্যাদা পূর্ণভাবে, বিশেষ করিয়া সমাধিস্থ করিয়া, নিষ্পত্তি করিতে হইবে।
২৩. ‘পতাকা’ দ্রুততার সহিত উত্তোলন করিতে হইবে এবং সসম্মানে নামাইতে হইবে।
২৪. ‘পতাকা’ উত্তোলন ও নামাইবার সময় এবং প্যারেড পরিক্রমণ ও পরিদর্শনের সময় উপস্থিত সকলে ‘পতাকা’র দিকে মুখ করিয়া সোজা হইয়া দাঁড়াইবেন।
২৫. যেক্ষেত্রে আনুষ্ঠানিকভাবে ‘পতাকা’ উত্তোলন করা হয়, সেক্ষেত্রে একই সাথে জাতীয় সঙ্গীত গাইতে হইবে। যখন জাতীয় সঙ্গীত বাজানো হয় এবং ‘জাতীয় পতাকা’ প্রদর্শিত হয়, তখন উপস্থিত সকলে ‘পতাকা’র দিকে মুখ করিয়া দাঁড়াইবেন। ইউনিফর্ম-ধারীরা স্যালুট-রত থাকিবেন। ‘পতাকা’ প্রদর্শন না করা হইলে, উপস্থিত সকলে বাদ্য যন্ত্রের দিকে মুখ করিয়া দাঁড়াইবেন, ইউনিফর্ম-ধারীরা জাতীয় সঙ্গীতের শুরু হইতে শেষ পর্যন্ত স্যালুট-রত থাকিবেন।
২৬. গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের অনুমতি ব্যতীত, ‘জাতীয় পতাকা’ অর্ধনমিত করা যাইবে না, তবে শর্ত থাকে যে, বিদেশস্থ বাংলাদেশ মিশনের প্রধান (যে দেশের নিকট তিনি আস্থাভাজন) ইচ্ছা করিলে ঐ সকল দিবসে ‘পতাকা’ অর্ধনমিত রাখিতে পারিবেন, যে সকল দিবসে উক্ত দেশে, সরকারীভাবে ‘পতাকা’ অর্ধনমিত রাখা হয়।

উপরোক্ত নিয়ম গুলো ‘বাংলাদেশ পতাকা রুলস, ১৯৭২ অনুযায়ী।

মিছিলে ব্যবহার করতে হলে মিছিলের কেন্দ্রে অথবা মিছিলের অগ্রগমন পথের ডান দিকে বহন করতে হবে। অনেকেই জাতীয় পতাকায় নকশা করে ফ্যাশন হিসেবে ব্যবহার করেন। কিন্তু জাতীয় পতাকার ওপর কোনো কিছু লেখা বা মুদ্রিত করা যাবে না অথবা কোনো অনুষ্ঠান বা উপলক্ষে কোনো চিহ্ন অঙ্কন করা যাবে না; এমনকি জাতীয় পতাকাকে পোশাক হিসেবে ব্যবহার করা যাবে না এবং গায়ে জড়িয়ে রাখা যাবে না। তবে পূর্ণ সামরিক মর্যাদা বা পূর্ণ আনুষ্ঠানিকভাবে কোনো ব্যক্তিকে সমাধিস্থ করা হলে তার শবযাত্রায় জাতীয় পতাকা আচ্ছাদন হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে।

অবমাননার শাস্তিঃ
২০১০ সালের জুলাই মাসে এই আইন সংশোধিত হয়। এই সংশোধনীতে সর্বোচ্চ ২ বছর পর্যন্ত শাস্তি এবং ১০ হাজার টাকা অর্থদন্ডে বিধান রাখা হয়।

বিজয়ের মাসে যারা পতাকা টানাচ্ছেন তাদের প্রতি সাধারণ নির্দেশনাঃ
১. পতাকার আদর্শ মাপ ১০:৬। সঠিক মাপ ও সঠিক রঙ এর পতাকা তৈরি করে সোজা দন্ডের চূড়ায় উড়াতে হবে।
২. সুর্যাস্তের পূর্বে পতাকা নামাতে হবে
৩. পতাকা শোক দিবস ছাড়া অর্ধনমিত উড়ানো যাবে না।
৪. ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবসে, ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবসে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা যাবে। এ ছাড়া ২১ ফেব্রুয়ারি ভাষা দিবসে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করা হবে।
৫. মোটর গাড়ী, নৌযান এবং উড়োজাহাজ ব্যতীত অন্যান্য ক্ষেত্রে শুধুমাত্র সূর্যোদয় হইতে সূর্যাস্ত পর্যন্ত ‘পতাকা’ উত্তোলিত থাকিবে।
৬. যেক্ষেত্রে মোটর গাড়ীতে ‘পতাকা’ প্রদর্শন করা হয়, সেইক্ষেত্রে গাড়ীর চেসিস অথবা রেডিয়েটর ক্যাপের ক্ল্যাম্পের সহিত পতাকা দন্ড দৃঢ়ভাবে আটকাইতে হইবে।
৭. পতাকায় কোন কিছু লিখে বা অঙ্কন করে উড়ানো যাবে না।
৮. ভবনে ব্যবহারের জন্য পতাকার বিভিন্ন মাপ হলো—১০ ফুট/৬ ফুট, ৫ ফুট/৩ ফুট, ২.৫ ফুট /১.৫ ফুট।
মোটরগাড়িতে ব্যবহারের জন্য পতাকার বিভিন্ন মাপ হলো—১৫ ইঞ্চি/৯ ইঞ্চি, ১০ ইঞ্চি/৬ ইঞ্চি।

আমাদের দেশের আইন আছে কিন্তু প্রয়োগ নেই। আপনার বাড়ির ছাদে, গাড়ির পাশ্বে পচে গলে নষ্ট হলেও, অবমাননা করা হলেও কেও কিছু বলতে আসবে না, কারণ আমাদের কাছে এইধরনের বিষয় তুচ্ছ। কিন্তু আসলেই কি তাই?

ফিনল্যান্ড, জার্মানি এবং ডেনমার্কে জাতীয় পতাকার অবমাননা অবৈধ ও শাস্তিযোগ্য অপরাধ। আরব বিশ্বের অনেক দেশেই জাতীয় পতাকায় ইসলামিক স্বাক্ষর রয়েছে। এসব দেশে জাতীয় পতাকার মর্যাদাকে অগ্রাধিকার দেয়া হয় এবং জাতীয় পতাকার নূ্যনতম অবমাননাকে ইসলামের অবমাননা হিসেবে বিবেচিত হয়। ভারতেও বিভিন্ন সময় বিভিন্ন বিখ্যাত ব্যক্তিকে পতাকার অবমাননার জন্য শাস্তি পেতে হয়েছে। আমাদের দেশের মানুষ কেন হবে উদাসিন?

 চলুন নিজেরাই দায়িত্ব নিই এর রক্ষনাবেক্ষণে, সম্মান অক্ষুণ রাখতে।

দেশপ্রেমে উন্মাদ নয়, লোকদেখানো মনোভাবে নয়, জেনে বুঝে সম্মানের সাথে পতাকা উড়ায় চলুন। প্রয়োগ করি নিজেদের সাধারণ বুদ্ধি মুক্তিযুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধা ও অমূল্য স্বাধীনতার সম্মানের তরে।
সংক্ষেপে লিখিত, আরও জানতে দেখতে পারেন ‘বাংলাদেশ জাতীয় পতাকা রুলস, ১৯৭২। তার থেকেও বড় বিষয়, সজাগ রাখুন নিজের বিবেক।

১৪১জন ১৪১জন
0 Shares

১১টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য