জনমানস

শিপু ভাই ১৭ নভেম্বর ২০১৯, রবিবার, ০৯:৩৭:২৮পূর্বাহ্ন গল্প ১৫ মন্তব্য

দেইল্লার বিলের আশেপাশের গ্রামগুলোর মানুষ আজ খুব উত্তেজিত কিন্তু নিশ্চুপ। মুক্তিযোদ্ধারা কছু খাঁ নামের এক রাজাকারকে নাকি ধরে এনেছে। মেরে ফেলবে বোধয়। এই অঞ্চলে তেমন কোন যুদ্ধ হয়নি। ফলে এখানকার মানুষের কাছে যুদ্ধ, রাজাকার, মুক্তিযোদ্ধা, হানাদার ইত্যাদি বিষয়গুলো খুব স্পষ্ট না। সবই তাদের শোনা কথা। একটু দূরের নদী দিয়ে দুই একবার পাক বাহিনীর লঞ্চ গিয়েছে আর মাঝে মাঝে বিকট শব্দ করে মাথার উপর দিয়ে প্লেন যায়। বেতারের মাধ্যমে কিছু কিছু খবর পায় গ্রামবাসী। এলাকার কয়েকশো যুবক ইন্ডিয়া থেকে ট্রেনিং নিয়ে দেশে এসে পাকিদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করছে। তেমনই একটা টিম আজ কোত্থেকে যেন কছু খাঁকে ধরে এনেছে। এই ব্যাটা নাকি পাকিদের হেল্প করতো। কত্তবড় সাহস ব্যাটার!
বিলটা খুব ছোট। তবে এখন অথৈ পানিতে ভরা। ৭/৮ জন মুক্তিযোদ্ধা বড় এক নৌকায় বিলের মাঝখানে। পাটাতনে হাত পা চোখ বাধা কছু খাঁ। বিলের চারপাশের বাড়িগুলোতে নারী পুরুষ সবাই তাকিয়ে আছে এই নৌকার দিকে। বোঝা যাচ্ছে কছু খাঁকে ওরা মেরে ফেলবে। কিছু মহিলা ডুকরে কাঁদছে। কেউ কেউ দোয়া দরুদ পড়ছে।
এই ছোট্ট গ্রুপটার কমান্ডার হাসমত তার সহযোদ্ধাদের নির্দেশ দেয়। কয়েকজন মিলে কছুকে ধরে শুইয়ে দেয় পাটাতনে। মাথাটা রাখে নৌকার কার্নিশে। হাসমত বড় এক ছুড়ি নিয়ে এগিয়ে যায়। ইচ্ছে এক কোপে কছুর গলাটা নামিয়ে দেয়া। হাসমতের হাত কাপতে থাকে। দুই তিনবার চেষ্টা করেও কছুর গলায় ছুড়ি চালাতে পারে না। এরপর অন্য আরো দুইজন একইভাবে ব্যার্থ হয়।
এই টিমেরই এক সদস্য আক্কাস জ্বরে অসুস্থ হয়ে বাড়িতেই ছিল। আক্কাস বাড়ির ঘাটে বসে এতক্ষণ এসব দেখছিল। একসময় ঘাটে বাধা ছোট্ট একটা নৌকা নিয়ে বৈঠা বেয়ে আস্তে আস্তে বড় নৌকাটার কাছে যায়। বড় নৌকার সাথে ছোট নৌকাটা বেধে আক্কাস বড় নৌকাটায় উঠে পরে।
হাসমতের হাত থেকে বড় ছুড়িটা নিয়ে গালাগাল করে সহযোদ্ধাদের।
-“বাল ফালাও!?”
বলেই কছুর পাশে হাটু গেড়ে বসে আক্কাস। বা হাত দিয়ে কছুর চুল মুঠি করে ধরে ডান হাতে থাকা ছুড়িটা খুব দ্রুত চালিয়ে দেয় কছুর গলায়। ছেড়ে দেয়া ধনুকের মত ছিটকে নৌকা থেকে পানিতে পরে যায় কছু। গলা দিয়ে ঘড়ঘড় শব্দে রক্ত বেরুচ্ছে। হাসমত এবার নৌকায় বসেই পানিতে থাকা কছুর গলাটা ধর থেকে মুক্ত করে দেয়। ডুবে যায় কছুর দেহটা।
বিলের তীরে দাঁড়ানো লোকজন মন্ত্রমুগ্ধের মত তাকিয়ে দেখে এই দৃশ্য। দুই তিনজন জ্ঞান হারায়। কেউ কেউ “জয় বাংলা ” বলে চিৎকার দেয়। কিন্তু
অধিকাংশ মানুষের চোখেই তীব্র ঘৃণা। ঘৃণ্য রাজাকার কছু খাঁর জন্য না এই ঘৃণা। এই ঘৃণা বীর মুক্তিযোদ্ধা আক্কাস দেওয়ানের প্রতি।

১৫৬জন ৬৭জন
43 Shares

১৫টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য