জন্মদাগ

মাহবুবুল আলম ২৮ ডিসেম্বর ২০১৯, শনিবার, ০১:২২:০৬অপরাহ্ন কবিতা ১৬ মন্তব্য

মাহবুবুল আলম

যতবারই শরীরের জন্মদাগটি চোখে পড়ে
ততবারই তোমার মুখটি চোখে ভেসে ওঠে
আর কেমন এক গভীরতম বেদনায় ছেয়ে
যায় হৃদয়ের অলিন্দ, এর নিগূঢ অন্তঃপুর
চারিদিকে খুঁজে ফিরি কোথাও তুমি নেই।

একটি ভ্রুণকে উদরে ধারণ করে, শরীরের
রক্ত পানি করে, তিলে তিলে বড় করেছো
আমারই নশ্বর শরীর, অার এ সুঠাম দেহে
সগৌরবে একদিন নিবিড় যতনে প্রাণ প্রতিষ্ঠা
করেছো গো মা; এভাবে সাড়ে নয় মাস বা
তারও কিছু বেশি দিন পর, কোনো এক
শুভক্ষণে উপহার দিয়েছো অামায়,পৃথিবীর
আলো, রং রূপ ছবি যাবতীয় অলঙ্কার।

এরপর নিজের শরীর নিংড়ে করিয়েছো
অমৃতদুগ্ধপান, নানান অসুখে-বিসুখে
জড়া-ব্যধি, আতান্তর নানাবিধ সংকটে
আগলে রেখেছো অামায় বুকের পাঁজরে
এমনিভাবে শৈশব, কৈশোর যৌবনের
প্রতিটি অধ্যায়ে থেকেছো তুমি ছায়া হয়ে
নিজের পেট খালি রেখে ভরিয়েছো আমার
পেট, সাধ আহ্লাদের দিয়েছো আত্মাহুতি।

কিন্তু একদিন তুমি চলে গেলে কোনো
এক অচেনা নগরে, সাথে সাথে আমাদের
বাড়িতে নেমে এলো যুদ্ধবিরতির মতো
এক ভয়ানক স্তব্দতা, নেমে এলো আরণ্যিক রাত;
এরপর থেকে তোমার কথা মনে হলেই জামার
আস্তিন উল্টিয়ে দেখি অামার জন্মদাগ তাকে
ছূয়েই তোমার ছোঁয়া পেতে চাই, কিন্তু কোথাও
পাইনা তোমায়, শুধুই জন্মদাগের মাঝে
বিমূর্ত এক স্মৃতি হয়ে আছো কেবল, তাই
তোমার কথা মনে হলেই বার বার জন্মদাগটি
দেখে দেখে তোমায় ছোঁয়ার ব্যর্থ চেষ্টা করি।

২৭ ডিসেম্বর ২০১৯

২৮১জন ১৯৫জন
9 Shares

১৬টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য