জন্ম রাতের অনুভূতি

সাবিনা ইয়াসমিন ১৩ জুলাই ২০১৯, শনিবার, ০৫:১৩:১৬পূর্বাহ্ন একান্ত অনুভূতি ৩৬ মন্তব্য

দিন তারিখ অনুযায়ী আজ আমার জন্মদিনের প্রথম রাত। কত বছর আগে জন্মে ছিলাম তা আজ বলতে চাচ্ছি না। মেয়েদের বয়স আর ওজন আলোচনার বিষয়ে আনতে হয় না। যেদিন জন্মেছিলাম সেদিন ছিলো বৃহস্পতিবার। সকাল আটটায়। শুনেছি আমার বাবা সবচেয়ে বেশি খুশি হয়েছিলেন। আমার দাদী মারা গিয়েছিলেন বাবা আর ফুপুর শৈশবে। আমি পৃথিবীতে যেদিন এসেছি, বাবার বদ্ধমুল ধারণা ছিলো তার মা ফিরে এসেছেন আমার রূপ ধরে। যদিও তিনি আমাকে মা কম খালা ডাকেন বেশি। জিজ্ঞেস করলে বলতেন, আপনি আমার খালার মত সুন্দর এবং চড়া মেজাজি, তাই খালা ডাকি !

জন্মের প্রথম রাতে কি ঘুমিয়েছিলাম? মা বলেন ঘুমিয়েছি, বাবা বলেন একদম ঘুমাইনি! আসলে কি করেছিলাম আমারও মনে নেই। কত্তো ছোট ছিলাম! মনে থাকবে কেন!

প্রতি বছর জন্মদিনের আগের রাত, জন্মদিন আর জন্মদিনের রাতে আমার কিছু একটা হয়। ঘুম আসে না। এক অদ্ভুদ আনন্দ-বিষাদে সময় কাটতে থাকে। সময়ের সাথে সাথে জন্মদিনের আনন্দ, উপহার, শুভেচ্ছা আর সারপ্রাইজের নানা রদ-বদল হতে দেখেছি, দেখছি। প্রথম সারপ্রাইজটা পেয়েছিলাম দশ বছর বয়সে। এক বান্ধবীর ফুফু দিয়েছিলেন। এক প্যাকেট চানাচুর, আর একটা ছোট্ট কেক হাতে দিয়ে বলেছিলেন শুভ জন্মদিন….( পারিবারিক নাম)। দোয়া করি অনেক বড় হও। তারপর থেকে জীবনে অনেকবার অনেকরকম সারপ্রাইজ/প্রাইজ পেয়েছি। কিন্তু সেদিনের ঐ স্মৃতি এখনো মনে চির উজ্জ্বল হয়ে আছে।

প্রতিবছর জন্মদিনে আমার মা আমার জন্যে নানারকম খাবার রান্না করেন। যা যা খেতে পছন্দ করি সব। কচু শাক, ইলিশ মাছ, সজনেডাঁটা, পোলাও কত কিছু। সব ঠিকমতো খেতেও পারিনা। আর ডিম। ওটা তিনি আমার জন্যে রাখবেনই। আজও অনেক কিছু রান্না করেছেন, আমাকে খাওয়াতে। কিন্তু তার মন ভরেনি। আগামীকাল আরো ব্যাপক রাঁধবেন বলে ঘোষনা দিয়েছেন। শুধু তাই নয়, আজ আমাকে তার সাথেই রেখেছেন। যেন সকালের নাস্তা থেকে শুরু করে রাতের ভোজ পর্যন্ত একটাও মিস না করি এই জন্যে। জন্মদিনে মায়ের আনন্দ অনুভূতি আমি উপলব্ধি করি। কারণ, আজ আমি নিজেও মা। আমার যেমন জন্ম হয়েছিলো সন্তান হিসেবে, তেমনি আমার মায়েরও জন্ম হয়েছিলো মা হিসেবে। আজ আমাদের দুজনেরই জন্মদিন-রাত। ভিন্নরূপে, ভিন্নভাবে।

“মা তুমি জানো আমি তোমাকে কতটা ভালোবাসি ”

বছরখানেক আগেও জন্মদিনে কেক কাটতাম একটা। গত পাঁচ/ছয় বছর হলো কেক কাটতে হচ্ছে দুটো করে। একটা মা,ভাইবোনের পক্ষ থেকে। আরেকটা মেয়েদের পক্ষ থেকে। মাতো মা ই ছিলো, আছে, দেখতে দেখতে মেয়েগুলোও মা হয়ে গেছে!

সোনেলা ব্লগ আমার আরেকটি পরিবার। আমার হাসি-আনন্দে ভরা সোনালী জগৎ। এখানে এসে পেয়েছি সহ ব্লগারদের অকৃত্রিম ভালোবাসা,স্নেহ-মমতা ,সহযোগিতা। আজ জন্মদিনে তাদের দেয়া নানারুপ শুভেচ্ছায় মুগ্ধতা প্রকাশ করার ভাষা হারিয়ে গেছে। এর কোন প্রতিদান-প্রতিউত্তর হয়না। নির্মল ভালোবাসার প্রতিদান দেয়া যায়না।

প্রাণপ্রিয় দুইবোন, মা-বাবা,ভাই-ভাবি,স্বামী ,পরিবার-পরিজন,অগুনতি শুভাকাঙ্ক্ষী, আর নির্মল নিঃস্বার্থ বন্ধু-স্বজনদের নিয়ে জন্মদিন কাটাই সুখে-দুঃখে। সবার অফুরান ভালোবাসা, আশির্বাদ, শুভকামনায় সিক্ত হয়ে দিনটা দিনের মতোই পার হয়ে যায়। আগামী বছর কি করবো, কোথায় থাকবো জানিনা। ভালো থাকুক সবাই। সৃষ্টিকর্তার কাছে প্রতিনিয়ত প্রার্থনা করি তিনি যেন আমার প্রিয়জনদের সুস্থ, সুন্দর আর নিরাপদে রাখেন।

৩৪৭জন ৫৪জন
72 Shares

৩৬টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য