জল পাথুরে মন

আরজু মুক্তা ১৬ অক্টোবর ২০২০, শুক্রবার, ০৯:০৮:৫৬অপরাহ্ন ছোটগল্প ২৬ মন্তব্য

ঐতিহ্য প্রকাশনী থেকে আমার অনুগল্প নিয়ে একটা বই বেরিয়েছে। ফেসবুকে আলোচনা, সমালোচনার ঝড় বইছে। ঐদিকে বই মেলা শেষ করে বাড়ি ফিরতে রাত হয়। ব্যাপারটা উপভোগ্য।

মা এটা নিয়ে চিন্তিত!  বলে, মা সাবধান থাকবে। সময়ের স্রোতে গা ভাসাবে না। তবে, মানুষ চেনার প্রকৃত সময়।

: মা, তুমি টেনশন করোনা।

: না রে মা। টেনশন কি আর সহজে আসে?

: টেবিল ছেড়ে উঠবো। মা বললো, একটা লোক এসে তোকে খুঁজছিলো। এই নে, বলে কার্ড এগিয়ে দিলো। লেখা,  ম্যাম!  জি মেইলটা চেক দিয়েন।

এখন আর ফেসবুক, মেসেঞ্জার ঘাটতে ইচ্ছে করে না। দুনিয়ার রিকো !  মেসেজ !  তারপরও চোখ বুলানো। জি মেইল চেক দিয়ে দেখি, আন্দালিব নামের ছেলেটি ইন্টারভিউ নিতে চায়।

আনমনে ভাবি!  এ আর এমন কি?  কতো রং ঢং মেখে গল্প লিখি। সামান্য একটা ইন্টারভিউ !  ঐদিকে বই এর স্তুপ। অটোগ্রাফ দিতে হবে।

বিকেল ৪ টা। কলিং বেল।

সেজেগুজে স্মার্ট হয়েই ছিলাম। কিন্তু আন্দালিবকে দেখে, কেমন জানি পরিচিত আঙ্গিনায় হৃৎকম্পন বেড়ে গেলো।

অনুগল্প কেমনে লিখেন?

ব্ল্যাক ফ্রেমের চশমা আর খোঁচা দাড়ি !  আন্দালিব,  এটা কী প্রশ্ন করলে? ( মনে মনে বলি)!

অনুগল্প হচ্ছে আধো আধো কথা !  তাইতো হ্যামিলনের বাঁশীওয়ালার মতো বাঁশির বোলে লিখি।

: দারুণ বললেন তো !

আমিও কম যাই না। বললাম, এবার আপনিও এভাবে লিখে ফেলুন।

শুনে, ঠোঁটের কোণ দিয়ে হাসলো। এক গাদা প্রশ্ন করে গেলো।  অথচ মেসেঞ্জারে প্রশ্নবোধক চিহ্নের অভাব নেই।

সাংবাদিক তো নয় ; শামুকের শেল!

এই বই এর নাম এটা রাখছেন কেনো?  ঐটার প্রচ্ছদ লাল শাড়ি পরা মেয়ে কেনো?

উফ !

সৌন্দর্যের জন্য আকাশ কার কাছে ঋণী? আকাশ নীল না সাদা ভালো লাগে?

ভাবলাম বলি,  তোমার কাছে?

অ্যাট্রপস কে জানেন?

ও মা!  এই ছেলে তো আমাকে সব শিখাবে।

গুগলে সার্চ দিলাম। গ্রীক পূরানের নিয়তির দেবি। যখন যার সূতা কাটা যায় তার চরকায় ; তখনি সে মারা যায়।

মজার তো!

আজকের রাতের শেষ প্রশ্নটা ছিলো। আপনার গল্পের সব নামে “অ” থাকে কেনো?

লিখলাম stress আর কি!

পরদিন এসে শুনি, বাসায় এসেছিলো। মায়ের সাথে গল্প করে গেছে। নিয়ে এসেছিলো গাইবান্ধার রসমঞ্জরি।

আমি নিজেও বিমোহিত। এতো জানে আর বলার ভঙ্গি চমৎকার। চোখ তার নীল সমুদ্র।  তুমুল জোয়ারে জোসনায় ভাসাবে।

আজকের প্রশ্ন : ” মানুষ আপন হয় কীভাবে? ”

বললাম, যখন একই সরলরেখায় থাকে।

মেসেঞ্জার ভরিয়ে দিতে চাই কাপলেট আর কোট লিখে। ভয়ে ভয়ে লিখি। আবার রিমুভ করি। এই যেমন আজ লিখেছি,  ” থাকবে কী সাথে, যেমন থাকো অনুভবে? ”

কিন্তু আমি সত্যিই বলতে চাই। তারাটি খসে পড়ার আগে। আচ্ছা,  মন পড়ে কীভাবে? ও চোখের আড়াল হলেই মনে হয় নিভে যায় শেষ প্রদীপ।

আমি এখন আর কোথাও যাই না। মেসেঞ্জার খুলে বসে থাকি। আর জানালা দিয়ে তাকিয়ে থাকি, কখন চরণ ধ্বনি বাজবে!

আজ একটু উদার হয়ে বলুক না ; ” নতুন কিছু লিখছো কি?  ঐ গল্পের নায়ক কি আমি?

কিংবা ” এতো ভালো লিখেছো!  ইস !  সহ্য করতে পারছি না! “

৩৯৬জন ৬জন
0 Shares

২৬টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য