সামনে ঈদ। দুনিয়া থমকে গেলেই বা কি বাসার মানুষের জন্য আমরা কিছু তো খানাপিনার আয়োজন করবোই। উৎসবে পার্বণের কমন একটি ডেজার্ট পুডিং। এর রেসিপি নিয়ে আসলাম আজকে। আশা করি এই সহজ বর্ণনায় যারা আগে কখনো বানান নাই, তারাও পারবেন বানাতে।

কেরামেল পুডিং এর রেসিপিঃ

উপকরণঃ

১। তিনটা মুরগির ডিম

২। আড়াই মগ লিকুয়িড দুধ

৩। পোনে এক মগ গুড়া দুধ

৪। এক কাপ চিনি দুধের সাথে জ্বাল দেয়ার জন্য, আধা কাপ চিনি কেরামেল তৈরির জন্য

৫। একটা বড় ডিসকো হাড়ি

৬। একটা মাঝারি সাইজের সসপেন, কেরামেল রেডি করার জন্য ও পুডিং বসানোর জন্য

৭। সসপেন এর মাপের ঢাকনা অথবা স্টিল বা সিলভারের ঢাকনা বা প্লেট

৮। শিল (পুডিং এর ঢাকনা তে চাপা দেয়ার জন্য)

৯। জ্বাল দেয়ার জন্য পানি (সসপেন এর অর্ধেক গা ভিজানোর মত পরিমাণের)

১০। গ্যাসের চুলা, পুডিং রান্না করার জন্য

১১। ম্যাচ, আগুন ধরানোর জন্য

১২। ম্যাচের কাঠি, পুডিং হইসে কিনা তা চেক করার জন্য

১৩। দুধ জ্বাল দেয়ার পাতিল

১৪। মেজারমেন্ট কাপ, মাঝারি যে কাপ বা মগে আপনি চা খান

প্রস্তুতপ্রণালীঃ

দুধের মিশ্রণ তৈরিঃ

১। আড়ং এর লিকুয়িড দুধ প্যাকেটের কোণা কেটে নিন।

২। কাপ বা মগ দিয়ে একবার ভরে পাতিলে ঢালুন। আবার ভরে নিয়ে পাতিলে ঢালুন। আবার ঢেলে পুরা মগ ভরবেন না। তার আগেই পাতিলে ঢালুন।

৩। এবারে দুধসমেত পাতিলটা চুলায় দিন। চামচ দিয়ে অনবরত নাড়তে থাকুন। পাতিলের তলায় যেন লেগে না যায় তা খেয়াল রাখুন। চুলার জ্বাল মিডিয়ামে রাখুন।

৪। দুধটা কিছুটা ঘন করে নিন। এর পরে এর মধ্যে গুড়া দুধ দিয়ে একই রকম করে নাড়তে থাকুন। একই সাথে এক কাপ চিনিটাও দিয়ে দেবেন। একই রকমভাবে নেড়ে দুধকে ঘন করে নিন। মনে রাখবেন চিনি ছাড়ার পরে একটু পানি ছাড়ে, তাই চিনির পানিটা শুকিয়ে ফেলতে হবে।

৫। দুধ ঘন হয়ে এলে যে পাতিলে পুডিং বসাবেন সেই পাতিলে পানি এবং বরফ দিয়ে তার মধ্যে গরম দুধের পাতিল বসিয়ে ঠান্ডা করুন।

৬। ডিম ফেটে নিন। কাঁটাচামচ দিয়ে ভালোভাবে ফেটে নিন। কোন দানাদার ভাব যেন না থাকে।

৭। দুধ ঠান্ডা হয়ে গেলে ওই পাতিলে ফেটানো ডিম ঢেলে ডালঘুটনি দিয়ে ঘুটুন। এই পরিশ্রম করতে না চাইলে ব্লেন্ডারে দুধ আর ডিম একসাথে ব্লেণ্ড করে নিন।

