হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব আল্লামা মামুনুল হকের বিরুদ্ধে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে পোস্ট দেওয়ায় সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলার হেফাজত নেতার কয়েক হাজার অনুসারী একটি হিন্দু অধ্যুষিত গ্রামে হামলা ও লুটপাট চালিয়েছে। আজ বুধবার সকালে এ ঘটনা ঘটে। আতঙ্কে গ্রাম ছেড়ে চলে গেছেন হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন।

গত ১৫ মার্চ দিরাইয়ে হেফাজতে ইসলামের সমাবেশে আসেন মামনুল হকসহ কেন্দ্রীয় হেফাজত নেতৃবৃন্দ। এ ঘটনায় গতকাল ক্ষুব্ধ হয়ে শাল্লা উপজেলার হবিবপুর ইউনিয়নের নোয়াগাও গ্রামের ঝুমন দাস আপন নামের এক যুবক ফেসবুকে একটি পোস্ট দেন। সেখানে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যবিরোধী নেতা মামুনুলের সমালোচনা করেন তিনি। এ ঘটনাকে ধর্মীয় উস্কানি দেওয়ার অভিযোগ এনে ওই এলাকার হেফাজত নেতার অনুসারীরা রাতে বিক্ষোভ মিছিল করেন। পুলিশ কিন্তু রাতেই ঝুমন দাস আপন নামের ওই যুবককে আটক করে।

এদিকে, আজ বুধবার সকালে কাশিপুর, নাচনী, চন্ডিপুরসহ কয়েকটি গ্রামে হেফাজত নেতা মামুনুল হকের কয়েক হাজার অনুসারী দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র ও লাঠিসোটা নিয়ে নোয়াগাও গ্রামে অতর্কিত হামলা চালায়। হাজারো মানুষের আক্রমণে গ্রাম ছেড়ে পলায়ন করেন হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন। এই সুযোগে হেফাজত নেতার অনুসারীরা গ্রামে প্রবেশ করে তছনছ করে। লুটপাট করে বিভিন্ন বাড়িতে। এদিকে হামলার খবর জানালেও পুলিশ দেরিতে ঘটনাস্থলে গিয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন গ্রামের লোকজন। তারা এ ঘটনায় নিরাপত্তাহীনতায় আছেন। এই ঘটনায় আপন বাদে কাউকে আটক করা হয়নি, দারুন না?



বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যের সমালোচনা করেছিলো যে মামিনুল হক তার সমালোচনা করে একটা ফেসবুক পোস্টের জন্য আজকে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনেই হিন্দু ছেলেটারে আটক করা হলো, গ্রামে হামলা চালানো হলো। সংখ্যালঘুদের উপর আক্রমন তো এখন গা সওয়া হয়ে গেছে। হিন্দুরা তো কমতে কমতে আর বেশি নাই, ধন্যবাদ আপনাদেরই পাওনা। তবে আজ হিন্দুর বাড়ি ভেঙেছে, ভাঙার মতো হিন্দু বাড়ি না পেলে কাল আপনার ভাঙবে। তৈরী আছেন তো?

পুস্পিতা আনন্দিতা,
নিউইয়র্ক।

তথ্য সূত্রঃ The Daily Star : সুনামগঞ্জে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের বাড়িতে হেফাজত সমর্থকদের হামলার অভিযোগ

৩৭৫জন ২৬২জন
22 Shares

৩টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য