জন্মই কারো আজন্ম পাপ নয়

রিমি রুম্মান ১০ এপ্রিল ২০১৫, শুক্রবার, ০৯:৫৮:২১পূর্বাহ্ন একান্ত অনুভূতি ১৬ মন্তব্য

যাচ্ছিলাম দেশে। সাথে অসুস্থ এক মুরুব্বী আত্মীয়। জে এফ কে এয়ারপোর্ট থেকে হুইল চেয়ারে তাঁকে প্লেনে তুলে দেয়া হল। দুবাই এয়ারপোর্টে যাত্রা বিরতি। আমরা প্লেন থেকে বের হচ্ছি একে একে। বাইরেই হুইল চেয়ার নিয়ে অপেক্ষায় সেখানে কর্মরত'রা। হুড়োহুড়ি লেগে আছে, কার আগে কে তাঁর হুইল চেয়ারে যাত্রী নিবে। কিছু বখশিশ পাবে সে আশায়। চেয়ে দেখি তাঁরা প্রায় সবাই আমার দেশের খেটে খাওয়া মানুষ। আমার আত্মীয়কে কোন একটি চেয়ারে বসতে সহযোগিতা করছিলাম। হঠাৎ কানে এলো বিরক্তিমাখা ঝাঁঝালো মেয়েলী কণ্ঠস্বর। হুইল চেয়ার নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকা মানুষগুলোকে অকথ্য বকাঝকা। কেন এমন পথরোধ করে আক্কেলজ্ঞান, কাণ্ডজ্ঞানহীন হয়ে দাঁড়িয়েছে... ছোটলোক... অশিক্ষিত ইত্যাদি ইত্যাদি। আমি ঘুরে তাকাই। আগের রাতে মিউজিক এ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানে আমি যার গান শুনেছিলাম, তিনি সেই গায়িকা। একসময়কার জনপ্রিয় নায়কের কন্যা। আমি অবাক হইনি। কারন, তিনি গান গেয়ে হাসি-আনন্দে দর্শকদের মাতিয়ে রাখেন দর্শনীর বিনিময়ে। এটি তাঁর পেশা। দরিদ্র খেটে খাওয়া মানুষগুলোকে খুশি করবেন কিসের বিনিময়ে ! হুইলচেয়ারে হুড়োহুড়ি করে যাত্রী নিলে কিছু বখশিশ তাঁরা পায় হয়তো... হাড্ডিচর্মসার মানুষগুলোর একটু একটু করে জমানো টাকায় দেশে তাঁর পরিবারের অনেকগুলো মানুষের অন্নের সংস্থান হয় হয়তো, তাই তাঁরা মুখ বুজে দাঁড়িয়ে থাকে। কোন প্রতিবাদ করেনা। আমি তীব্র ঘৃণায় সেই গায়িকার হেঁটে যাওয়া পথের দিকে চেয়ে থাকি, যতক্ষণ না তাঁর হাইহীলের ঠক্‌ঠক্‌ শব্দ মিলিয়ে যায় শ্রবনসীমা থেকে।

 

যাবতীয় কাজ সেরে এয়ারপোর্ট ক্যাফেটেরিয়ায় খেতে বসি যখন, টেবিল মুছে দিয়ে গেল যে নারী, সেও আমার দেশের, আমার ভাষার। কত টাকার বিনিময়ে প্রিয়জনদের ছেড়ে সেদেশে জব করছে, জানার খুব ইচ্ছে হয়। জিজ্ঞেস করাটা শোভন নয়, তাই জানা হয় না। মনে পরে যায়, আমার এক আত্মীয় তাঁর ৫/৬ বছর বয়সী কন্যা আর স্ত্রী'কে রেখে মধ্যপ্রাচ্যে যায় জীবিকার তাগিদে। খুব কম পারিশ্রমিকে কাজ করে দেশে টাকা পাঠিয়েছে নিয়মিত। বেড়ার ঘরটি পাকা করেছেন। কেউ দেশে গেলে এটা সেটা পাঠিয়েছেন পরিবারের জন্যে। খরচ, জব, সীমাবদ্ধতা সহ নানান ভাবনায় দেশে যাননি অনেক বছর। অবশেষে দেশে গেলেন যখন, ততদিনে ছোট্ট মেয়েটি তরুণী। কন্যা'র বিয়ের উপলক্ষ সামনে নিয়ে আসা। জীবন জীবিকার অন্বেষণে'র মাঝে হারিয়ে গেল পিতা-কন্যা'র সুন্দর সুন্দর সময়গুলো।

 

স্পীকারে এনাউন্স শুনে উঠে দাঁড়াই। ইমিগ্রেশনের টুকটাক কাজ সেরে প্লেনে যখন বসি, সে এক ভিন্ন পরিবেশ। বেশিরভাগই দুবাই থেকে উঠা যাত্রী। পোটলা-পুটলি, কম্বল, পলিথিনের ব্যাগ নিয়ে উঠা মানুষগুলো। শরীরে হাড়ভাঙা খাটুনির ছাপ স্পষ্ট। ক্লান্ত চোখে মুখে নীড়ে ফেরার, প্রিয়জনদের সান্নিধ্যে ফেরার স্বপ্ন, আনন্দ। যেন এক একটি বাংলাদেশ। খুশিতে হেসে উঠা বাংলাদেশ। আমি ডানে বাঁ'য়ে তাকাই। শ্রদ্ধায় নুইয়ে আসে ভেতরটা। কানে বেজে উঠে সেই গায়িকার তাচ্ছিল্য মাখা রূঢ় কণ্ঠস্বর। লজ্জিত হই। অপমানিত হই। যেন আমার বাংলাদেশ অপমানিত হল।

 

ষোল কোটি জনসংখ্যার প্রায় এক কোটি প্রবাসী। মুল রেমিটেন্স কিন্তু নিম্ন আয়ের প্রবাসীরাই পাঠিয়ে থাকে। গতবছরই ১ হাজার ৪২২ কোটি মার্কিন ডলার সমপরিমান অর্থ পাঠিয়েছে প্রবাসী'রা। এটি আজকের একটি জাতীয় পত্রিকার হিসাব।

সবশেষে বলি__ জন্মই কারো আজন্ম পাপ নয়। একটু ভাল থাকার, সচ্ছল থাকার প্রাণপণ চেষ্টা সবাই করে। কারো জীবনে সুযোগ আসে, কারো আসে না। মানুষের প্রতি মানুষের ন্যূনতম সন্মানবোধ থাকা উচিত।

## মানুষের প্রতি মানুষের থাকুক অন্তহীন এক মানবিক অনুভুতি।

0 Shares

১৬টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