কেরামেল তৈরিঃ

যেই সস্ পেন এ পুডিং বসাবেন, তার তলায় চিনি সাজান। একটুও যেন সসপেনের তলা দেখা না যায়।

এবার চুলায় মিডিয়াম আঁচের চেয়ে কম জ্বাল রেখে তার উপরে চিনি সহ সসপেন বসিয়ে অপেক্ষা করুন। চিন গলতে শুরু করলে মোটা লুছনী দিয়ে সসপেন এর কোণা ধরে গলা চিনিকে ঘুরাতে থাকুন। পুরা চিনি গলে গেলে চুলা থেকে সসপেন সরিয়ে নিন। তারপর চিনিটা পুরা সসপেনের তলায় ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে প্লেন করে সেট করে নিন। ফ্যানের বাতাসে ঠান্ডা হতে দিন।

৮। কেরামেল ঠান্ডা হয়েছে কিনা চেক করে নিন। তারপরে সসপেন এর কেরামেলের উপরে দুধ ডিমের মিশ্রণ ঢেলে দিন। এ সময় চিনির কেরামেল এর ফেঁটে যাওয়ার শব্দ আসবে। এতে ঘাবড়ানোর কিছু নেই।

৯। এবারে যে কড়াই বা বড় ডেকচিতে দুধের পাতিল ঠান্ডা করেছিলেন, সেই পাতিলের উপরে সসপেন টা বসিয়ে দেখুন, পানির ঘনত্ব সসপেন এর গায়ের অর্ধেক পর্যন্ত ডুবে কিনা। পানি বেশি হলে কমিয়ে নিন। এরপরে চুলায় মিডিয়াম আঁচে বসিয়ে দিন।

১০। সসপেন টা ঢেকে দেবেন সমান অথবা তার চেয়ে বড় সাইজের প্লেন ঢাকনা দিয়ে। তার উপরে দিয়ে দিবেন শিল অথবা ভারী কিছু, যাতে গরম পানির ভাঁপে ঢাকনা খুলে না যায়।

১১। মোটামুটি ৪০ মিনিট পরে ঢাকনা নামিয়ে চেক করুন পুডিং এর অবস্থা। যদি পানি পানি ভাব থাকে, তাহলে ঢাকনা ঢেকে দিয়ে আরও ১৫-২০ মিনিট পরে চেক করুন। আশা করি ১ঘন্টায়ই পুডিং হয়ে যাবে।

১২। পুডিং জমে গেলে, তা চেক করবেন পরিস্কার টুথপিক দিয়ে। পুডিং এর গায়ে সোজা গেঁথে দিয়ে তুলে নিন কাঠিটা। যদি পরিস্কার বের হয়ে আসে, তাহলে পুডিং বানানো হয়ে গেসে।

আর যদি কাঠির গায়ে লেগে থাকে, তাহলে বুঝবেন আর একটু জ্বাল দিতে হবে।

১৩। এর পরে জ্বাল নিভিয়ে দিন। সসপেন নামিয়ে নিন। ঠান্ডা করুন।

১৪। পাতলা চাকু দিয়ে পুডিং এর ধার দিয়ে সসপেনের কিনারা দিয়ে সসপেন এর গা থেকে পুডিং কে আলাদা করুন।

১৫। সসপেন এর খালি মুখে একটা পরিস্কার প্লেটকে রাখুন। ঘুরিয়ে পাতিলকে উলটে ধরুন প্লেটে। কিছুক্ষণ অপেক্ষা করুন, পুডিং প্লেটে নেমে গেলে, আস্তে আস্তে সসপেন টা উপর দিকে টেনে নিন। পুডিং প্লেটে নেমে গেসে।

১৬। এবারে পুডিং ঠান্ডা করে ফ্রিজে রেখে দিন। পরে ঠান্ডা হলে নিজের পছন্দ মত কেটে পরিবেশন করুন।

জাকিয়া জেসমিন যূথী

১১৪জন ২৯জন
0 Shares

১৪টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য